kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭। ৪ মার্চ ২০২১। ১৯ রজব ১৪৪২

অপ্রতিরোধ্য বসুন্ধরা কিংস

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

২৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০৩:০৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অপ্রতিরোধ্য বসুন্ধরা কিংস

ছবি : মীর ফরিদ

বসুন্ধরা কিংসকে ঠেকানোর প্রত্যয়ে নেমে রহমতগঞ্জ সে রকম লড়াই করতে পারেনি। তাদের ৩-০ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নরা টানা চতুর্থ জয় নিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে দিনের অন্য ম্যাচে আরামবাগকে ৬-০ গোলের মালা পরিয়েছে শেখ জামাল ধানমণ্ডি। ওদিকে টঙ্গীতে অনুষ্ঠিত বারিধারা-ব্রাদার্সের ম্যাচ ৩-৩ গোলে ড্র হয়েছে।

অতীতে জায়ান্ট আবাহনীর বিপক্ষে লড়াকু রহমতগঞ্জকে দেখা গেলেও কাল বসুন্ধরা কিংসের বিপক্ষে শুরু থেকেই তারা চাপে। আট মিনিটের মাথায় রবসনের কর্নারে প্রথম সুযোগ তৈরি হয়। কর্নার কিকটি জোনাথনের মাথা ঘুরে সামনে গেলে রাউল বেতেরা ভলি মারার সময় ঠেকান রহমতগঞ্জ গোলরক্ষক রাসেল মাহমুদ লিটন। এই গোলরক্ষক ২৬ মিনিটে করে বসেন বড় ভুল। মাঝমাঠ থেকে রবসনের বাড়ানো লবে রাউল বেতেরাকে মারাত্মক ফাউল করেন তিনি। আর্জেন্টাইন বলটা ধরার সময় গোলরক্ষক ঝাঁপিয়ে পড়েন তাঁর ওপর। পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি এবং রবসনের চমৎকার পেনাল্টি গোলে এগিয়ে যায় চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু পেনাল্টি এনে দেওয়া রাউলকে ইনজুরি নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে ৩৭ মিনিটে। তাঁর জায়গায় নামেন তৌহিদুল আলম এবং বিরতির আগে আগে বদলি হয়ে যান দ্বিতীয় গোলের এই কারিগর। ডান দিক দিয়ে ঢুকে এই দেশি ফরোয়ার্ডের ক্রসে গোলরক্ষক পরাস্ত হন। সেটি ক্লিয়ার করতে গিয়ে রহমতগঞ্জের ডিফেন্ডার মাহমুদুল হাসান বল জমা করে দেন নিজেদের পোস্টে। ২-০ গোলের লিড নিয়ে বিরতিতে যাওয়ার আগেই জয়ের রাস্তা পরিষ্কার করে ফেলে তারা। এরপর ৮৬ মিনিটে দুই ব্রাজিলিয়ানের চমৎকার বোঝাপড়ায় তৃতীয় গোলের সূত্রপাত। রবসনের থ্রু বল ধরে জোনাথন ফার্নান্দেজ ঠেলেন স্কয়ার পাস, সেটি জালে জড়িয়ে তৌহিদুল আলম ৩-০ গোলের জয় নিশ্চিত করেন।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে দিনের প্রথম ম্যাচে দুই গাম্বিয়ানের গোল প্রদর্শনীতে শেখ জামাল ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে আরামবাগকে। ওমর জোবের চার গোলের পাশাপাশি সুলেয়মান সিলাহ করেছেন জোড়া গোল। শুরু থেকেই আক্রমণের তোপে দিশাহারা আরামবাগ রক্ষণ। ১৪ মিনিটে রেজার ক্রসটি নিখুঁত টোকায় ওমর জোবে জালে পাঠিয়ে এগিয়ে নেন শেখ জামালকে। তার রেশ কাটতে না কাটতেই তিন বিদেশির বোঝাপড়ায় ব্যবধান দ্বিগুণ হয়। ১৮ মিনিটে ওমরের পাসে ঠাণ্ডা মাথায় ফিনিশ করেন স্বদেশি সিলাহ। বিরতির আগেই এই গাম্বিয়ানের দ্বিতীয় গোলে ম্যাচ পকেটে পুরে নেয় শেখ জামাল। বিরতির পরও জারি থাকে ওমর জোবে শো। ডি বক্সের ভেতর থেকে সলোমন কিংয়ের আড়াআড়ি পাসে ওমরের প্লেসিংয়ে ব্যবধান ৪-০ হয়। দুই মিনিট বাদে তিনি হ্যাটট্রিক পূরণ করেন। সলোমনের থ্রু পাস আয়ত্তে নিয়ে গাম্বিয়ান ফরোয়ার্ড তৃতীয় গোল করেন। ইনজুরি টাইমে আরেক গোলে তিনি নিজের চতুর্থ গোল করেন। তিন ম্যাচে এই গাম্বিয়ান পাঁচ গোল করে এখন সর্বোচ্চ গোলদাতার আসনে। টানা তিন জয়ে ২০১৪-১৫ মৌসুমের চ্যাম্পিয়নদের সংগ্রহ ৯ পয়েন্ট, বিপরীতে পয়েন্টশূন্য আরামবাগের এটি টানা চতুর্থ হার।

ওদিকে টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে প্রথমবারের মতো প্রিমিয়ার লিগ ম্যাচ হয়েছে। সেখানে ব্রাদার্স ইউনিয়ন তিন-তিনবার লিড নিয়ে ম্যাচ জিততে পারেনি। প্রতিবারই ম্যাচে ফেরা উত্তর বারিধারা শেষ পর্যন্ত ৩-৩ গোলে ম্যাচ ড্র করেছে। ব্রাদার্সের তিন গোলদাতা—শফিকুল, ফুরকাত জন ও স্যামসন ইলিয়াসু। উত্তর বারিধারার হয়ে তিন গোল করেছেন সুমন রেজা, ইভেজেনি ও জুয়েল মালিক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা