kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

হৃদয়ের দিনে লঙ্কানদের হোয়াইটওয়াশ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ১৭:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হৃদয়ের দিনে লঙ্কানদের হোয়াইটওয়াশ

পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচেও শ্রীলঙ্কা অনুর্ধ-১৯ দলকে হারিয়েছে বাংলাদেশ অনুর্ধ-১৯ দল। সফরকারী শ্রীলঙ্কাকে ৫০ রানে হারিয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। এর মধ্য যুব ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে টানা তিন ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানোর বিশ্বরেকর্ডও গড়েছেন তৌহিদ হৃদয়। এদিকে, প্রথম ম্যাচটি খারাপ আবহাওয়ার কারণে পরিত্যক্ত হয়। আর শেষ ম্যাচের জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে চারটি ম্যাচেই জিতল টাইগার যুবারা।

আজ মঙ্গলবার সিরিজের পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডেতে মাঠে নামে দুই দল। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করে ৫০ ওভার খেলে সাত উইকেট হারিয়ে ২৮৩ রান তুলে বাংলাদেশ। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪৪ দশমিক ৪ ওভারে গুটিয়ে যায় লঙ্কানরা। ২৩৩ রান তুলতে পারেন লঙ্কান যুবরা।

শেষ ম্যাচে ব্যাট করতে নেমে দ্রুত বিদায় নেন বাংলাদেশের ওপেনার প্রিতম কুমার। মাত্র এক রান করেই মাঠ ছাড়েন তিনি। আরেক ওপেনার সাজিদ হোসেনও ভালো করতে পারেনি। তিনি করেন ২১ রান। তিন নম্বরে নামা প্রান্তিক নাবিল ৭৭ বলে ৬৫ রান করে মাঠ ছাড়েন। চারে নেমে হৃদয় খেলেন ১১১ রানের দারুণ ইনিংস। সেই সঙ্গে গড়েন টানা তিন ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানোর বিশ্বরেকর্ড। ১০২ বলে সাজানো ইনিংসে তিনটি চারের পাশাপাশি ছিল পাঁচটি ছক্কার মার। তৃতীয় উইকেট জুটিতে নাবিলের সঙ্গে ১০০ রানের জুটি গড়েন হৃদয়। পারভেজ হোসেন করেন ৩৮ রান। তার জন্য তিনি খেলেন ৫৭ বল। শামীম হোসেন করেন এক রান। আর দলপতি আকবর আলি মাত্র দুই রান করেই বিদায় নেন। অভিষেক দাস করেন ২৪ রান। আশরাফুল ইসলাম সিয়াম কোনো রান না করেই অপরাজিত থাকেন। 

পরে ২৮৪ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে লঙ্কান ওপেনার মোহাম্মদ শামাজ করেন ৪০ রান। চার নম্বরে নামা রাভিন্দু রাশান্থার ব্যাট থেকে আসে ৮৪ রান। ২১ রান করেন নিপুন ধনাঞ্জয়া। এছাড়া, আভিস্কা পেরেরা ৩০, রোহান সঞ্জয়া ২৭, দিলুম সুধীরা ১২ রান করেন। বাংলাদেশের শাহিন আলম দুটি, হাসান মুরাদ দুটি, অভিষেক দাস একটি আর শামিম হোসেন একটি করে উইকেট তুলে নেন। ম্যাচ সেরা হন তৌহিদ হৃদয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা