kalerkantho

শনিবার। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৫ ডিসেম্বর ২০২০। ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২

বাংলাদেশে স্মিথ-কোহলিদের মতো টেস্ট খেলোয়াড় বানাতে চান র‌্যাডফোর্ড

অনলাইন ডেস্ক   

২৯ অক্টোবর, ২০২০ ২১:৩০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশে স্মিথ-কোহলিদের মতো টেস্ট খেলোয়াড় বানাতে চান র‌্যাডফোর্ড

ছবি : বিসিবি

টেস্ট খেলতে পারদর্শী-সামর্থ্য আছে এমন খেলোয়াড়দের তৈরিতে মনোযোগী হচ্ছেন বাংলাদেশ হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের প্রধান কোচ টবি র‌্যাডফোর্ড। ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সফরে টেস্ট ম্যাচে বাংলাদেশকে ধুঁকতে দেখে টাইগারদের টেস্ট ক্রিকেটের উপর জোর দিয়েছিলেন র‌্যাডফোর্ড। দুই ক্যারিবীয় পেসার শ্যানন গাব্রিয়েল ও কেমার রোচ যখন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের বেকাদায় ফেলেছিলেন, তখন র‌্যাডফোর্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজের সহকারী কোচ ছিলেন।

আজ ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাডফোর্ড বলেন, 'দুই বছর আগে আমরা যখন বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলি তখন আমি ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সাথে ছিলাম। তিন দিনেই টেস্টটি শেষ হয়। গাব্রিয়েলের পেস এবং অন্যান্য ফাস্ট বোলাররা বাংলাদেশকে বিধ্বস্ত করেছিল। তবে সাদা-বলের ফরম্যাটে আমরা অন্য এক বাংলাদেশ দলকে দেখতে পেলাম। ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজে জিতেছে তারা। আমি বোর্ডকে বলেছি, আমি এমন একটি খেলোয়াড় তৈরি করতে চাই, যাতে টেস্ট ক্রিকেটে সত্যিই পারদর্শী হতে পারে।'

তিনি আরও বলেন, 'আমি ক্রিকেটারদের এমনভাবে তৈরি করতে চাই তারা যেন প্রযুক্তিগতভাবে শক্ত হতে পারে, ঘন্টায় ৯০ মাইল গতিতে বোলিং করতে এবং পাঁচ ঘন্টা ব্যাট করতে পারে। দীর্ঘক্ষণ বোলিং করতে পারে। এই ১৪-১৫ দিনের ক্যাম্পের পুরোটাই লাল-বলের ক্রিকেট। আমাদের কাছে বোলিং মেশিনগুলি চালু আছে, ছোট এবং সুইং হচ্ছে। কৌশল পরীক্ষা করার জন্য এটিতে কাজ করা দরকার।'

র‌্যাডফোর্ডকে ইতোমধ্যে জানিয়ে দেয়া হয়েছে, খেলোয়াড়রা লাল-বলের ক্রিকেট বেশি খেলেন না। তবে তার মতে, টেস্ট ক্রিকেটে খেলতে হলে প্রযুক্তির সাথে মানিয়ে নিয়ে বেশি বড় সংস্করণে খেলতে হবে। তিনি বলেন, 'স্থানীয় কোচদের মতে, তরুণ খেলোয়াড়রা লাল-বলের ক্রিকেট খুব বেশি খেলেন না। তাদের মানসিকতা সব সময় থাকে স্কোর করা। সমস্যাটি হলো, যখন তিনটি স্লিপ এবং একটি গালি থাকে এবং তারা পেছনের দিকে খেলতে যায় এবং ছেড়ে দিতে চায়। কিন্তু আপনি বলের সামনে থাকতে চান না।'

বিরাট কোহলি, স্টিভেন স্মিথ, কেন উইলিয়ামসন এবং অন্যান্যদের উদাহরণ টেনে র‌্যাডফোর্ড বলেন, 'আমার কাছে এই পুরো সময়টাই হলো, তাদের কৌশল-তাদের পরীক্ষা করা। যাতে টেস্ট দলের জন্য খেলোয়াড় তৈরি করতে পারি। আমি বিশ্বাস সকল খেলোয়াড়দের কাছে একটি উপস্থাপনা করতে পারবো। বিশ্ব সেরা ক্রিকেটার উইলিয়ামসন, কোহলি, স্টোকস এবং স্মিথরা সব ফরম্যাটে ভালো। তারা সকলেই ভালো টেস্ট খেলোয়াড়।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা