kalerkantho

শনিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৮ সফর ১৪৪২

ধাপে ধাপে অনুশীলন ক্যাম্পে রিপোর্ট করবেন ফুটবলাররা

অনলাইন ডেস্ক   

৪ আগস্ট, ২০২০ ২১:২৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ধাপে ধাপে অনুশীলন ক্যাম্পে রিপোর্ট করবেন ফুটবলাররা

পবিত্র ঈদুল আজহার ছুটির পর কন্ডিশনিং ক্যাম্পের জন্য আগামীকাল বুধবার থেকে ধাপে ধাপে রিপোর্ট করতে শুরু করবেন জাতীয় ফুটবল স্কোয়াডের সদস্যরা। ফিফা কাতার বিশ্বকাপ ২০২২ ও এশিয়া কাপের বাছাই পর্বের বাকি চার ম্যাচের জন্য জাতীয় দল গঠনের লক্ষ্যে এই ক্যাম্পের আয়োজন করা হচ্ছে।

আগামীকাল সকাল সাড়ে ৮টায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) ভবনে প্রথম ব্যাচে কাল রিপোর্ট করার কথা রয়েছে ১২ ফুটবলারের। তাঁরা হলেন- মো. পাপ্পু হোসেন, বিশ্বনাথ ঘোষ, নাজমুল ইসলাম রাসেল, এম এস বাবলু, মো. সুমন রেজা, ফয়সাল আহমেদ ফাহিম, মো. মানিক হোসেন মোল্লা, এস এম মঞ্জুরুর রহমান মানিক, মো. আব্দুল্লাহ, ইয়াসিন আরাফাত, বিপলু আহমেদ ও মাহবুবুর রহমান।

পরদিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার রিপোর্ট করবেন আরো ১২ জন খেলোয়াড়। তাঁরা হলেন- আনিসুর রহমান, সুশান্ত ত্রিপুরা, মো. রবিউল হাসান, মো. আরিফুর রহমান, মো. শহিদুল আলম, সাদ উদ্দিন, সোহেল রানা, মো. ইব্রাহিম, মো. রহমত মিয়া, রিয়াদুল হাসান, রকিব হোসেন ও মো. টুটুল হোসেন বাদশা।

আগামী শুক্রবার রিপোর্ট করার কথা রয়েছে ৭ ফুটবলারের। এরা হলেন- তৌহিদুল আলম সবুজ, তপু বর্মণ, মামুনুল ইসলাম মামুন, আশরাফুল ইসলাম রানা, মো. রায়হান হাসান, মো. ইয়াসিন খান ও নাবিব নেওয়াজ জীবন। ক্যাম্পের জন্য প্রথমিকভাবে ৩৬ জনের স্কোয়াডে ডাক পাওয়াদের বাকি পাঁচ ফুটবলারের মধ্যে অধিনায়ক জামাল ভুইয়া ও তারিক রায়হান যোগ দেবেন কিছুটা বিলম্বে।

শুক্রবার থেকেই গাজীপুরের সারা রিসোর্টে শুরু হবে এই কন্ডিমনিং ক্যাম্প। ক্যাম্পে যোগ দেওয়ার আগে নিজ নিজ এলাকা থেকে কভিড-১৯ পরীক্ষা করাতে হবে। এরপর ক্যাম্পে যোগ দেওয়ার পর বাফুফের মেডিক্যাল দলের তত্ত্বাবধানে ফের পরীক্ষা করানো হবে তাদের কভিড-১৯ ভাইরাসের সংক্রমণ। ওই টেস্টের ফলাফল হাতে আসার পর ছোট ছোট গ্রুপে অনুশীলনের উদ্যোগ নেবে বাফুফে। একেক গ্রুপে থাকবে চার থেকে ৫ জন ফুটবলার। পরবর্তী দুই সপ্তাহ তারা একে অপরের সান্নিধ্যে আসতে পারবে না। এ সময় গ্রুপের সদস্যরাই একে অফরের ফিটনেস অনুশীলনে সহায়তা করবে। গোটা অুনশীলন পরিচালিত হবে প্রধান কোচ জেমি ডের তত্ত্বাবধানে।

১৪ দিনের প্রস্তুতিমূলক কর্মকাণ্ড সফলতার সঙ্গে শেষ হওয়ার পর ৩৬ ফুটবলারের সবাইকে ৬ সপ্তাহের পূর্ণাঙ্গ অনুশীলনের আওতায় আনা হবে। ২১ আগস্ট থেকে জেমি ডে সরাসরি এই অনুশীলন পরিচালনা করবেন। এক মাসের মধ্যেই কোচ ৩৬ জনের স্কোয়াডটিকে ২৫ জনে নামিয়ে আনবেন। এরপর গঠন করবেন ২৩ জনের চূড়ান্ত স্কোয়াড। ফিফা বিশ্বকাপ কাতার ২০২২-এর বাছাই পর্বের খেলা অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৮ ও ১৩ অক্টোবর এবং ১২ ও ১৭ নভেম্বর। এসব ম্যাচে বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রতিপক্ষ যথাক্রমে আফগানিস্তান, কাতার, ভারত ও ওমান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা