kalerkantho

শনিবার। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৫ ডিসেম্বর ২০২০। ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২

বাংলাদেশকে সমর্থন করেছিল গোটা পাকিস্তান

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:২৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশকে সমর্থন করেছিল গোটা পাকিস্তান

নিজেদের সঙ্গে মাঠের লড়াইয়ে বাংলাদেশকে এতটুকু ছাড় দেয়নি পাকিস্তান। রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে সফরকারীদের চেপে ধরা স্বাগতিকরা অবশ্য আরেক মাঠের লড়াইয়ে বাংলাদেশকে অকুণ্ঠ সমর্থন দিয়ে গেছে। টেস্টের তৃতীয় দিনের শেষে হওয়া সংবাদ সম্মেলনে গিয়েই সে কথা জানতে পারেন তামিম ইকবাল। তাঁকে জানানো হয়, একই দিনে দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্র–মে ভারতের বিপক্ষে অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে বাংলাদেশকে সমর্থন করছে গোটা পাকিস্তানই। সেটি জানান পাকিস্তানের এক সাংবাদিক। 

তামিম যখন সংবাদ সম্মেলনে যান, তখন যুব বিশ্বকাপের ফাইনালে টস জিতে বোলিং নেওয়া বাংলাদেশ ভারতকে ১৭৭ রানে অলআউট করে জয়ের পথ খুলেছে। সেখানে বোলাররা সফল হলেও রাওয়ালপিন্ডিতে তৃতীয় দিনে নিজেদের বোলারদের সাফল্যকে বিসর্জনে পাঠিয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। তৃতীয় দিনের শেষ বিকেলে টেস্ট ইতিহাসের সর্বকনিষ্ঠ বোলার হিসেবে হ্যাটট্রিক করে বাংলাদেশকে ধসিয়ে দেন ফাস্ট বোলার নাসিম শাহ। ২ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে আরেকটি বাজে হারের মুখে দাঁড়িয়ে সফরকারীরা। 

ওই ধসের আগে নিজেও উইকেটে টিকে থাকার লড়াইয়ে জিতে যাওয়ার পর আবার হেরে যান তামিম ইকবাল। উইকেটে থিতু হয়ে ৩৪ রানে আউট হওয়া এই ওপেনারের আসলে দিনশেষে সংবাদ সম্মেলনে অজুহাত দেখানোর কোনো উপায় ছিল না। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা নিয়ে একের পর এক প্রশ্নে নিজেদের দায় স্বীকার করে যাচ্ছিলেন। এমন সময়েই এক পাকিস্তানি সাংবাদিক তোলেন অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনাল প্রসঙ্গ। তখন ম্যাচর মাত্র অর্ধেক পেরিয়েছে। কথায় কথায় ওই পাকিস্তানি সাংবাদিক তামিমকে জানান, ‘এই ফাইনালে কিন্তু পুরো পাকিস্তান বাংলাদেশকেই সমর্থন করছে।’ 

সেটিই স্বাভাবিক। কারণ একেই ক্রিকেটে এই দুই দেশ চির প্রতিদ্বন্দ্বী। সেই সঙ্গে গত বেশ কয়েক বছর ধরে রাজনৈতিক সম্পর্কও এমন উত্তাপ ছড়িয়েছে যে দুই দেশের ‘মুখ দেখাদেখি’ও বন্ধ থাকার মতো অবস্থা। এই অবস্থায় যুব বিশ্বকাপের ফাইনালে বাংলাদেশই পেয়েছে তাঁদের সমর্থন। ফাইনাল শেষে উল্লাসের উপলক্ষও পেয়েছে তারা। ভারতকে হারিয়েই প্রথমবারের মতো কোনো বৈশ্বিক আসরের ফাইনালে উঠেই শিরোপা জিতল আকবর আলীর দল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা