kalerkantho

রবিবার। ২৮ চৈত্র ১৪২৭। ১১ এপ্রিল ২০২১। ২৭ শাবান ১৪৪২

শেষ টেস্টেও ভারতকে ঘূর্ণি পিচ বানাতে বললেন স্যার ভিভ

অনলাইন ডেস্ক   

১ মার্চ, ২০২১ ১৭:১৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শেষ টেস্টেও ভারতকে ঘূর্ণি পিচ বানাতে বললেন স্যার ভিভ

দেড় দিনে শেষ হয়ে যাওয়া আহমেদাবাদ টেস্টের উইকেট নিয়ে এখনও সমালোচনা চলছে। অনেকে বলছেন, এমন উইকেট বানানোর কারণে ভারতকে আইসিসির শাস্তি দেওয়া উচিত। আবার অনেকে বলছেন, পেস সহায়ক উইকেট নিয়ে যদি কথা না হয় তাহলে স্পিন উইকেট নিয়ে এত কথা কেন? এবার ক্যারিবীয় কিংবদন্তি স্যার ভিভ বলেছেন, চারিদিকের হাহাকার, কান্নাকাটিতে কান না দিয়ে ভারতের উচিত শেষ টেস্টেও একই ধরণের পিচ তৈরি করা।

চেন্নাইয়ের ভারত-ইংল্যান্ড দ্বিতীয় টেস্ট ও আহমেদাবাদের তৃতীয় টেস্টের পিচ নিয়ে যে রকম সমালোচনা চলছে, তা অবাক করেছে রিচার্ডসকে। তিনি পিচ ও ভারতের অবস্থানকে সমর্থন করে জানান, ইংল্যান্ডের উচিত কান্নাকাটি না করে স্পিন বোলিংয়ের মোকাবেলা করার জন্য নিজেদের প্রস্তুত করা। কেননা, পেস বোলিংয়ের মতো স্পিন বোলিংও ক্রিকেটের অঙ্গ এবং এ কারণেই খেলাটাকে টেস্ট ক্রিকেট বলা হয়। তাছাড়া ভারতে খেলতে এলে স্পিনিং ট্র্যাক নিয়ে নাকেকান্না উচিত নয় বলেই দাবি ক্যারিবিয়ান তারকার।

নিজের ফেসবুক পেজে পোস্ট করা ভিডিওতে রিচার্ডস বলেন, 'সম্প্রতি ভারতে অনুষ্ঠিত টেস্ট সিরিজ নিয়ে আমাকে বিস্তর প্রশ্ন করা হয়, বিশেষ করে দ্বিতীয় ও তৃতীয় টেস্ট নিয়ে। পিচ নিয়ে চারিদিকে যেরকম কান্নাকাটি, হাহাকার চোখে পড়ছে, তাতে আমি একটু বিভ্রান্ত। যাঁরা কান্নাকাটি করছেন, তাদের স্মরণ করিয়ে দিতে চাই যে, একটা সময় আপনদের সিমিং পিচে খেলতে হয়। বল গুডলেনথ স্পট থেকে হঠাৎ লাফিয়ে ওঠে। তখন মনে করা হয় এটা ব্যাটসম্যানদের সমস্যা। ব্যাটসম্যানরা এটার সঙ্গে মানিয়েও নেন। তবে এখন আপনারা অন্য দিকটা দেখতে পাচ্ছেন। যে কারণেই এটাকে টেস্ট ম্যাচ বলা হয়। কেননা, এটা সবরকমভাবে পরীক্ষা নিয়ে থাকে।'

রিচার্ডস আরও বলেন, ‘পিচে ব্যাপক বল ঘুরছে বলে অভিযোগ উঠছে। তবে এটা মুদ্রার অন্য পিঠ। লোকে হয়তো ভুলে গেছে যে ভারতের মাটিতে টেস্ট খেলা হচ্ছে। ভারতের খেলা হলে এমন পিচ প্রত্যাশিত। আপনি ভারতে খেলতে যাচ্ছেন মানে স্পিনিং ল্যান্ডে আপনার পরীক্ষা নেওয়া হবে। আপনার উচিত এরকম পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুতি নেওয়া। ইংল্যান্ড চতুর্থ টেস্টে কীভাবে পাল্টা লড়াই চালায়, সেটা দেখার। যদি আমি ভারতে থাকতাম এবং পিচ তৈরিতে আমার ভূমিকা থাকত, তবে আমি হুবহু একই রকমের পিচ তৈরি করতাম। ইংল্যান্ড এতদিন স্বস্তিজনক জায়গায় ছিল। ভারত তাদের সেই জায়গা থেকে টেনে বের করেছে।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা