kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৩ জুলাই ২০১৯। ৮ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৯ জিলকদ ১৪৪০

‘আমি নিজের পারফরম্যান্সের র‌্যাংকিং করি না’

সাউদাম্পটন থেকে প্রতিনিধি   

২৫ জুন, ২০১৯ ০৮:৪৭ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



‘আমি নিজের পারফরম্যান্সের র‌্যাংকিং করি না’

দলের তিন জয়েই ম্যাচসেরা তিনি। এবারের বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি রানের মালিক সাকিব আল হাসান। কাল আসরের সেরা বোলিং ফিগারের রেকর্ডটিও নিজের করে নিয়েছেন। তাই এটিই নিজের সেরা দিন কি না, প্রশ্নটা গেল। যথারীতি আশ্চর্য নির্লিপ্ততায় পুরনো কথাই বলেছেন, ‘আমি নিজের পারফরম্যান্সের র‌্যাংকিং করি না।’

র‌্যাংকিং করা অবশ্য মুশকিলই। প্রতিদিনই যিনি ঊর্ধ্বপানে ছোটেন, তাঁর জন্য সেরা বাছাই করা কঠিনই। তবে হ্যাঁ, বোলিংয়ের দৃষ্টিকোণ থেকে এ ম্যাচের কিছু বাড়তি গুরুত্ব আছে সাকিবের কাছে, ‘আমি কিংবা আমাদের দেশের স্পিনারদের জন্য উইকেটের সামান্য হলেও সাহায্য লাগে। এই উইকেটে সেটা ছিল।’

একটু আগে সংবাদ সম্মেলন কক্ষে চলে আসায় আফগান অধিনায়ক গুলবাদিন নাইবের প্রশংসাবাণী শুনে থাকবেন সাকিব, ‘এই উইকেটে ২৬২ বেশি রান না। কিন্তু সাকিব এত ভালো জায়গায় বল করে গেছে যে সেটা আর করা হয়নি। সে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। সবচেয়ে বেশি রান করেছে। ওর পিচ ম্যাপ দেখলে বুঝবেন কতটা নিশানা তাক করে বোলিং করেছে। আমরা সাকিবের কাছেই হেরে গেছি।’

সাকিব নিজে অবশ্য বাংলাদেশ দলটাকে ‘ওয়ান ম্যান আর্মি’ বলে মনে করেন না, ‘আমার সুসময় যাচ্ছে। তার মানে এই নয় যে আমি একাই সব করছি। আজকের ম্যাচেও ব্যাটিংয়ে কয়েকজন অবদান রেখেছে। বোলিংয়ে মুস্তাফিজ, সাইফউদ্দিন ভালো করছে। বিশ্বকাপে ওদের সম্ভবত ৮/৯টি করে উইকেট নেওয়া হয়ে গেছে। তাই আমি একাই দলকে জেতাচ্ছি বলা যাবে না।’

সাকিব নিজে মানছেন না, কিন্তু সংবাদমাধ্যম থেকে বৈশ্বিক ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা সমানতালে সাকিব-বন্দনায় ব্যস্ত। শুনে তাঁর খারাপ লাগার কথা নয়। তবে নিয়মমাফিক সেসব স্তুতির প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন সামান্য হাসিতে।

তবে বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে ওঠার সম্ভাবনার প্রসঙ্গ আসতেই উজ্জ্বল সাকিবের মুখ। এক ইংরেজ সাংবাদিকই প্রশ্নটা করলেন, ‘আপনারা তো এখন ইংল্যান্ডের চেয়ে মাত্র ১ পয়েন্ট পিছিয়ে। আপনার কি মনে হয় স্বাগতিকদের টপকে সেরা চারে ঢুকে যেতে পারবেন?’

হাসি ঝরিয়ে সাকিব বলেছেন, ‘ইংল্যান্ডের কিন্তু আরো তিনটি ম্যাচ আছে। আমাদের বাকি দুটি। দুটিই জিততে হবে। অন্য ম্যাচের দিকে খেয়াল অবশ্যই থাকবে। তবে আমাদের প্রধান কাজ হলো পরের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ দুটির ওপর ফোকাস রাখা। ভারত ও পাকিস্তান—দুটি ম্যাচই কঠিন হবে। তবু আমরা জয়ের আশা নিয়েই মাঠে নামব। পরের ম্যাচটা ভারতের বিপক্ষে, যারা বিশ্বকাপ জিততে এসেছে। আমরা বিশ্বাস করি, নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে আমরা যে কাউকে হারাতে পারি।’

ভারত প্রসঙ্গ তিনি তুলতেই কি না এক ভারতীয় সাংবাদিক প্রশ্ন করলেন, ‘আইপিএলে বেশি ম্যাচ খেলতে পারেননি বলেই কি এতটা চার্জড আপ?’ স্লগ সুইপে প্রশ্নটা উড়িয়ে দিয়েছেন, ‘আমার কাউকে প্রমাণ করার দায় নেই। আইপিএলের সময়টায় ফিটনেস নিয়ে কাজ করেছি। মনে হচ্ছে ওটাই আমাকে ধারাবাহিক পারফর্ম করায় সাহায্য করছে। এর বেশি কিছু না।’

তবে দলের বোলিং ইউনিটের কাছে কিছু চাওয়া আছে সাকিবের। শুরুর ১০ ওভার নিয়ে বিস্তর পরিকল্পনা করে বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ে সেটি সফল হলেও বোলিংয়ে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য মিলছে না। দুর্বল ব্যাটিংয়ের দল আফগানিস্তানও প্রথম ১০ ওভার খেলে দিচ্ছে অনায়াসে। সে ক্ষেত্রে ভারতের টপ অর্ডার সামাল দেওয়া আরো কঠিন হওয়ার কথা। সাকিবের মূল দুশ্চিন্তা প্রতিপক্ষ ইনিংসের ওই পর্বটা ঘিরেই, ‘শুরুর ১০ ওভারে উইকেট না পেলে মুশকিল। আমরা যদি ওই সময়টা দুই কিংবা তিনটি উইকেট নিতে পারি, তাহলে স্পিনারদের কাজটা সহজ হয়ে যায়। নইলে ইনিংসের মাঝপথে সেট ব্যাটসম্যানদের বিরুদ্ধে বোলিং করা যেকোনো বোলারের জন্যই কঠিন।’

নতুন বলে সাফল্যের ‘রেসিপি’ কি মিলবে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগে? ২ জুলাই বার্মিংহামে হবে ম্যাচটি। সেটির প্রস্তুতির জন্য আজই সে শহরে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তবে প্রস্তুতি শুরু হবে ক্রিকেটাররা চার দিনের ছুটি কাটিয়ে বার্মিংহামে আবার জড়ো হওয়ার পর। এই ফুরসতে আজ সপরিবারে প্যারিস যাচ্ছেন সাকিব। কেউ বা লন্ডন কিংবা অন্য কোনো শহরে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা