kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ মাঘ ১৪২৭। ২৬ জানুয়ারি ২০২১। ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

১৪ দিন আগে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন, কী হয়েছিল ম্যারাডোনার?

অনলাইন ডেস্ক   

২৫ নভেম্বর, ২০২০ ২৩:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



১৪ দিন আগে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন, কী হয়েছিল ম্যারাডোনার?

ঠিক ১৪ দিন আগে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছিলেন। সেই সময় তাঁর এজেন্ট জানিয়েছিলেন, নিজের রোগের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইচ্ছুক তিনি।

থেকে গেল শতাব্দীর সেরা গোল, ‘হ্যান্ড অফ গড’, অসংখ্য মন মাতানো ড্রিবল, ছোটোখাটো চেহারায় ডিফেন্ডারদের মাত দিয়ে অসংখ্য গোলের স্মৃতি। কিন্তু থাকলেন না সেইসব ইতিহাসের স্রষ্টা দিয়েগো ম্যারাডোনা। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মাত্র ৬০ বছরে প্রয়াত হলেন বিশ্বের ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়। 

কয়েক সপ্তাহ আগে অবসাদ, অ্যানিমিয়া এবং ডিহাইড্রেশনের লক্ষণ নিয়ে লা প্লাতা একটি ক্লিনিকে ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু কয়েকদিন পর দেখা গিয়েছিল, তাঁর মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বেঁধে আছে। সেজন্য বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ককে বুয়েনস আয়ার্সের একটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। চলতি মাসের গোড়ার দিকে সেখানেই ম্যারাডোনার জটিল অস্ত্রোপচার হয়েছিল। 

অস্ত্রোপচার সফল হয়েছিল। তারপর থেকেই বাড়ি যাওয়ার জেদ ধরেছিলেন। কিন্তু ঝুঁকি নিতে চাননি চিকিৎসকরা। কয়েকদিন তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল। সেই অস্ত্রোপচার এতটাই জটিল ছিল যে মারাদোনার ম্যানেজার মাতিয়াস মোরলা জানিয়েছিলেন, সেই সময়টা সম্ভবত ম্যারাডোনার জীবনের ‘কঠিনতম মুহূর্ত’ ছিল। তিনি বলেছিলেন, ‘এটা (অস্ত্রোপচার) তাঁর জীবন নিয়ে নিতে পারত।’

আর্জেন্টিনার সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, বুধবার হৃদরোগে আক্রান্ত হন ম্যারাডোনা। খবর দেওয়া হয় হাসপাতালে। কিছুক্ষণের মধ্যেই অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছেও যায়। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ফুটবলের রাজপুত্র। সে কথা নিশ্চিত করেছেন তাঁর এজেন্ট মাতিয়াস মোরলা। অথচ সপ্তাহদুয়েক আগেই তিনি জানিয়েছিলেন, ম্যারাডোনা ভালো ছিলেন। নিজের রোগের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইচ্ছুক ছিলেন ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক।

কিংবদন্তীর প্রয়াণে গভীরভাবে শোকপ্রকাশ করেছেন জাতীয় ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ক্লদিও তাপিয়া। তিনি বলেন, ‘দিয়েগো আর্মান্দো ম্যারাডোনা… আপনি সর্বদা আমাদের হৃদয়ে থাকবেন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা