kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেট

আম্পায়াররা 'নির্দোষ'; শাস্তি হলো প্রতিবাদী ক্রিকেটার-কোচদের!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৬:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আম্পায়াররা 'নির্দোষ'; শাস্তি হলো প্রতিবাদী ক্রিকেটার-কোচদের!

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে পক্ষপাতমূলক আম্পায়ারিং নতুন কোনো বিষয় নয়। কিন্তু বারবার বলা সত্ত্বেও এর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বরং এবার বাজে আম্পায়ারিংয়ের প্রতিবাদ করে উল্টো বিপদে পড়েছেন ক্রিকেটাররা। তৃতীয় বিভাগ ক্রিকেট লিগে কামরাঙ্গীরচরের বিপক্ষে ম্যাচে পক্ষপাতমূলক আম্পায়ারিংয়ের প্রতিবাদ করেছিলেন ঢাকা রয়েল ক্রিকেটার্সের কোচ, ক্রিকেটার ও ম্যানেজার। এই 'অপরাধে' তাদেরকেই নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু অভিযুক্ত দুই আম্পায়ারকে কোনো সাজাই দেওয়া হয়নি। সেইসঙ্গে ঘরোয়া ক্রিকেটে নিষিদ্ধ করা হয়েছে মোবাইল ফোন।

গত ১৭ নভেম্বর কামরাঙ্গীরচর ও ঢাকা রয়েল ক্রিকেটার্সের ম্যাচে বাজে আম্পায়ারিংয়ের প্রতিবাদে মোবাইলে ধারণ করা একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এরপর শুনানিতে নাকি বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের ঘটনা ভিডিও করায় ঢাকা রয়েল ক্রিকেটার্সের খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে 'দেশের ক্রিকেটের ভাবমূর্তি নষ্ট' করার অভিযোগ তোলা হয়েছে। রয়েলের কোচ রনি হোসেন, অধিনায়ক অমি ও দলের আরেক ক্রিকেটার সালমানকে দুই বছর সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করেছে বিসিবির ডিসিপ্লিনারি কমিটি। তবে যে দুজন আম্পায়ারকে নিয়ে বিতর্ক, সেই জহিরুল ইসলাম ও সাইদুর রহমানের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি

শুধু তাই নয়, রয়েল ক্লাবটির ম্যানেজার সাব্বির আহমেদের বিরুদ্ধে থানায় জিডিও করা হয়েছে! পাশাপাশি সিসিডিএম ও বিসিবির পক্ষ থেকে সব ক্লাবকে চিঠি দিয়ে ম্যাচ চলাকালে দলের ম্যানেজার ছাড়া বাকি সবার মুঠোফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আইসিসির নিয়মানুযায়ীই ম্যাচ চলাকালে খেলোয়াড়-কোচরামুঠোফোন ব্যবহার করতে পারেন না। কিন্তু সিসিডিএম ও বিসিবির এই চিঠিতে খেলোয়াড়, কোচদের পাশাপাশি ম্যানেজার ছাড়া সব কর্মকর্তা এমনকি টিমবয়দের মুঠোফোন ব্যবহারও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ভুক্তভোগী ক্লাব কর্মকর্তাদের অভিযোগ, বিসিবি ও সিসিডিএম নিজেদের অপকর্ম ধামাচাপা দিতেই মুঠোফোন নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ঘরোয়া ক্রিকেটে সাম্প্রতিক যত অভিযোগ :

► প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগে ২ নভেম্বর ছিল এক্সিওম ক্রিকেটার্সের সঙ্গে কাকরাইল বয়েজের ম্যাচ পাতানো।

► ১৭ নভেম্বর কামরাঙ্গীরচর-ঢাকা রয়েল ম্যাচে আম্পায়ারিং নিয়ে অভিযোগ। ক্রিকেটারদের প্রতিবাদে আম্পায়ারদের মাঠ ত্যাগ।

► ২ ডিসেম্বর তৃতীয় বিভাগ ক্রিকেট লিগে গুলশান ক্লাব ও কাঁঠালবাগান ক্রিসেন্ট ক্লাবের মধ্যকার সুপার লিগের ম্যাচেও আম্পায়ারদের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ।

► তৃতীয় বিভাগের শুরুতেই ধ্রুব স্পোর্টিংয়ের বিপক্ষে ম্যাচে তিনটি নো বলকে কেন্দ্র করে ইয়ং পেগাসাস পক্ষপাতমূলক আম্পায়ারিংয়ের অভিযোগ তোলে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা