kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

এএফপি'র প্রতিবেদন

'খেলা শুরুর আগেই জানি কোন দল জিতবে আর কোনটা হারবে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ অক্টোবর, ২০১৯ ১৬:০৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'খেলা শুরুর আগেই জানি কোন দল জিতবে আর কোনটা হারবে'

বাংলাদেশের সাবেক ক্রিকেট প্রধান গতকাল মঙ্গলবার বলেছেন, দেশটিতে ম্যাচ ফিক্সিং ব্যাপকভাবে প্রচলিত। সম্প্রতি বেতন-ভাতা নিয়ে দেশের শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটারদের চলমান ধর্মঘটের মধ্যে এ মন্তব্য পরিস্থিতিকে আরো উস্কে দিয়েছে। খবর এএফপি'র। 

এএফপি'র প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সাবেক সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী ব্রিটিশ শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষিত আইনজীবী, ব্যবসায়ী এবং বর্তমানে সংসদ সদস্য। তিনি বলেন, গভর্নিং বডিতে দুর্নীতি গভীরভাবে প্রোথিত। 

নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে তিনি বলেন, বিসিবি টাইগার্স এই বিশ্বের একমাত্র স্পোর্টিং বডি যা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ম্যাচ ফিক্সিং, দুর্নীতিকে পৃষ্ঠপোষকতা দেয়। এটা অবিশ্বাস্য, যোগ করেন তিনি।

আমি নিজে বিষয়টি একাধিকবার তুলে ধরেছি, বলেন তিনি। 

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, জাতীয় দলের ক্যাপ্টেন সাকিব আল হাসান গতকাল সোমবার ডোমেস্টিক ক্রিকেটে দুর্নীতির বিষয় তুলে ধরেন এবং দেশের অধিকাংশ পেশাদার খেলোয়াড় বেশি পারিশ্রমীক এবং সুবিধাদি পেতে ধর্মঘট শুরু করেন। এ পরিস্থিতি আগামী মাসে বাংলাদেশের ভারত সফরকে অনিশ্চয়তার পথে ঠেলে দিয়েছে।  

সাকিব বলেন, আমরা দেশের প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ডিভিশন ক্রিকেটের শোচনীয় অবস্থার কথা জানি। অনেক খেলাতে খেলা শুরু হওয়ার আগে থেকেই আমরা জানি যে কোন দল জিতবে আর কোন দল হারবে।

বিসিবির গভর্নিং বডি প্রতিষ্ঠানের ক্রমবর্ধমান সম্পদের শেয়ার ক্রিকেটারদের প্রদান করে না- এ নিয়ে ক্রমবর্ধমান অভিযোগের ফলাফলই এই ধর্মঘট। বাংলাদেশি ক্রিকেটার এবং কোচদের বিদেশি খেলোয়াড়দের সাথে সঙ্গতি রেখে আরো বেশি পারিশ্রমীক দিতে হবে। তারা প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটারদের পারিশ্রমীক ৫০ শতাংশ, জাতীয় মজুরি চুক্তির মেয়াদ, ডোমেস্টিক খেলায় ম্যাচ ফি বৃদ্ধি এবং স্টাফদের সুযোগ-সুবিধার বিষয়ে দাবি করছেন, বলা হয় প্রতিবেদনে। 

সূত্র: এএফপি 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা