kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ কার্তিক ১৪২৭। ৩০ অক্টোবর ২০২০। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

খেলা দেখতে গিয়ে মডেলকে যৌন হয়রানি করেন ট্রাম্প!

অনলাইন ডেস্ক   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৯:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খেলা দেখতে গিয়ে মডেলকে যৌন হয়রানি করেন ট্রাম্প!

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে নারীদের অভিযোগের তালিকায় আরো একটি যোগ হলো। যুক্তরাষ্ট্রের মডেল অ্যামি ডরিস অভিযোগ করেছেন, ১৯৯৭ সালে প্রেমিকের সঙ্গে ইউএস ওপেন দেখতে গিয়ে তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্পের দ্বারা যৌন হয়রানির শিকার হন। তখন ডরিস ছিলেন ২৪ বছরের তরুণী। এত বছর পরও সেই ঘটনা তিনি ভুলতে পারেননি। তিনি রীতিমতো 'অসুস্থ' ও 'নিপীড়িত' বোধ করছেন।

দ্য গার্ডিয়ানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অ্যামি ডরিস বলেন, ১৯৯৭ সালের ৫ সেপ্টেম্বর প্রেমিক জেসন বিনের সুবাদে ট্রাম্পের সঙ্গে তাঁর দেখা হয়। ট্রাম্পের আমন্ত্রণে ভিআইপি বক্সে ইউএস ওপেনের ম্যাচ দেখতে গিয়েছিলেন দুজন। ম্যাচ চলাকালীন ভিআইপি বক্সের বাথরুমের বাইরে ট্রাম্প তাঁকে যৌন হয়রানি করেছিলেন। এ সময় ট্রাম্প তাঁর হাত চেপে ধরে জোর করে চুমু খেয়েছিলেন। হাত চেপে ধরায় ডরিস নড়তেও পারছিলেন না।

ডরিস বলেন, 'তিনি জোর করে আমাকে চুমু খাচ্ছিলেন এবং আমি তাঁকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছিলাম। আমি জানি না, এ ধরনের পরিস্থিতির জন্য কী শব্দ ব্যবহার করা হয়; কিন্তু আমি কামড় দিয়ে তাঁকে থামানোর চেষ্টা করেছি। আমার ধারণা, সে-ও ব্যথা পেয়েছিল। এত দিন আমি মানসিক যন্ত্রণায় ভুগেছি। আমার এখন মনে হচ্ছে, মেয়েদের বয়স ১৩ হতে যাচ্ছে এবং তাদের জানানো দরকার, কাউকে কখনো জোর করে কিছু করতে দেওয়াটা ঠিক নয়। আমি চাই তাদের কাছে আদর্শ হতে। আমি চাই তারা জানুক, আমি চুপ থাকিনি; অন্যায় করেছে, এমন একজনের বিরুদ্ধে আমি মুখ খুলেছি।'

ট্রাম্প অবশ্য বরাবরের মতোই এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তবে ডরিস ঘটনার প্রমাণ হিসেবে ইউএস ওপেনের সেদিনের টিকিট ও ট্রাম্পের সঙ্গে তোলা ছয়টি ছবি দেখিয়েছেন। ডরিস সেই ঘটনা নিয়ে আরো বলেন, 'আমি চেঁচিয়ে বলছিলাম, না, সরুন, না, দয়া করে থামুন। কিন্তু সে আমার ওপর জোর খাটিয়ে যাচ্ছিল। আপনি যে-ই হোন না কেন, কেউ যখন না বলে তার মানে না। কিন্তু আমার ক্ষেত্রে সেটা কাজ করেনি। এটা যথেষ্ট হয়নি। আমি ভয়ংকর ধাক্কা খেয়েছিলাম। অবশ্যই নিপীড়িত মনে হয়েছিল। কিন্তু তখনো বুঝে উঠতে পারিনি কী ঘটছে। আমি দ্রুত ফিরে (ভিআইপি বক্সে) আবার সবার সঙ্গে কথা বলে সহজ হওয়ার চেষ্টা করেছি।'

-সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা