kalerkantho

শনিবার । ২৫ জানুয়ারি ২০২০। ১১ মাঘ ১৪২৬। ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

আমার ক্যারিয়ারের সেরা বছর : রোমান সানা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৮:২১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আমার ক্যারিয়ারের সেরা বছর : রোমান সানা

নেপালে চলমান এসএ গেমসে আর্চারি ইভেন্টের ১০টি ডিসিপ্লিনের সবকটিতে স্বর্ণ পদক জয় করেছে বাংলাদেশ। ঐতিহাসিক এই ঘটনার পর বাংলাদেশের সেরা আরচার রোমান সানা বলেছেন এটি দেশের এবং তার ১০ বছরের ক্যারিয়ারের সেরা বছর। আজ সোমবার দক্ষিণ এশীয় প্রতিযোগিতায় পুরুষদের রিকার্ভ এককে স্বর্ণ পদক জয়ের পর সংবাদ সম্মেলনে রোমান বলেন, ইভেন্টের ১০টি স্বর্ণ পদকের সবকটি জয়ের মাধ্যমে নতুন এক ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ।

দেশসেরা এই তীরন্দাজ বলেন, 'আমার দশ বছরের ক্যারিয়ারে এটিই সেরা বছর। এখন আমার আসল স্বপ্ন অলিম্পিক থেকে স্বর্ণ পদক জয় করা। এখন থেকে আমার সব কর্ম পরিকল্পনা জুড়ে থাকবে অলিম্পিক। এ জন্য অলিম্পিকে যাবার আগে আমাকে আরো কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।' এমন সফলতায় আরচারি ফেডারেশন, কোচ, সতীর্থ এবং আনসার ও ভিডিপিকে ধন্যবাদ জানিয়ে রোমান সানা বলেন, তাদের সহযোগিতা ছাড়া অলিম্পিকে ভাল কিছু করা সম্ভব নয়।

এক প্রশ্নের জবাবে দেশ সেরা এই তীরন্দাজ বলেন, ১০টি স্বর্ণ পদকের সবক'টি জিতবেন এমন আশা তিনি করেননি তবে মহান সৃষ্টিকর্তার অশেষ কৃপায় এমন সফলতা অর্জিত হয়েছে। এই অর্জন প্রত্যাশারও বেশি। আরেক প্রশ্নের জবাবে রোমান বলেন, তার কোচ যা করেছেন তা বলে বোঝানো যাবে না। তিনি যদি না থাকতেন তাহলে আরচারি এমন একটি অবস্থানে পৌঁছতে পারতোনা।

পুরুষ কম্পাউন্ডের এককে স্বর্ণ জয়ী সোহেল রানা তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, 'আর্চারি হচ্ছে আমার ধ্যান ও জ্ঞান।' স্বর্ণ পদক জয়ের মাধ্যমে দেশকে সহযোগিতা করতে পেরে নিজে ভারমুক্ত হয়েছেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি। চাঁপাইনবাব গঞ্জ থেকে উঠে আসা এই তীরন্দাজ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্য হিসেবে দেশের এই সফলতার অংশীদার হতে পেরে গর্ববোধ করছেন এবং এ পর্যায়ে পৌঁছানোর জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে বলে জানান।

মহিলাদের একক কম্পাউন্ড থেকে দিনের প্রথম স্বর্ণ পদক জয় করা সোমা বলেন, শেষ পর্যন্ত যে, তিনি দেশের জন্য স্বর্ণ পদক জয় করতে পেরেছেন সেটি বিশ্বাসই করতে পারছেন না। তিনি বলেন, 'আমি ফাইনালে খেলতে পারব এবং এসএ গেমস থেকে স্বর্ণ পদক জয় করতে পারব সেটি কল্পনাই করিনি। এখনো আমি বিশ্বাস করতে পারছি না।'

সোমা জানান, এসএ গেমসে অংশগ্রহনের সুযোগ পাবেন কিনা সেটি নিয়েই সংশয়ে ছিলেন তিনি। কারণ ডিসেম্বরের এক তারিখ থেকে তার পরীক্ষায় অংশগ্রহণের কথা ছিল। এজন্য তিনি কোচকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তার কারণেই তিনি এ পর্যায়ে পৌঁছাতে পেরেছেন। দেশের হয়ে সফলতা অর্জন করতে পেরে তিনি গর্ববোধ করে বলেন, মহান সৃষ্টিকর্তার অশেষ কৃপায় এটি সম্ভব হয়েছে।

মহিলাদের রিকার্ভ একক থেকে দ্বিতীয় স্বর্ণ পদক জয় করা ইতি খাতুন বলেন, 'এই গেমসে আমার লক্ষ্যই ছিল স্বর্ণপদক জয় করা। শেষ পর্যন্ত আমি সেটি পুরণ করতে পেরেছি।' অবশ্য তিনি এটিও বলেছেন, এসএ গেমসে স্বর্ণ জয় যে করতে পারবেন সেটি তিনি ভাবতে পারেননি। চিন্তামুক্ত হয়ে স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পেরেছেন বলেও জানান ইতি খাতুন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা