kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৬ চৈত্র ১৪২৬। ৯ এপ্রিল ২০২০। ১৪ শাবান ১৪৪১

বাংলাদেশের পাঁচ শ; ডাবলের পথে মুশফিক

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৫:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশের পাঁচ শ; ডাবলের পথে মুশফিক

ছবি : এএফপি

দুর্বল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মিরপুরে রীতিমতো রান উৎসবে মেতেছে বাংলাদেশ। দিনের শেষ সেশনে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ১৪৪.২ ওভারে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৫০১ রান। ইতিমধ্যেই লিড হয়ে গেছে ২৩৬ রানের। দেড়শ রানের মাইলফলক অতিক্রম করে ডাবল সেঞ্চুরির দিকে ছুটছেন ১৬৭* রানে অপরাজিত মুশফিকুর রহিম। তার সঙ্গী লিটন দাসও (৩৫*) দুর্দান্ত ব্যাট করছেন। বাংলাদেশ এই স্কোর কোথায় নিয়ে যায় সেটাই এখন দেখার।

আজ সকাল থেকেই বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন গতকালের অপরাজিত দুই ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক আর মুশফিকুর রহিম। দিনের প্রথম সেশনেই ক্যারিয়ারর ৯ম এবং অধিনায়ক হিসেবে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি তুলে নেন মুমিনুল হক। এজন্য তিনি খেলেছেন ১৫৬ বল, হাঁকিয়েছেন ১২টি বাউন্ডারি। সাবলীল ব্যাটিংয়ে ৯৫ বলে ফিফটি করে ফেলেন মুশফিকও। দ্রুত ঘুরতে থাকে রানের চাকা। ৯৯* রানে অপরাজিত থেকে লাঞ্চে গিয়েছিলেন মুশফিক। মাঠে ফিরেই তুলে নেন ক্যারিয়ারের ৭ম সেঞ্চুরি। তিনি খেলেছেন ১৬০ বল, হাঁকিয়েছেন ১৮টি বাউন্ডারি।

মুমিনুলের বিদায়ে ২২২ রানের চতুর্থ উইকেট জুটির অবসান হয়। ২৩৪ বলে ১৪ বাউন্ডারিতে ১৩২ রানের ইনিংস উপহার দেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। যিনি এই টেস্টে সেঞ্চুরি করার কথা দিয়েছিলেন সাংবাদিকদের। মোহাম্মদ মিঠুন ফিরেন মাত্র ১৭ রানে। এরপর মুশফিকের সঙ্গে জুটি গড়ে তোলেন লিটন দাস।

৩ উইকেটে ২৪০ রান তুলে ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষ করেছিল বাংলাদেশ। নিজেদের প্রথম ইনিংসের শুরুতেই ভিক্টর নাউচির বলে তরুণ সাইফ ফিরেছেন মাত্র ৮ রান করে। এরপর নাজমুলের সঙ্গে জুটিতে ৭৮ রান আসতেই ডোনাল্ড ত্রিপানোর বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে আউট হন ৮৯ বলে ৭ বাউন্ডারিতে ৪১ রান করা তামিম ইকবাল। ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি করা নাজমুল ১৩৯ বলে ৭ চারে ৭১ রানের ইনিংস খেলে টিশুমার শিকার হন। মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে অবিচ্ছিন্ন ৬৮ রানের জুটিতে দিনের বাকি সময় নির্বিঘ্নে কেটে যায়।

এর আগে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৬ উইকেটে ২২৬ রানে অল-আউট হয় জিম্বাবুয়ে। দলীয় ৭ রানে প্রথম উইকেট হারানোর পর ১১১ রানের জুটি গড়েন প্রিন্স মাসভাউরে (৬৪) এবং অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন। বিপজ্জনক ব্রেন্ডন টেইলর (১০), সিকান্দার রাজা (১৮) বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। তবে সবার বিপরীতে দাঁড়িয়ে ২১৩ বলে ক্যারিয়ারের তৃতীয় টেস্ট সেঞ্চুরি তুলে নেন ক্রেইগ আরভিন। দ্বিতীয় দিন প্রথম সেশনেই অল-আউট হয় জিম্বাবুয়ে। ৪টি করে উইকেট নিয়েছেন আবু জায়েদ আর নাঈম হাসান। ২টি নিয়েছেন তাইজুল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা