kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

দুর্দান্ত জয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শুরু গার্দিওলার শীর্ষদের

অনলাইন ডেস্ক   

২২ অক্টোবর, ২০২০ ১১:১৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুর্দান্ত জয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শুরু গার্দিওলার শীর্ষদের

ছবি: তৃতীয় গোলের পর উল্লাসিত সিটির খেলোয়াড়েরা।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ম্যানচেস্টার সিটির শুরুটা হলো দুর্দান্ত। পিছিয়ে পড়েও পোর্তোকে উড়িয়ে ইউরোপ সেরার প্রতিযোগিতায় শুভসূচনা করেছে পেপ গার্দিওলার দল।

ইতিহাদ স্টেডিয়ামে বুধবার ‘সি’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচটি ৩-১ গোলে জেতে সিটি। লুইস দিয়াসের গোলে পিছিয়ে পড়া দলকে সমতায় ফেরান সার্জিও আগুয়েরো। বিরতির পর অন্য দুই গোল করেন ইলকাই গিনদোয়ান ও ফেররান তরেস।

ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় পোর্তোর বিপক্ষে এই নিয়ে তিনবারের দেখায় তিনবারই জিতল সিটি। ২০১১-১২ মৌসুমে ইউরোপা লিগে প্রতিপক্ষের মাঠে ২-১ গোলে জয়ের পর ফিরতি লেগে জিতেছিল তারা ৪-০ ব্যবধানে।

ঘরের মাঠে বল দখলে রেখে সিটি আক্রমণাত্মক শুরু করলেও চতুর্দশ মিনিটে স্রোতের বিপরীতে এগিয়ে যায় পোর্তো। অসাধারণ এক গোল করেন দিয়াস। মাঝমাঠে সতীর্থের পাস পেয়ে ডি-বক্সে ঢুকে ডান পায়ের জোরালো শটে ঠিকানা খুঁজে নেন কলোম্বিয়ার এই ফরোয়ার্ড।

অবশ্য একটু পরই পোর্তোর ডিফেন্ডার পেপে ডি-বক্সে রাহিম স্টার্লিংকে ফাউল করলে পেনাল্টি পায় সিটি। সফল স্পট কিকে দলকে সমতায় ফেরান আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার আগুয়েরো।

২২তম মিনিটে সিটির গোলরক্ষক এদেরসনের ভুলে ডি-বক্সের সামনে ফাঁকায় বল পেয়েছিলেন মাতেয়াস উরিবের। কিন্তু উড়িয়ে মেরে সুযোগ নষ্ট করেন কলম্বিয়ার এই মিডফিল্ডার। ৪২তম মিনিটে আবার পিছিয়ে পড়তে বসেছিল সিটি। গোললাইন থেকে বল ফিরিয়ে এ যাত্রায় দলকে বাঁচান ইংলিশ ডিফেন্ডার কাইল ওয়াকার।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে এগিয়ে যেতে পারত স্বাগতিকরা। তবে ডি-বক্সের ভেতর থেকে গিনদোয়ানের শট বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক। সেই গিনদোয়ানই ৬৫তম মিনিটে দুর্দান্ত ফ্রি-কিকে এগিয়ে নেন দলকে। ডি-বক্সের ঠিক সামনে ফ্রি-কিক পেয়েছিল সিটি। ডান পায়ের শটে রক্ষণ প্রাচীরের ওপর দিয়ে জাল খুঁজে নেন জার্মান মিডফিল্ডার।

৭৩তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ান আগুয়েরোর বদলি নামা তরেস। ফিল ফোডেনের পাস ডি-বক্সের বাঁ দিকে পেয়ে দারুণ ফিনিশিংয়ে দূরের পোস্ট দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা