kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

আশরাফুল-নাফীসের ব্যাটে হার এড়াল বরিশাল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ অক্টোবর, ২০১৯ ১৯:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আশরাফুল-নাফীসের ব্যাটে হার এড়াল বরিশাল

মোহাম্মদ আশরাফুল ও শাহরিয়ার নাফীসের ব্যাটিংয়ে চলমান ২১তম জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) দ্বিতীয় রাউন্ডে চট্টগ্রাম বিভাগের বিপক্ষে হার এড়াল বরিশাল বিভাগ। বরিশালকে জয়ের জন্য ৩৩৬ রানের টার্গেট দেয় চট্টগ্রাম। জবাবে ৬৫ ওভারে ৭ উইকেটে ১৭৪ রান তুলে ম্যাচ ড্র করে বরিশাল। আশরাফুল ১০৮ বলে ৬০ ও নাফীস ১৩১ বলে ৪২ রান করেন। চট্টগ্রাম দুই ইনিংসে যথাক্রমে ৩৫৬ ও ৬ উইকেটে ১৯৫ রান করে। প্রথম ইনিংসে বরিশালের সংগ্রহ ছিল ২১৬ রান।

ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে তৃতীয় দিন শেষে ১ উইকেটে ৫০ রান করেছিল চট্টগ্রাম। ফলে ৯ উইকেট হাতে নিয়ে তারা এগিয়ে ছিল ১৯০ রানে। পিনাক ঘোষ ৩০ ও অধিনায়ক মুমিনুল হক ৯ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন। মুমিনুল ৩০ রানে থামলেও পিনাক হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নেন। শেষ পর্যন্ত ৫৪ রানে থামতে হয় পিনাককে। ৭৪ বলে ১ চার ও ২ ছক্কায় ৫৪ রান করেন তিনি। এরপর মিডল-অর্ডারে বড় ইনিংস খেলার চেষ্টা করেছিলেন উইকেটরক্ষক মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন। কিন্তু ৪৩ রানে বিদায় নিতে হয় তাকে। শেষদিকে মাসুম খানের ২৭* রানে ৬ উইকেটে ১৯৫ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে চট্টগ্রাম। রাব্বি ৪৩ রানে ২ উইকেট নেন।

জয়ের ৩৩৬ রানের বড় টার্গেট খেলতে নেমে প্রথম ওভারেই উইকেট হারায় বরিশাল। ওপেনার রাফসান আল মাহমুদ ০ রানে ফিরেন। এরপর উইকেটে টিকে থাকার দিকে মনোযোগ দেন জাতীয় দলের একসময়ের দুই সতীর্থ নাফীস ও আশরাফুল। লক্ষ্য স্থির করে সাফল্য পান নাফীস-আশরাফুল। অবশ্য রানের চেয়ে উইকেট টিকে থাকাটাই বড় লক্ষ্য ছিল তাদের। কারণ উইকেটে টিকে থাকতে পারলেই ম্যাচ ড্র সম্ভব হবে। অন্তত ৬৫ ওভার পর্যন্ত খেলতে হবে বরিশালকে। দ্বিতীয় উইকেটে ২২৬ বল মোকাবেলা করেন নাফীস-আশরাফুল। ৩৯তম ওভারের চতুর্থ বলে বিচ্ছিন্ন হন তারা।

হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ পাওয়া আশরাফুলকে ব্যক্তিগত ৬০ রানে থামিয়ে দিয়ে জমে যাওয়া জুটি ভাঙ্গেন চট্টগ্রামের ডান-হাতি পেসার মাসুম খান। ১০৮ বল মোকাবেলা করে ৬টি চার মারেন অ্যাশ। আশরাফুলের চেয়ে বেশি বল খেলে আউট হন নাফীস। ১৩১ বলে ৪টি চারে ৪২ রান করেন নাফীস। তিনি আউট হন ৪২তম ওভারে। এ অবস্থায় আরও ২৩ ওভার উইকেট বাঁচিয়ে খেলতে হবে বরিশালকে। কিন্তু নাইম-নোমানের বোলিং তোপে মিনি ধস নামে তাদের ইনিংসে। ৪৩ বল ও ১০ রানের ব্যবধানে ৩ ব্যাটসম্যান আউট হয়ে যান।নুরুজ্জামান ১, অধিনায়ক ফজলে মাহমুদ ৭ ও সোহাগ গাজী শুন্য রানে ফিরেন।

এতে ম্যাচে উত্তেজনা বাড়ে। ১২৭ রানে বরিশাল ষষ্ঠ উইকেট হারালে ম্যাচ জয়ের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে চট্টগ্রাম। কিন্তু চট্টগ্রামের স্বপ্নে পানি ঢেলে দেন মোসাদ্দেক হোসেন ও উইকেটকিপার শাসমুল ইসলাম। সপ্তম উইকেটে ১৬ ওভার ব্যাট করে ম্যাচ ড্র করেন মোসাদ্দেক ও শামসুল। দিনের শেষ বলে আউট হন মোসাদ্দেক। ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ৫২ বলে ৩৫ রান করেন মোসাদ্দেক। ৫০ বলে ১৫ রানে অপরাজিত থাকেন শামসুল। চট্টগ্রামের নাইম ৪ উইকেট নেন। যৌথভাবে ম্যাচ সেরা হয়েছেন চট্টগ্রামে নাইম হাসান ও অঙ্কন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা