kalerkantho

শনিবার । ২০ জুলাই ২০১৯। ৫ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৬ জিলকদ ১৪৪০

সব গোপন কথা ফাঁস করে দেব : আফগান কোচ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ জুন, ২০১৯ ২০:২৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সব গোপন কথা ফাঁস করে দেব : আফগান কোচ

ছবি : ক্রিকইনফো

গত বছরগুলোতে আফগানিস্তান দলের সামর্থের যে প্রমাণ দেখিয়েছে; অথবা আফগানিস্তানকে বিশ্বকাপে যেমনটা আশা করা হয়েছিল এখন পর্যন্ত তার সামান্যতম কিছুও করতে পারেনি দলটি। বরং বিশ্বকাপের মাঠের লড়াইয়ের চাইতে এখন মাঠের বাইরে তৈরী হচ্ছে একের পর এক বির্তক। দলটির এমন অবস্থার জন্য অভ্যান্তরীণ কোন্দলই যে প্রধান কারণ তা স্পষ্ট কোচ ফিল সিমন্সের এক টুইটে। বিশ্বকাপ শেষে দলের দুরবস্থার পেছনের সব কারণ ফাঁস করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন আফগানিস্তানের ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান এই কোচ।

বুধবার এক টুইটে আফগানিস্তানের সাবেক প্রধান নির্বাচক দৌলত আহমদজাইয়ের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে সিমন্স এমন মন্তব্য করলেন। ১১ জুন বুধবার গণমাধ্যমের সামনে আফগানিস্তানের দল নির্বাচনের প্রক্রিয়াকে 'প্রশ্নবিদ্ধ' বলে মন্তব্য করেছিলেন দৌলত আহমদজাই। দল নির্বাচনের নীতিমালা পাল্টানো না হলে আফগানিস্তান কোনো বৈশ্বিক শিরোপা জিতবে না বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি।

আহমদজাই বলেন, আমরা সব সময়ই এক পেসার নিয়ে খেলতাম, সব বোঝা কেবল রশিদ খানের কাঁধেই চাপিয়ে দেওয়া হতো। কিন্তু ইংল্যান্ডে রশিদের জন্য উপযোগী কন্ডিশন নেই। ভালো বল করলে হয়তো আমরা জিততে পারি। সময় এসেছে দলের ভালোর জন্য আসগর আফগান ও মোহাম্মদ নবির মতো সিনিয়র ক্রিকেটারদের সরে যাওয়ার। তাদের বয়স হয়েছে, আর ক্রিকেট এমন একটি খেলা, যেখানে ফিটনেস দরকার।'

এমন মন্তব্যের পর গতকাল বুধবার এক টুইটে দুরবস্থার পেছনের সব কারণ ফাঁস করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন সিমন্স। টুইটে তিনি বলেন, 'বিশ্বকাপ শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করব।এরপরই দলের এমন বেহাল অবস্থার পেছনের কারণ প্রকাশ্যে আনব।'

বিশ্বকাপের ঠিক আগে আগে আসগর আফগানকে সরিয়ে গুলবদিন নাইবকে অধিনায়ক বানানোয় অবাক হয়েছিলেন অনেকেই। সিমন্সের কথায় ইঙ্গিত, সাবেক প্রধান নির্বাচক আহমদজাই কলকাঠি নেড়েছিলেন বলেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিল আফগান বোর্ড। বিশ্বকাপের দল নির্বাচনের সময় আহমদজাই ছিলেন প্রধান নির্বাচক। পরে অবশ্য তাঁকে সেই পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

বিশ্বকাপ শুরুর আগেই সিমন্স জানিয়েছিলেন, আসগরকে সরিয়ে গুলবদিনকে অধিনায়কত্ব দেওয়ার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে তাঁকে আগে থেকে কিছুই জানানো হয়নি। টুইটে আফগানিস্তানের কোচ আরও বলেন, 'আমি এখন বিশ্বকাপের মাঝে আছি এবং দল যেন প্রত্যাশা অনুযায়ী পারফর্ম করে সেটি নিশ্চিত করার চেষ্টা করছি। কিন্তু বিশ্বকাপ শেষে আমি আফগানিস্তানের মানুষের কাছে বলে দেব, কীভাবে দৌলত আহমদজাই আমাদের বিশ্বকাপ প্রস্তুতিতে প্রভাব রেখেছিলেন।'

গত বছর আসগর আফগানের নেতৃত্বেই বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল আফগানিস্তান। কিন্তু বিশ্বকাপ শুরুর মাত্র মাস দু-এক আগে আচমকাই তাঁকে সরিয়ে গুলবদিন নাইবকে অধিনায়কত্ব দেয় আফগান বোর্ড। রশিদ খানকে বানানো হয় সহ-অধিনায়ক, আর টেস্ট অধিনায়ক বানানো হয় রহমত শাহকে। এমন অবস্থায় বিশ্বকাপে পাঁচ ম্যাচ খেলে এখনো জয়হীন দলটি পয়েন্ট তালিকায় আছে সবার নিচে। এরই মধ্যে বোর্ডের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে দল থেকে বাদ দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শেহজাদ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা