kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২ জুন ২০২০। ৯ শাওয়াল ১৪৪১

কাণ্ডজ্ঞানহীন জনতার ওপর চটলেন হরভজন-গম্ভীর

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ এপ্রিল, ২০২০ ১৭:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাণ্ডজ্ঞানহীন জনতার ওপর চটলেন হরভজন-গম্ভীর

ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিতে গিয়ে গত রবিবার রাতে রীতিমতো রাস্তায় নেমে বাজি ফুটিয়ে উল্লাস করেছে দেশটির একশ্রেণীর মানুষ। এসব কাণ্ডজ্ঞানহীনদের এক হাত নিলেন গৌতম গম্ভীর, হরভজন সিংয়েরা। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সতর্ক করে গম্ভীর মনে করিয়ে দেন, করোনার বিরুদ্ধে লড়াই এখনও জেতেনি ভারত। এই লড়াই এখনও চলছে।

ক্ষমতাসীন বিজেপির সাংসদ গম্ভীর দিল্লি সরকারের তহবিলে আরও ৫০ লক্ষ রুপি অনুদান দিয়েছেন করোনা-চিকিৎসা ও মেডিক্যাল সরঞ্জাম কেনার জন্য। এরপর টুইটারে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‍'ভারত, ঘরের ভিতরে থাকো। করোনার বিরুদ্ধে লড়াই এখন মাঝপথে রয়েছে। পটকা ফাটানোর মতো কোনও উৎসব এখনও আসেনি।'

করোনা-সংক্রমণের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ রয়েছে ভারত- এই বার্তা দিতে রবিবার রাত ৯টা থেকে ৯মিনিট ঘরের আলো নিভিয়ে প্রদীপ বা মোমবাতি বা টর্চ কিংবা মোবাইল ফোনের ফ্লাশ জ্বালিয়ে রাখার আবেদন করেছিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু রবিবার ভারতের বিভিন্ন জায়গাতেই দেখা গিয়েছে সংশ্লিষ্ট সময়ে অনেকে পটকা ফাটাচ্ছেন।

ঐক্যবদ্ধ ভারতের প্রদর্শন করতে গিয়ে পটকা ফাটানোর জন্য গম্ভীরের পাশাপাশি সমালোচনা করেছেন হরভজন সিং, ইরফান পাঠানরা। হরভজন পটকা ফাটানোর ঘটনাকে তীব্র কটাক্ষকে করে টুইট করেন, ‍'করোনার থেকে মুক্তি পাওয়ার রাস্তা হয়তো মিলবে। কিন্তু বোকামি থেকে মুক্তির রাস্তা আমরা কী ভাবে পাব?'

আর এক প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার ইরফান পাঠানও এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে টুইট করেছেন, ‍'খুব সুন্দরভাবে ব্যাপারটা এগিয়ে  যাচ্ছিল, যতক্ষণ না পটকা ফেটেছে।' রবিচন্দ্রন অশ্বিনের টুইট, ‍'অবাক হয়ে যাচ্ছি এটা ভেবে যে এসব লোকেরা লকডাউনের সময় পটকা নিয়ে এল কোথা থেকে?'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা