kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

রাগে ক্লাব ছাড়তে চেয়েছিলেন বার্সেলোনার রাজপুত্র!‍

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ অক্টোবর, ২০১৯ ১৯:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাগে ক্লাব ছাড়তে চেয়েছিলেন বার্সেলোনার রাজপুত্র!‍

এটা মোটামুটি ঠিক হয়ে গেছে যে, কাতালান ক্লাব বার্সেলোনাতেই ক্যারিয়ারের বাকী সময় কাটিয়ে দেবেন আর্জেন্টাইন ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসি। কিন্তু একসময় স্পেনে কর ফাঁকি দেওয়ার মামলায় অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সামনে পড়ে তিনি প্রিয় ক্লাব বার্সেলোনা ছাড়ার কথাও ভেবেছিলেন! যে ঘটনার শুরু ২০১৩ সালে। তখন কিংবদন্তি আর্জেন্টাইন তারকার মনে হয়েছিল, স্পেনে তার সঙ্গে অকারণে খারাপ ব্যবহার করা হচ্ছে। 

১৩ বছর বয়স থেকে মেসি বার্সেলোনায় আছেন। এই ক্লাবের সবার্ধিক গোলদাতাকে কর দপ্তর তাদের বিচারে দোষী সাব্যস্ত করে। বলা হয়, ছবির স্বত্ব বিক্রি করে তিনি এবং তার বাবা জর্জে ২০০৭ থেকে ২০০৯ সালের মধ্যে বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩৯ কোটি ২ লক্ষ ৩২ হাজার টাকা উপার্জন করেন। যার জন্য সরকারকে কোনো কর দেননি মেসি। বিচারে মেসির ২১ মাস হাজতবাস এবং সঙ্গে প্রায় ১৫ কোটি ৬০ লক্ষ টাকা জরিমানা হয়। তবে জেল খাটার হাত থেকে বাঁচতে প্রচুর পরিমাণ জরিমানা দিয়ে তিনি মুক্তি পান।

এক সাক্ষাৎকারে এই ঘটনা নিয়ে মেসি বলেছেন, 'বিশ্বাস করুন, তখন সব সময় ক্লাব ছাড়ার কথাই ভাবতাম। সেটা বার্সেলোনার জন্য নয় অবশ্যই। আসলে স্পেন থেকেই চলে যেতে চেয়েছিলাম। তখন মনে হয়েছিল, আমার সঙ্গে খুবই খারাপ ব্যবহার করা হচ্ছে। তখনই ক্লাব ছেড়ে অন্য কোথাও চলে যাওয়ার ইচ্ছেটা হয়েছিল। অনেক ক্লাবেই আমার জন্য দরজা খোলা ছিল। এমন নয় যে, কেউ আমাকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু ইচ্ছে করলেই আমি কোথাও না কোথাও চলে যেতে পারতাম।'

মেসি আরও বলেন, 'আসলে সবাই ধরে নিয়েছিল যে, আমি সারাজীবন বার্সাতেই থাকতে চাই।  কিন্তু পরিস্থিতির চাপেই বার্সা ছাড়ার কথা ভাবতে বাধ্য হয়েছিলাম। কর দপ্তর আমাকে দিয়ে নাকি উদাহরণ তৈরি করতে চেয়েছিল। তারা বোঝাতে চেয়েছিল, এরপর থেকে আর কেউ ছাড় পাবে না। যা আমার কাছে চরম অস্বস্তিকর অবস্থা হয়ে উঠেছিল। আরেকটু হলেই হয়তো আমি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলতে পারতাম।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা