kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ মাঘ ১৪২৭। ২৬ জানুয়ারি ২০২১। ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

মৃত্যুর আগে প্রায় দেউলিয়া হতে বসেছিলেন ম্যারাডোনা!

অনলাইন ডেস্ক   

২৭ নভেম্বর, ২০২০ ২১:৫৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মৃত্যুর আগে প্রায় দেউলিয়া হতে বসেছিলেন ম্যারাডোনা!

ছবি : এএফপি

চোখের জলে বিদায় নিয়েছেন দিয়েগো আর্মান্দো ম্যারাডোনা। সারা বিশ্বে এখনো শোকের ছায়া। ক্যারিয়ারের শীর্ষে বিশ্বের সর্বাধিক বেতনের খেলোয়াড়দের একজন ছিলেন ম্যারাডোনা। সারা জীবন বিপুল পরিমাণ আয় করেছেন। তার জীবনযাত্রা ছিল রাজকীয়। শেষ সময়েও সেই আভিজাত্য পিছু ছাড়েনি। কিন্তু বেহিসেবী জীবনের কারণে আজীবন তিনি আর্থিক সমস্যায় ভূগেছেন। তাই জীবনের শেষ বেলায় তার হাত বলতে গেলে খালিই ছিল!

আইবিটি টাইমসের এক প্রতিবেদনে অনুযায়ী, খেলোয়াড়ি জীবনে ম্যারাডোনার বেতন ছিল ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সেই সঙ্গে এন্ডোর্সমেন্টের জন্য ম্যারাডোনা নিতেন ৮ থেকে ১০ মিলিয়ন ডলার। নাপোলিতে একবার ম্যাচ এবং ট্রেনিং সেশন মিস করায় ম্যারাডোনাকে ৭০ হাজার ডলার জরিমানা করা হয়েছিল। সেই সময় ক্লাবের সুনাম নষ্ট করার অভিযোগে ম্যারাডোনার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেই সিরি-আ লিগের ক্লাবটি।

অভিজাত জীবন যাপনের জন্য ম্যারাডোনা সারাজীবন অকাতরে খরচ করেছেন। এক সময় তিনি কর ফাঁকি দিয়ে ৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার জমিয়েছিলেন। ম্যারাডোনার মৃত্যুর আগেও সেই কর ফাঁকির টাকা পুরোপুরি শোধ করেননি। ফুটবলের অবিসংবাদী সম্রাট হওয়া সত্ত্বেও ম্যারাডোনার কিন্তু সেভাবে জমাতে পারেননি। এক্সপ্রেস ডটকমের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মৃত্যুর সময় এই ফুটবল কিংবদন্তির মোট সম্পদের পরিমাণ ছিল মাত্র ১ লাখ মার্কিন ডলার! বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৮৫ লাখ টাকার মতো।

অবশ্য সেলিব্রিটি ম্যাগাজিন এই সম্পদের পরিমাণ ৫ লক্ষ ডলার বলে দাবি করেছে। কিন্তু ম্যারাডোনার খ্যাতির তুলনায় এই অর্থ কিছুই নয়। ২০০৯ সালে ম্যারাডোনা ইতালিতে গেলে কর আদায়ের জন্য তাঁর শখের কানের দুল খুলে নেয় পুলিশ। যার আর্থিক মূল্য ৩৬০০ ইউরো। সেই ঘটনার আগে পুলিশ ম্যারাডোনার দুটো দামি ঘড়িও বাজেয়াপ্ত করে। যার দাম ১০ হাজার ইউরো। ফুটবলের রঙ্গিন ক্যারিয়ার বাদ দিলে ম্যারাডোনার অন্ধকার জগতের সঙ্গে সংশ্রবই তাঁকে প্রায় দেউলিয়া হওয়ার দিকে ঠেলে দিয়েছিল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা