kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

‘কিছু’ নিয়ে ফেরার লক্ষ্যে অনুশীলনে টাইগাররা

অনলাইন ডেস্ক   

৫ মার্চ, ২০২১ ১১:২০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘কিছু’ নিয়ে ফেরার লক্ষ্যে অনুশীলনে টাইগাররা

নিউজিল্যান্ডে বাতাসের তীব্রতা নিয়ে ধারণা আছে দলের কমবেশি সবারই। এর সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ারও ব্যাপার আছে তাই। বিশেষ করে শূন্যে ভেসে আসা বল তালুবন্দি করার চ্যালেঞ্জে অভ্যস্ত হতেই অনুশীলনের প্রথম দিন ফিল্ডিংয়ে বেশি সময় পার করল অন্য রকম আমেজে থাকা বাংলাদেশ দল। ২৪ ফেব্রুয়ারি নিউজিল্যান্ডে পা রাখার পর হোটেলের বন্দিদশা থেকে গতকালই যে প্রথম মুক্তির আনন্দে ভাসলেন তামিম ইকবালরা। 

হোটেল থেকে অনুশীলনের জন্য তাঁরা গেলেন ক্রাইস্টচার্চের লিঙ্কন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠে। একসঙ্গে সবাই নয় অবশ্য। আগে থেকেই ঠিক করা যে তৃতীয় কভিড পরীক্ষায় সবাই নেগেটিভ হলে মাঠের অনুশীলনে যাওয়া যাবে ছোট ছোট গ্রুপে ভাগ হয়ে। সেই অনুযায়ী চারটি গ্রুপ ভিন্ন ভিন্ন সময়ে অনুশীলনে গেল। প্রতি গ্রুপে পাঁচজন ক্রিকেটারের সঙ্গে ছিলেন সাপোর্ট স্টাফের দুজন করে সদস্য। প্রতি গ্রুপের অনুশীলনের জন্য বরাদ্দ ছিল দুই ঘণ্টা করে সময়।

ক্রিকেটাররা এই সময়ের বেশির ভাগ সময় ফিল্ডিং চর্চায় ব্যয় করেছেন বলেই জানিয়েছেন সাইফ উদ্দিন। বিসিবির পাঠানো ভিডিও বার্তায় এই অলরাউন্ডার বলছিলেন নিউজিল্যান্ডের বাতাসের তীব্রতার কথাও, ‘আজকের অনুশীলনে সবার আগে আমরা ফিল্ডিং নিয়ে বেশি কাজ করেছি। শর্ট ও হাই ক্যাচিংয়ের অনুশীলন ছিল। এখানে আবহাওয়া ও বাতাসের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার ব্যাপার আছে। এ জন্যই ক্যাচিং করা। এরপর আমরা ছোট ছোট সেশনে ব্যাটিং-বোলিংও করেছি।’

এর সঙ্গে যোগ হয়েছিল ফিটনেস সেশনও। হোটেলের রুমে বন্দি হয়ে থেকেও সীমিত সুযোগ-সুবিধার মধ্যে নিজেদের ফিট রাখার চেষ্টা করে গেছেন ক্রিকেটাররা। তবে তা যে মোটেও যথেষ্ট ছিল না, সাইফ উদ্দিনের মুখে শোনা গেল সেটিই, ‘ফিটনেস নিয়েও কাজ করেছি আমরা। যেহেতু গত সাত দিন ফিটনেসের কাজ খুব বেশি করতে পারিনি। ট্রেনারের নির্দেশনা অনুযায়ী এদিন রানিং করেছি। সামনে যত দিন সময় আছে, ছোট ছোট অনুশীলন করেই নিজেদের মানিয়ে নিতে হবে।’

এভাবেই কয়েকটি গ্রুপে অনুশীলন চলবে আরো ছয় দিন। মোট ১৪ দিন বায়ো বাবল বা জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকার পর মিলবে মুক্তি, করা যাবে স্বাভাবিক জীবন যাপনও। সেই সময়েই অনুশীলন শিবির করার জন্য বাংলাদেশ দল ঘাঁটি গাড়বে কুইন্সটাউনে। পাঁচ দিনের সেই শিবির থেকেই পুরোদমে সারবে তিনটি করে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি ম্যাচের প্রস্তুতি। এর আগে কাল সফরে প্রথম মাঠে পা রেখেই নিজেদের লক্ষ্যের কথা শুনিয়ে দিলেন সাইফ উদ্দিন। দেশ ছাড়ার আগে ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল যা বলে গেছেন, এই অলরাউন্ডারের মুখেও এর ব্যতিক্রমী কিছু শোনা যায়নি। আজ পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের মাটিতে কোনো ফরম্যাটের ম্যাচই জিততে না পারার হতাশা এবার জয় দিয়ে চাপা দেওয়ার লক্ষ্যের কথা শোনালেন সাইফ উদ্দিন, ‘প্রত্যাশা অবশ্যই থাকবে। ওয়ানডেতে আমরা অনেক ভালো দল। দিনটি যদি আমাদের হয়, সবাই যদি ভালো খেলতে পারি, ফল অবশ্যই আমাদের পক্ষে কথা বলবে। পাশাপাশি টি-টোয়েন্টিও আছে। যেহেতু এর আগে আমাদের (নিউজিল্যান্ডে) প্রাপ্তির খাতা একদমই শূন্য, আমাদের চেষ্টা থাকবে এই সিরিজ থেকে কিছু নিয়ে যেন দেশে ফিরতে পারি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা