kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

গাভাস্কারের পরামর্শে ফর্ম ফিরে পান ইনজামাম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ জুলাই, ২০২০ ১৫:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গাভাস্কারের পরামর্শে ফর্ম ফিরে পান ইনজামাম

পাকিস্তানের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ছিলেন ইনজামাম উল হক। কিন্তু লিজেন্ডদেরও তো খারাপ সময় আসে। ইনজিরও এসেছিল। ব্যাটে রান আসছিল না। বাইশ গজে অসহায় লাগছিল। সেই সময় সুনীল গাভাস্কারের পরামর্শ পেয়ে নিজেকে বদলে ফেলেছিলেন ইনজামাম। এতদিন পর তিনি নিজেই সেই ঘটনা প্রকাশ করেছেন।

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক বলেছেন, '১৯৯২ সালের বিশ্বকাপে দুর্দান্ত সাফল্যের পর ইংল্যান্ড সফরে গিয়েছিলাম। ওটা ছিল ইংল্যান্ডে আমার প্রথম সফর। ওখানের পিচে কী ভাবে খেলতে হয় সে সম্পর্কে কোনো ধারণাই ছিল না। খুব খারাপ সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলাম। শর্ট-পিচড ডেলিভারি একেবারেই খেলতে পারছিলাম না।'

সেই সময় ইংল্যান্ডে এক চ্যারিটি ম্যাচে সুনীল গাভাস্কারের সঙ্গে দেখা হয় ইনজির। তার ভাষায়, 'মৌসুমের মাঝামাঝি হয়ে গিয়েছিল। তখন ইংল্যান্ডে এক চ্যারিটি ম্যাচে গাভাস্কারের সঙ্গে দেখা হয়। আমরা দুজনেই ওই ম্যাচ খেলতে গিয়েছিলাম। জিজ্ঞাসা করেছিলাম, সুনীল ভাই, শর্ট-পিচড বল খেলতে সমস্যা হচ্ছে। আমার কী করা উচিত?'

ইনজামাম বলেন, 'গ্রেটদের উপায়ও তো গ্রেট হয়। গাভাস্কার বলেছিলেন একটা ছোট কাজ করতে। সেটা হলো, শর্ট-পিচড ডেলিভারি বা বাউন্সারের ব্যাপারে ব্যাটিংয়ের সময় একদম না ভাবা। ব্যাটিংয়ের সময় এগুলোর কথা ভাবলে ফাঁদে পড়ে যাব। বাউন্সার এলে সে তো নিজে থেকেই সাথে সাথে ধরতে পারব। তাই এটা নিয়ে অযথা উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।'

গাভাস্কারের পরামর্শ মতোই এরপর থেকে নেটে খাটতে শুরু করেন ইনজামাম। হাতে হাতে ফল পেয়ে যান। ইনজির কথায়, 'নেটে তার পরামর্শ মতোই অনুশীলন শুরু করে দেই। মানসিক জোর বাড়ানোর চেষ্টা করতে থাকি। নিজেকে বলি যে, শর্টপিচ বল নিয়ে আর ভাবব না। আর তারপর থেকে অবসরের সময় পর্যন্ত আর কখনও সমস্যায় পড়িনি।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা