kalerkantho

ট্রায়ালেই ফেল খালি পায়ে দৌঁড়ানো 'ভারতের উসাইন বোল্ট'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ আগস্ট, ২০১৯ ২১:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ট্রায়ালেই ফেল খালি পায়ে দৌঁড়ানো 'ভারতের উসাইন বোল্ট'

খালি পায়ে মাত্র ১১ সেকেন্ডে ১০০ মিটার দৌঁড়ের ভিডিও ভাইরাল হওয়ায় রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিলেন ভারতের মধ্যপ্রদেশের রামেশ্বর গুর্জর। তার অবিশ্বাস্য গতিতে দৌঁড়ানোর ভিডিও নজরে আসেন কেন্দ্রীয় ক্রীড়া ও যুব কল্যাণ মন্ত্রী কিরেণ রিজিজুরও। রামেশ্বরকে ভুপালে এসে ট্রায়াল দিতে বলেন মধ্যপ্রদেশের ক্রীড়ামন্ত্রী জীতু পাটওয়ানি। কিন্তু  ট্রায়ালে প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হলেন রামেশ্বর। ভুপালের টিটি স্টেডিয়ামের ট্রায়াল রানে ১২.৯ সেকেন্ডে ১০০ মিটার দৌঁড়ান তিনি।

১৯ বছর বয়সী রামেশ্বর জানান, একাধিক কারণে এদিন তার পারফরম্যান্স আশানুরূপ হয়নি। ট্রায়াল শেষে তিনি বলেন, 'গ্রামে আমি খালি পায়ে দৌঁড়ে অভ্যস্ত। ফলে জুতো পরে দৌঁড়ানোর কারণে সময় বেশি লেগেছে।' শুধু তাই নয়, এদিন শারীরিকভাবে ১০০% ফিট ছিলেন না বলে জানান রামেশ্বর। পা ও পিঠের পেশিতে যন্ত্রণার কারণে এদিন তার গতি কম ছিল বলে জানান তিনি। আপাতত নিজেকে ফিট করে আগামী এক মাস ভুপালের অ্যাথলেটিক্স অ্যাকাডেমিতে কঠোর প্রশিক্ষণ নেবেন রামেশ্বর। তার পর পুনরায় ট্রায়াল দেওয়ার পরিকল্পনা তার।

কয়েক দিন আগেই রামেশ্বরের ১১ সেকেন্ডে ১০০ মিটার দৌঁড়ের ভিডিও দেখে চমকে গিয়েছিল সবাই। গোয়ালিয়র-চম্বলের শিবপুরি জেলার শিকান্দরপুরের বাসিন্দা দারিদ্র্যতার কারণে ক্লাস টেনের পর পড়াশোনা করতে পারেননি। কিন্তু আর্থিক অসচ্ছলতাকে কখনও নিজের স্বপ্নের কাছে বাঁধা হতে দেননি। ছোট থেকেই গ্রামের অন্যান্য ছেলেদের চেয়ে দ্রুত গতিতে ছুটতে পারত সে। খালি পায়ে অভ্যাসের ফলে ধীরে ধীরে আরও বাড়ে গতি। গ্রামের মানুষও তাই তার প্রশংসা করত। কিন্তু এর জেরেই যে এতটা খ্যাতি পাবেন তিনি, তা ভাবেনি গ্রামবাসী।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা