kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

ধ্যানমগ্ন ঋষি বললেন 'বিশ্বকাপে কেউ হারেনি'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ জুলাই, ২০১৯ ২১:১৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ধ্যানমগ্ন ঋষি বললেন 'বিশ্বকাপে কেউ হারেনি'

ভেতরের কান্নাটা কি এভাবেই চাপা দিচ্ছিলেন কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন? ছবি : এএফপি

মুখভর্তি দাঁড়ি গোঁফ, সৌম্য দর্শন চেহারায় নিষ্পাপ হাসি, আবেগের নিয়ন্ত্রিত বহিঃপ্রকাশ দিয়ে গোটা বিশ্বের মন জয় করে নিয়েছেন তিনি। সাংবাদিকদের সামলাতে যেখানে অন্যান্যদের বেগ পেতে হয়, সেখানে বিতর্কিত এক পরাজয়ের পরেও হেসে হেসে কথা বলেছেন সংবাদ সম্মেলনে। স্বপ্ন ভঙ্গের অসহনীয় যন্ত্রণার মধ্যেও তার ক্রিকেট বোধ, তার প্রজ্ঞা, প্রতিপক্ষ ও খেলাটার প্রতি সম্মান সবাইকে হতভম্ব করে দিয়েছে। তাই লর্ডসের কনফারেন্স রুম ভর্তি সাংবাদিকরা দাঁড়িয়ে সম্মান জানিয়েছিল তাকে। সেই ধ্যানমগ্ন ঋষি হলেন কেন উইলিয়ামসন।

আজ মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে নতুন করে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন ঋষি উইলিয়ামসন। সকলেই আশা করছিল, এবার হয়তো তিনি মুখ খুলবেন। আইসিসি এবং আম্পায়ারদের নিয়ে কিছু অন্তত বলবেন। কিন্তু কোথায় কী? সেই সৌম্য মুখে একচিলতে হাসি নিয়েই কিউই অধিনায়ক এক বুক বিনয় নিয়ে বললেন, 'দিনের শেষে দুই দলই সমান ছিল। কেউ ফাইনাল হারেনি। কিন্তু কাউকে মুকুট পরাতেই হয়, সেটাই হয়েছে।'

ফাইনাল শেষে লর্ডসের সংবাদ সম্মেলনে উইলিয়ামসনকে সম্মান জানিয়ে এক সিনিয়র সাংবাদিক দাঁড়িয়ে প্রশ্ন করেছিলেন, 'সবারই আপনার মতো ভদ্র হওয়া উচিত নয়?' জবাবে নিজেকে বড় করে দেখানোর কোনো চেষ্টাই করেননি উইলিয়ামসন। নকল বিনয়ও দেখাননি।হাসিমুখে যুক্তি দেখিয়ে বলেছিলেন, 'সবারই অধিকার আছে নিজের মতো থাকার। এই পৃথিবীর সৌন্দর্যই তো সেখানে। সবার একটু আলাদা হওয়াও উচিত। আমার জন্য এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া কঠিন। সম্ভবত সেরা উত্তর এটিই যে, নিজের মতো থাক ও উপভোগ করার চেষ্টা কর।'

নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে বিশ্বকাপ ফাইনালে যা হয়েছে, তা এশিয়ার কোনো দেশ কিংবা ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে হলে তুলকালাম বাঁধিয়ে দিতেন তাদের সমর্থক এবং সাবেক-বর্তমান ক্রিকেটাররা। নিউজিল্যান্ড এক্ষেত্রে সবার থেকে ভিন্ন। তারা নিজেদের কাজটা করে গেছে এতেই সন্তুষ্ট। আইসিসি কিংবা আম্পায়ার কতরকম কারিকুরি করে তাদের হারিয়ে দিল, এসব নিয়ে কিউইবাসীর কোনো বক্তব্য নেই। দেশের নাগরিকদের পক্ষ থেকে বিশ্ববাসীর কাছে জ্বলন্ত উদাহরণের নাম কেন উইলিয়ামসন। শুধু ক্রিকেট নয়; দেশের মুখও উজ্জ্বল করেছেন তিনি। বিশ্ববাসী জেনে গেছে, এমন অভূতপূর্ব ব্যবহার কিউইদের দ্বারাই সম্ভব।

উল্লেখ্য, গত রবিবার লর্ডসে বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ইংল্যান্ড নিউজিল্যান্ড দুই দলই ২৪১ করে রান করে। ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে। কিন্তু সেখানেও দুই দলই ১৫ করে রান করে। কিন্তু আইসিসির নতুন নিয়ম মেনে বাউন্ডারির সংখ্যা বেশি থাকায় কাপ ওঠে ইংল্যান্ডের হাতে। এরপরই গোটা ক্রিকেটবিশ্বে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে, এই নিয়ম কতটা যুক্তিসঙ্গত। এভাবে একটা বিশ্বকাপের ফাইনাল জেতা হারা নির্ধারণ হওয়া উচিত কিনা। সারাবিশ্ব আইসিসিকে ধুয়ে দিলেও নিজেদের সংস্কৃতিটা ঠিকই ধরে রাখল কিউইরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা