kalerkantho

মঙ্গলবার । ৭ বৈশাখ ১৪২৮। ২০ এপ্রিল ২০২১। ৭ রমজান ১৪৪২

উইন্ডিজ কেমন দল নিয়ে এসেছে তা উদ্বেগের বিষয় নয় : নান্নু

অনলাইন ডেস্ক   

৩১ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



উইন্ডিজ কেমন দল নিয়ে এসেছে তা উদ্বেগের বিষয় নয় : নান্নু

ওয়ানডের তুলনায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আসন্ন দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশকে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে বলে মনে করেন জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে উপরের সারির ১২ জন খেলোয়াড় ছিলেন না। টেস্ট দলটিও বেশ কয়েকজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়কে মিস করেছে। তারপরও ওয়ানডে দলের চেয়ে টেস্ট দলটি কিছুটা অভিজ্ঞ।

বাংলাদেশ টেস্ট দলের বেশ কয়েকজনকে নিয়ে গঠিত বিসিবি একাদশের বিপক্ষে তিন দিনের একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে নিজেদের প্রতিভার ঝলক দেখিয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলাররা। প্রস্তুতি ম্যাচে সফরকারীদের পারফরমেন্স দেখে প্রধান নির্বাচক বলেন, সাফল্য পেতে হলে তার দলকে সেরা ক্রিকেটই খেলতে হবে। আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট শুরু করছে বাংলাদেশ।

আজ মিনহাজুল বলেন, 'টেস্ট ক্রিকেট সবসময় আলাদা বলের খেলা। এটি এমন ফরম্যাট যা আগ থেকেই আপনি কিছু বলতে পারবেন না। অভিজ্ঞতার দিক থেকে ওয়ানডে দলের চেয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের টেস্ট দল অনেক এগিয়ে। বাংলাদেশে আসা তাদের দলে ভারসাম্য রয়েছে এবং তাদের পেসাররাও বেশ অভিজ্ঞ। তাই আমাদের সেরা খেলা খেলতে হবে। কোন খেলোয়াড়, কি ধরনের দল এবং কোন ধরনের আক্রমণ ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিয়ে এসেছে, তা উদ্বেগের বিষয় নয়। আমাদের বিশ্বাস আমরা যদি নিজেদের সেরা খেলাটা খেলতে পারি, তবে টেস্ট সিরিজেও ভালো ফলাফল বের করে আনতে পারব।'

২০১৮ সালে ঘরের মাঠে পূর্ণ শক্তির ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করেছিল বাংলাদেশ। সিরিজে বাংলাদেশের জয়ে মুখ্য ভূমিকা রেখেছে স্পিনাররা। দুই টেস্টে তারা ৪০টি উইকেট নিয়েছিল। মেহেদী হাসান মিরাজ ১৫টি, তার সাথে তালে-তাল মিলিয়ে বাকী ২৫ উইকেট ভাগাভাগি করে নেন অন্য তিন স্পিনার সাকিব আল হাসান-তাইজুল ইসলাম ও নাইম হাসান। এবার দলের কম্বিনেশন বিষয়ে কিছু খোলাসা না করলেও স্পিন সহায়ক পিচের ইঙ্গিত দিয়েছেন মিনহাজুল।

তিনি বলেন, 'আমরা ঘরের মাঠে যেভাবে সবসময় খেলি, সেভাবেই খেলব। তবে এখনই বলা কঠিন (দলের কম্বিনেশন কেমন হবে)। ম্যাচের ২৪ ঘন্টা আগে ম্যাচের একাদশ চূড়ান্ত করবে টিম ম্যানেজমেন্ট। তখনই সিদ্বান্ত নেয়া হবে, কতজন স্পিনার বা কতজন পেসার খেলবে।'

স্কোয়াডটি কেন ১৮ সদস্যের এবং সেখানে পেসারদের উপস্থিতি কেন বেশি সেটিও ব্যাখা দিয়েছেন মিনহাজুল, 'প্রথমত কোভিড-১৯ পরিস্থিতির জন্য আমাদের দলটি বড় করতে হয়েছে। আর দীর্ঘদিন পর পাঁচদিনের ম্যাচ খেলব তাই পেসারদের জন্য চাপ তৈরি হতে পারে- এমন সম্ভাবনাও রয়েছে। এজন্যই স্কোয়াডে পেসার বেশি, যাতে খেলোয়াড় পরিবর্তনে আমাদের হাতে যথেষ্ট পরিমাণে বিকল্প থাকে। ইনজুরি অথবা অসুস্থতা ও জৈব-সুরক্ষা পরিবেশের কারণে তাৎক্ষণিকভাবে খেলোয়াড় পরিবর্তন করা কঠিন।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা