kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

অপ্রীতিকর ঘটনায় সাঁতারুদের শাস্তি দেখে কোচের পদত্যাগ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ অক্টোবর, ২০১৯ ১৪:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অপ্রীতিকর ঘটনায় সাঁতারুদের শাস্তি দেখে কোচের পদত্যাগ

অপ্রীতিকর ঘটনায় জুনিয়র সাঁতারুদের শাস্তি ভোগ করতে দেখে সরে গেলেন সাঁতারের মূল কোচ তাকেও ইনোকি। ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে চলে যাওয়ার পর ফেইসবুক স্ট্যাটাসে আসল কারণ জানালেন এই জাপানি কোচ।

এই ব্যাপারে বাংলাদেশ সাঁতার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এমবি সাইফ বলেন, ‘ইনোকি যাওয়ার সময় আমি উপস্থিত ছিলাম। আমরা তার সঙ্গে কথা বলার অনেক চেষ্টা করেছি। কিন্তু সে আমাদের সঙ্গে কোনো কথা বলেনি। ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে চলে গেছে।’ 

তিনি বলেন, ‘অনুশীলনের সময় সাঁতারুরা গোপনে মোবাইল রাখতো। যে কারণে ওদের শাস্তি দিয়েছিল স্থানীয় কোচরা। সেটা নিয়েই মূলত ইনোকি প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে।’

সাইফ আরো বলেন, ‘এই ঘটনা জানার পর আমি সঙ্গে সঙ্গেই একটি তদন্ত কমিটি গঠন করি। পাঁচ কর্ম দিবসের মধ্যে কমিটি রিপোর্ট দেওয়ার পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নিব। মিম এখন ক্যাম্পে আছে এবং ভালো আছে। তবে আমরা মনে করি বিষয়টি ইনোকি খুব বড় করে দেখেছেন। আমরা অনুশীলন ক্যাম্পে সাঁতারুদের মোবাইল রাখতে দেই না। কারণ, ওরা রাতে ইন্টারনেট ব্যবহার করে। ফলে সকালে ওদের অনুশীলনে সমস্যা হয়। এ কারণেই বিষয়টি কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছিলাম আমরা। তবে স্থানীয় কোচরা সাঁতারুদের কি শাস্তি দিয়েছে তা সুনির্দিষ্টভাবে আমি জানি না। যদি অমানবিক শাস্তি দিয়ে থাকে তাহলে এক রকম। আর যদি রুটিন শাস্তি হয় তাহলে আরেক রকম।’

জানা গেছে, গত রবিবার ইনোকির তত্ত্বাবধানে সৈয়দ নজরুল ইসলাম সুইমিং কমপ্লেক্সে অনুশীলন চলছিল সিনিয়র জাতীয় দলের। ওই সময় সেখানে জুনিয়র জাতীয় দলও (ট্যালেন্ট হান্ট দল) ছিল। সে সময় তাকেও ইনোকি দেখেন, নিয়ম ভেঙে মোবাইল ফোন ব্যবহার করায় গরমের মধ্যে সাঁতারুদের শারীরিক অনুশীলনের শাস্তি দিচ্ছেন জুনিয়র জাতীয় দলের কোচ ও কর্মকর্তারা। 

এর এক পর্যায়ে শরিফা আক্তার মিম নামের এক সাঁতারু অজ্ঞান হয়ে পড়েন। প্রায় ১০ মিনিট রোদের মধ্যে মেয়েটি ফ্লোরে একাই পড়ে থাকলে ইনোকি কোচদের জিজ্ঞেস করেন। তখন কোচরা জানান, মেয়েটা ঠিক আছে কি না। তারা হাসতে হাসতে জানান, অভিনয় করছে, কিছু হয়নি! 

এই ঘটনার পর সেদিনই বিকেলে পদত্যাগ করে ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে যান ইনোকি। এই ব্যাপারে সাঁতার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এমবি সাইফকে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে চলে যান তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা