kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

কাঙ্খিত ব্রেক থ্রু দিলেন সাকিব

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৪ জুন, ২০১৯ ২০:৪২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কাঙ্খিত ব্রেক থ্রু দিলেন সাকিব

ছবি : এএফপি

ব্যাট হাতে হাফ সেঞ্চুরি করে আজ বিশ্বকাপে হাজার রান পূরণ করেছেন। চলতি বিশ্বকাপে রান সংগ্রহের শীর্ষেও উঠে গেছেন। বল হাতেও আজ শুরুতে জ্বলে উঠলেন বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার। বাংলাদেশের নির্বিষ পেস আক্রমণের সুযোগে জাঁকিয়ে বসেছিলেন আফগান দুই ওপেনার। শেষ পর্যন্ত সাকিবকে আনতে বাধ্য হন মাশরাফি। এসেই ৩৫ বলে ২৪ করা রহমত শাহকে তামিম ইকবালের তালুবন্দি করেন বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার। ভাঙে ৪৯ রানের উদ্বোধনী জুটি।

এর আগে সাউদাম্পটনের রোজ বোলে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে ২৬২ রান তোলে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো ওপেনিং করতে নামলেন লিটন দাস। এতদিন প্রথম বলটি সবসময় তামিম খেলতেন; আজ খেললেন লিটন। কিন্তু তাকে ঘিরেই শুরু হলো বিতর্ক। মুজিব-উর-রহমানের বলে শর্ট কাভার থেকে ক্যাচ নেন হাশমতউল্লাহ শহিদি। ফিল্ড আম্পায়ার নিশ্চিত ছিলেন না আউট নিয়ে। তাই ডাকা হয় তৃতীয় আম্পায়ার। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, বলটি শহিদির হাত ছুয়ে মাটি স্পর্শ করেছে। শেষ পর্যন্ত 'বেনিফিট অব ডাউট' আইন না মেনেই লিটনকে (১৬) আউট দেন টিভি আম্পায়ার আলিম দার।

লিটন দাসের বিতর্কিত আউটের পর জুটি বেঁধে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার মিশনে ছিলেন তামিম ইকবাল এবং বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দুইজনের জুটিতে এসে গিয়েছিল ৫৯ রান। তখনই ছন্দপতন। মোহাম্মদ নবির বলে বোল্ড হয়ে যান ৫৩ বলে ৩৬ রান করা তামিম ইকবাল। রশিদের বলে সাকিবের বিপক্ষেও এলবিডাব্লিউয়ের আবেদনে সাড়া দিয়েছিলেন আম্পায়ার। তবে রিভিউ নিয়ে সেই সিদ্ধান্ত বাতিল করতে বাধ্য করে বাংলাদেশ। মুশফিকের সঙ্গে দারুণ জুটি জমে গিয়েছিল সাকিবের। এরপর চলতি বিশ্বকাপে নিজের তৃতীয় হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন সাকিব।

৬৬ বলে হাফ সেঞ্চুরি করার পর ৪ বাউন্ডারিতে ৫১ রানেই মুজিব উর রহমানের দ্বিতীয় শিকার হন বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার। মুশফিকের সঙ্গী হন সৌম্য সরকার। ভাঙে ৬১ রানের তৃতীয় উইকেট জুটি। পাঁচে নামা সৌম্য সরকার ভুমিকা রাখতে পারেননি। মুজিবের বলে এলবিডাব্লিউ হয়েছেন ৩ রানে। রিভিউ নিয়েও সিদ্ধান্ত পাল্টানো যায়নি। ভায়রা ভাই মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে বাংলাদেশকে ম্যাচে ফেরান মুশফিক। ৫৬ বলে ক্যারিয়ারের ৩৫তম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি। জুটিতে ৫৬ রান আসার পর গুলবাদিন নাইবের বলে ২৭ রানে আউট হয়ে যান মাহমুদউল্লাহ।

উইকেটে এসে মুশফিককে দারুণ সঙ্গ দেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। তার ব্যাটে ছুটে স্ট্রোকের ফুলঝুরি। বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরির দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন মুশফিক। ওভারও কমে আসছিল। ৪৯তম ওভারে রান তোলার তাড়া থেকেই দৌলত জারদানকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মোহাম্মদ নবির তালুবন্দি হন ৮৭ বলে ৪ চার ১ ছক্কায় ৮৩ করা মুশফিক। গুলবাদিন নাইবের করা ইনিংসের শেষ বলে বোল্ড হওয়ার আগে মোসাদ্দেক খেলেন ২৪ বলে ৩৫ রানের ক্যামিও ইনিংস। নির্ধারিত ৫০ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ২৬২ রান। মুজিব উর রহমান নিয়েছেন ৩৯ রানে ৩ উইকেট।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা