kalerkantho

বুধবার । ১৩ মাঘ ১৪২৭। ২৭ জানুয়ারি ২০২১। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

যে চার্চে বাইবেলের বদলে পড়ানো হয় ম্যারাডোনার আত্মজীবনী

অনলাইন ডেস্ক   

২৬ নভেম্বর, ২০২০ ১১:৪৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যে চার্চে বাইবেলের বদলে পড়ানো হয় ম্যারাডোনার আত্মজীবনী

সদ্য প্রয়াত ফুটবল ঈশ্বর ম্যারাডোনা। ছবি: সংগৃহীত

দিয়েগো আর্মান্দো ম্যারাডোনা বিশ্বজুড়ে কোটি কোটি ফুটবল ভক্তের কাছে একটা আবেগের নাম। কিংবদন্তি, নায়ক, ফুটবলের ব্যাড বয়... কোনো একটা সংজ্ঞায় বাঁধা যেত না সাড়ে পাঁচ ফুট উচ্চতার মানুষটাকে। মৃত্যুর অনেক আগে থেকেই এই কিংবদন্তিকে আর্জেন্টাইনরা ‘ফুটবল ঈশ্বর’ই ভাবত। জীবন্ত ম্যারাডোনাকে তারা মনে-প্রাণে সব কিছুর ঊর্ধ্বে স্থান দিয়ে রেখেছিল। আর্জেন্টাইনদের মনে ম্যারাডোনার অবস্থানটি কোন স্থানে, তার এক ব্যতিক্রম উদাহরণ হচ্ছে ম্যারাডোনাইয়ান চার্চ। চার্চটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৯৮ সালে ম্যারাডোনার ৩৮তম জন্মদিনে।

চার্চটি আর্জেন্টিনার বুয়েন্স অ্যাইরেস থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরের শহর রোজারিওতে। এখানে ভক্তরা ১০ নম্বর জার্সি পরে। বাইবেল সরিয়ে সেখানে পড়ানো হয় ম্যারাডোনার আত্মজীবনী। সারা বিশ্বে এই চার্চের ভক্তসংখ্যা দুই লাখ ।

চার্চের ট্রাস্টি বোর্ডে রয়েছেন আর্জেন্টিনার সাবেক ফুটবলার আলেজান্দ্রো ভেরন। তিনি তাঁর স্মৃতিচারণায় বলেন, একবার ২৯ অক্টোবর মাঝরাতে একটা ফোন পান ভেরন। ট্রাস্টি বোর্ডের এক সদস্যই তাঁকে ফোন করে বলেন, ‘মেরি ক্রিসমাস।' ভেরন বলেন, ‘মাথা খারাপ হয়ে গেল নাকি তোমার? আজ তো সবে ৩০ অক্টোবরে পড়লাম।’

ফোনকারী অবিচলিত, ‘ঠিক তাই। আমাদের যিশু তো ৩০ অক্টোবরই জন্মেছেন।’ এ থেকেই অনুমান করা যায় আর্জেন্টিনার জনমনে কেমন ছিল ম্যারাডোনার অবস্থান।

১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপ বসল মেক্সিকোতে। শতাব্দীর সবচেয়ে নিন্দিত এবং প্রশংসিত দুটি গোলই সেবার করলেন ম্যারাডোনা এবং একই ম্যাচে। বছর চারেক আগেই ফকল্যান্ড যুদ্ধে ইংল্যান্ডের কাছে পর্যুদস্ত হয়েছে আর্জেন্টিনা। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে কোয়ার্টার ফাইনালে যেন সেই যুদ্ধের উত্তাপ। পিটার শিল্টনের মাথার ওপর দিয়ে গোল করে দলকে এগিয়ে দিলেন ম্যারাডোনা। সবাই বলল হ্যান্ড বল, ম্যারাডোনা হেসে বললেন ‘হ্যান্ড অব গড’। পরের গোলটা যেন ম্যাজিকের মতো। ছয়জন ইংরেজ খেলোয়াড়কে কাটিয়ে রাজপুত্র গোল করলেন। শতাব্দীর সেরা গোলের স্বীকৃতি পেল সেই গোল। ফাইনালে ৩-২ গোলে পশ্চিম জার্মানিকে হারিয়ে দ্বিতীয় বিশ্বকাপ জিতল আর্জেন্টিনা। ম্যারাডোনা পেলেন সোনার বুট। হয়ে উঠলেন ফুটবল কিংবদন্তি।

ম্যারাডোনার ভাষায়, প্রথম গোলটিকে আমি ‘ঈশ্বরের হাত’ হিসেবে অভিহিত করেছিলাম। কেন করেছিলাম তার ব্যাখ্যায় যাচ্ছি। ব্যাখ্যাটা খুবই সরল। ঈশ্বরই তো আমাদের হাত দিয়েছেন। আর আমি ঈশ্বর প্রদত্ত ওই হাত ব্যবহার করেই গোলটা করেছিলাম। ওটা ঈশ্বরের হাতের গোল নয় তো কী!

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা