kalerkantho

শুক্রবার । ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৩ রজব ১৪৪২

অভিষেকেই বুড়ো হাড়ের ভেলকি দেখানো কে এই পাকিস্তানি স্পিনার?

৩৪ বছর বয়সে অভিষেক, প্রথম ম্যাচেই ৭ উইকেট

অনলাইন ডেস্ক   

৩০ জানুয়ারি, ২০২১ ০৯:১৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অভিষেকেই বুড়ো হাড়ের ভেলকি দেখানো কে এই পাকিস্তানি স্পিনার?

নোমান আলি। ছবি: সংগৃহীত

অভিষিক্ত বাঁহাতি স্পিনার নোমান আলি ও বর্ষীয়ান লেগস্পিনার ইয়াসির শাহ'র ঘূর্ণি বিষে শক্তিশালী দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর বিরল স্বাদ পেয়েছে পাকিস্তান। গত কয়েক বছরে পাকিস্তান দলের টেস্ট পারফরম্যান্স চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল পিসিবি'র কাছে। কিন্তু এখন হয়তো দিন বদলেছে। সুদিন ফিরেছে পাকিস্তান ক্রিকেটে। করাচি টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার মতো কঠিন প্রতিপক্ষকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে পাকিস্তান। যার ফলে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে এগিয়ে গেল পাকিস্তান।

তবে এই ম্যাচে পাকিস্তানের জয়ের থেকেও বেশি আলোচনা হল বাঁহাতি স্পিনার নোমান আলিকে নিয়ে। ৩৪ বছর বয়সী এই স্পিনারের আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক হল দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে। আর অভিষেক ম্যাচেই তিনি সবাইকে চমকে দিলেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে প্রথম ইনিংসে দুই ও দ্বিতীয় ইনিংসে পাঁচ উইকেট পেলেন এই বর্ষীয়ান স্পিনার। এত বেশি বয়সে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হওয়া দ্বিতীয় ক্রিকেটার নোমান আলি। এর আগে ১৯৪৯ সালে ৩৪ বছর ১৪৬ দিন বয়সী ফেন ক্রেসবলের অভিষেক হয়েছিল। নিউজিল্যান্ডের সেই ক্রিকেটারও অভিষেক ম্যাচে পাঁচ উইকেট নিয়েছিলেন।

১৯৮৬ সালের ৭ অক্টোবর সিন্ধুতে জন্ম বাম-হাতি স্পিনার নুমানের। পাকিস্তানের হয়ে সবচেয়ে বেশি বয়সে (৩৪ বছর ১১১ দিনে) টেস্টে অভিষেকের রেকর্ডে চতুর্থ অবস্থানে নুমান। নুমান ৭৯ টি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলে ২৮৫ উইকেট ও ২ হাজার ১০৪ রান তুলেছেন। ৮১ লিস্ট এ ম্যাচ খেলে ১০৭ উইকেট ও ৮০৩ রান করেছেন। ৩৯ উইকেট ও ১৭৯ রান করেছেন ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে ৪১ ম্যাচে অংশ নিয়ে।

১৫ বছর ধরে খেলছেন পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটে। প্রথম শ্রেণির টুর্নামেন্ট কায়েদে আজম ট্রফিতে খেলেন হায়দরাবাদের হয়ে। এছাড়াও খেলেছেন হায়দরাবাদ হকস, খান রিসার্চ ল্যাবরেটরিজ দলে। পাকিস্তানের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগ পিএসএলে মুলতান সুলতানের এই ক্রিকেটার কিছুদিন হলো নির্বাচকদের নজরে ছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজেই চলে আসে সুযোগটা। ঘরোয়া ক্রিকেটে দীর্ঘদিনের পারফরম্যান্সের পুরস্কারটা মিলে যায়।

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম ইনিংস গুটিয়ে যায় ২২০ রানে। পাকিস্তান করে ৩৭৮। প্রথম ইনিংসে ১৫৮ রানের লিড নিয়ে দাপট দেখাতে থাকে পাকিস্তান। দ্বিতীয় ইনিংসে নোমানের ঘূর্ণি বিষে দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস শেষ হয়ে যায় মাত্র ২৪৫ রানে। মাত্র ৮৮ রান টার্গেট ছিল পাকিস্তানের সামনে। তিন উইকেট হারিয়েই সেই রান তুলে নেয় পাকিস্তান। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা