kalerkantho

সোমবার । ১৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ১  জুন ২০২০। ৮ শাওয়াল ১৪৪১

যে কারণে করোনা আসায় খুশি রবি শাস্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ মার্চ, ২০২০ ২০:০৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যে কারণে করোনা আসায় খুশি রবি শাস্ত্রী

করোনাভাইরাসের কারণে থমকে আছে পুরো বিশ্ব। থমকে গেছে ক্রীড়াঙ্গনও। আন্তর্জাতিক-ঘরোয়া সকল সিরিজ-টুর্নামেন্ট স্থগিত। খেলাধুলা না থাকায় পরিবারের সাথে সময় কাটানোর সুযোগ পেয়েছেন খেলোয়াড়রা। সেই সাথে বিশ্রাম নেয়ার সুযোগও হয়েছে তাদের। তবে এই বাধ্যতামূলক বিশ্রামকে স্বাগত জানিয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ রবি শাস্ত্রী।

তিনি বলেন, 'করোনাভাইরাসের কারণে গোটা দেশ গৃহবন্দি। তাই এই সময়টাই নিজেদের নতুন করে সতেজ করে তোলার সুযোগ পেল খেলোয়াড়রা। এই বিশ্রাম খারাপ নয়। কারণ নিউজিল্যান্ড সফরের শেষের দিকে মানসিক অবসন্নতা, শারীরিক সমস্যা এবং চোটের প্রবণতা বাড়ছিল।'

গত ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর ১০-১১ দিন বিশ্রামে থাকার সুযোগ পেয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেটাররা। দীর্ঘদিন পর আবারো বিশ্রামে সুযোগ হলো তাদের। করোনাভাইরাসের কারণে বাধ্য হয়েই গৃহবন্দি সকলে। এই ভাইরাসের কারণে ভারতজুড়ে চলছে ২১ দিনের লকডাউন। শাস্ত্রীর মতে, ক্রিকেটাররা এই সময়ে নতুন করে নিজেদের উদ্দ্যম ফিরে পাবেন। বিশেষত নিউজিল্যান্ড সফরে টানা খেলতে হয় ভারতকে। ওই সফরে পাঁচটি টি-টোয়েন্টি, তিনটি ওয়ানডে এবং দুটি টেস্ট খেলে ভারত।

শাস্ত্রী বলেন, 'গত দশ মাসে আমরা যে পরিমাণ ক্রিকেট খেলেছি, তা শুরু থেকেই চাপ সৃষ্টি করেছিল। আমি এবং সাপোর্ট স্টাফের কয়েকজন ও আমরা ২৩ মে ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপের জন্য ভারত ছেড়েছিলাম। এরপর থেকে আমরা বাড়িতে ১০-১১ দিনের জন্য থাকতে পেরেছিলাম। কিছু নির্দিষ্ট খেলোয়াড় রয়েছে যারা তিন ফরম্যাটেই খেলেন। তাই আপনি বুঝতেই পারছেন যে এটি তাদের উপর কতটা চাপ তৈরি করে। বিশেষত, মাঠ থেকে টি-টোয়েন্টি, টেস্ট ম্যাচ ক্রিকেটের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া এবং সাথে ভ্রমণ সবই ছিল।'

বিশ্বকাপের পরে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যায় ভারত। তারপর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে হোম সিরিজ এবং নিউজিল্যান্ড সফর কওে ভারত। শাস্ত্রী বলেন, 'কঠিন সময় ছিল তবে খেলোয়াড়দের জন্য এটি স্বাগত বিশ্রাম।,খেলোয়াড় হিসেবে আপনার অনেক দায়বদ্ধতা রয়েছে। এ কারণে এই বার্তাটি পরিস্কার যে, ক্রিকেট এখন সবার মনের মধ্যে শেষ হওয়া উচিত। আমার মনে হয়, নিরাপদে থাকাটা এখন সবচেয়ে বেশি জরুরি। পাশাপাশি অন্যের সুরক্ষাও নিশ্চিত করা। সকলের মধ্যে সচেনতা সৃষ্টি করা। বিরাট কোহলিরসহ অনেক খেলোয়াড়ই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সচেনতামূলক বার্তা দিয়েছে। তারা জানে, এটি খুবই মারাত্মক কিছু এবং কিছু সময়ের জন্য ক্রিকেট ধরে রাখতে পারে।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা