kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

আল-আমিন আর রাজ্জাকের বোলিং তোপে জয়ের স্বপ্ন দেখছে খুলনা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ১৯:৩৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আল-আমিন আর রাজ্জাকের বোলিং তোপে জয়ের স্বপ্ন দেখছে খুলনা

২১তম জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) দ্বিতীয় রাউন্ডে প্রথম স্তরের ম্যাচে রাজশাহী বিভাগের বিপক্ষে জয়ের স্বপ্ন দেখছে খুলনা বিভাগ। ম্যাচের চতুর্থ ও শেষ দিন ৯ উইকেট হাতে জয়ের জন্য ১০৮ রান করতে হবে খুলনাকে। অপরদিকে, ম্যাচ জিতে দ্রুতই খুলনার ৯ উইকেটের পতন ঘটাতে হবে রাজশাহীকে।

খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে প্রথম ইনিংসে ২৬১ রান করেছিল রাজশাহী। জবাবে দ্বিতীয় দিন শেষে ৬ উইকেটে ২২৭ রান করে খুলনা বিভাগ। ফলে ৪ উইকেট হাতে নিয়ে ৩৪ রানে পিছিয়ে ছিল খুলনা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৯৩ রান করেন ইমরুল কায়েস। উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান ৩৫ ও অধিনায়ক আব্দুর রাজ্জাক ৭ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন।

তৃতীয় দিন ১৬তম বলেই আউট হয়ে যান রাজ্জাক। ১২ রান করে পেসার শফিউলের শিকার হন তিনি। তবে এক প্রান্ত আগলে দলের স্কোর বড় করেছেন নুরুল। ওয়ানডে স্টাইলে খেলার চেষ্টা করেছেন তিনি। লোয়ার-অর্ডার ব্যাটসম্যানদের সহায়তায় সেঞ্চুরির স্বপ্ন দেখছিলেন নুরুল। কিন্তু ১০৯তম ওভারের তৃতীয় বলে খুলনার শেষ ব্যাটসম্যান আল-আমিন আউট হয়ে গেলে সেঞ্চুরি বঞ্চিত হন নুরুল। ১২৭ বলে ১০টি চার ও ৪টি ছক্কায় অপরাজিত ৯৭ রান করেন নুরুল। শেষ পর্যন্ত ৩০৯ রানে অলআউট হলে প্রথম ইনিংস থেকে ৪৮ লিড পায় খুলনা।

পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে বিপর্যয়ে পড়ে রাজশাহী। ব্যাট হাতে নেমেই ২৮ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে তারা। প্রথম তিন উইকেটের দুটিই নিয়েছেন আল-আমিন হোসেন। জুনায়েদ সিদ্দিকী ৫ ও অধিনায়ক ফরহাদ হোসেন ১১ রান করে আল-আমিনের বলে আউট হন। আরেক ওপেনার মিজানুর রহমানকে খালি হাতে ফেরান বাঁ-হাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান।

এরপর দলের হাল ধরেন নাজমুল হোসেন শান্ত ও মুশফিকুর রহিম। চতুর্থ উইকেটে ৮৪ রানের জুটি গড়েন তারা। এরমধ্যে হাফ-সেঞ্চুরি করেন শান্ত। তবে অর্ধশতকের আগে ৪৪ রানে থেমে যান মুশফিক। অর্ধশতকের পর থামেন শান্তও। করেন ৫৭ রান। দুজনকেই শিকার করেন রাজ্জাক। তাদের বিদায়ের পর রাজশাহীর পরের দিকের ব্যাটসম্যানদের বড় ইনিংস খেলতে দেননি খুলনার বোলাররা। ১৭০ রানেই গুটিয়ে যায় রাজশাহী।

জয়ের জন্য ১২৩ রানের টার্গেট পায় খুলনা। খুলনার পক্ষে আল-আমিন-রাজ্জাক ৪টি করে ও মুস্তাফিজ ২টি উইকেট নেন। জয়ের জন্য ১২৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দিনের শেষ ভাগে মাত্র ৩ ওভার ব্যাট করার সুযোগ পায় খুলনা। ইনিংসের তৃতীয় বলেই এনামুল হককে হারায় তারা। ৪ রান করে আউট হন তিনি। এরপর অবিচ্ছিন্ন থেকে দিন শেষ করেন সৌম্য সরকার ও ইমরুল কায়েস। সৌম্য শূন্য ও ইমরুল ১১ রানে অপরাজিত আছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা