kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

আমরাই ফেভারিট, বললেন তামিম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ জুন, ২০১৯ ০৯:২৯ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আমরাই ফেভারিট, বললেন তামিম

ভাবনা আর বাস্তবতার সঙ্গে শুধু ব্যাটে-বলে হচ্ছে না তামিম ইকবালের। হন্যে হয়ে বিশ্বকাপ সাফল্যের পেছনে ছুটছেন কিন্তু নিজের কাছে নিজের প্রত্যাশার ধারেকাছেও এখনো যাওয়া হয়নি তাঁর। তবে বিশ্বকাপের দেশে গতকাল মেঘ সরিয়ে সূর্য উঁকি দেওয়ার মতো করে হঠাৎই সংবাদ সম্মেলনে উদ্ভাসিত বাঁহাতি ওপেনার। রানের ঝাঁপি খোলার পূর্বপ্রস্তুতি যেন! সেখানে উপস্থিত ছিলেন কালের কণ্ঠের প্রতিনিধিও
 

প্রস্তুতি প্রসঙ্গে...

তামিম ইকবাল : প্রতিপক্ষের তরফ থেকে কী ধরনের আক্রমণ আসতে পারে, সেগুলো রপ্ত করার চেষ্টা করি নেটে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সাধারণত শর্ট বোলিং দিয়ে আমাদের আক্রমণ করবে। বিশ্বকাপের প্রথম ১০-১৫ ওভারে এটাই ওরা করছে। তবে ওরাও রান করার সুযোগ দেয়। আমাদের দুটোর জন্যই তৈরি থাকতে হবে। ওটার জন্যই আমরা প্র্যাকটিসে অনেক পরিশ্রম করছি। চেষ্টা করছি যেন ম্যাচে কোনো পরিস্থিতিই আমাদের চমকে না দেয়।

এই ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল সম্পর্কে...

তামিম : ওদের দলের ব্যাটসম্যান-বোলারদের সম্পর্কে আমাদের ধারণা আছে। তবে এবারের বিশ্বকাপে ওদের খেলায় কিছুটা পরিবর্তন দেখছি। আয়ারল্যান্ড কিংবা ওয়েস্ট ইন্ডিজে ওরা এই প্ল্যানে খেলেনি। এখানে অনেক বেশি শর্ট বোলিং করছে। তবে আমরা যদি এটা সামলাতে পারি তাহলে রান করার সুযোগ আসবে।

টন্টনের মাঠ প্রসঙ্গে...

তামিম : আমি এ মাঠে কখনো খেলিনি। তবে শুনেছি এটা নাকি ব্যাটিং স্বর্গ। তবে এবারের উইকেট একটু অন্য রকম মনে হচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান ম্যাচে বোলাররা ভালো করেছে। তা ছাড়া আবহাওয়াও ব্যাটিং উপযোগী নয়। তবে কন্ডিশন যা-ই হোক না কেন, আমাদের ভালো খেলতে হবে। এই মাঠে অস্ট্রেলিয়াও কিন্তু খুব বেশি রান করতে পারেনি, তিন শর মতো করেছিল। এ মাঠে যা খুব বেশি রান নয়। আবার কার্ডিফ তো অনেক বড় মাঠ। তবু সেখানে ইংল্যান্ড আমাদের বিপক্ষে ৩৮৬ রান করেছিল। আসলে সবটা নির্ভর করে আপনি পরিকল্পনা অনুযায়ী বোলিং করতে পারলেন কি না, তার ওপর।

মাঠের আকৃতি ছোট...

মনের অবস্থা ভালো হলে বড় মাঠও ছোট মনে হয়। ওদের পাওয়ার হিটার আছে। এ বিবেচনায় ওরা হয়তো একটু বেশি সুবিধাই পাবে। তবে এমন তো না যে উইকেট নিতে হবে শুধু ব্যাটসম্যানকে ক্যাচ তুলে দিতে বাধ্য করে! আউট করার অনেক উপায় আছে। তাই আমি মনে করি না মাঠের আকৃতি খুব বেশি প্রভাব ফেলবে। আমাদের পরিকল্পনাগুলো মাঠে প্রয়োগ করতে হবে। ম্যাচের দিনও বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে বলে শুনেছি। এখন ওটা তো আর আমাদের নিয়ন্ত্রণে নেই। আমি মনে করি বৃষ্টি কিংবা মাঠের আকৃতি বড় ফ্যাক্টর না। আমরা কিভাবে মাঠে প্রয়োগ করছি, সেটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

ব্যাটিংয়ে নিজের ভুল প্রসঙ্গে...

তামিম : আমি হয় দ্রুত আউট হয়ে যাই নয়তো ১০ ওভার ব্যাটিং করে ফেললে বড় ইনিংস খেলি। এটাই আমাকে বেশি হতাশ করেছে। প্রতিটি ম্যাচেই সেট হয়েও আউট হয়েছি। শুরুর ৫-৬ ওভারের চ্যালেঞ্জ জিতে আউট হয়ে যাওয়াটা হতাশার। তিনবারের মধ্যে দুইবার নিজে উইকেট ছুড়ে দিয়ে এসেছি। আশা করি, পরশু শুরুর ভালো বিফলে যেতে দেব না।

ফেভারিট বাংলাদেশ...

তামিম : অবশ্যই, কেন নয়? সাম্প্রতিক সময়ে ওদের বিপক্ষে আমরাই বেশি ম্যাচ জিতেছি। সে কারণে অবশ্যই আমরা ফেভারিট। তবে আমার কাছে এসবের কোনো মূল্য নেই। ক্রিকেট এমন একটা খেলা যেখানে নির্দিষ্ট দিনে হিসাব উল্টে যেতে পারে। বিশ্বকাপে যেকোনো দলের ক্ষেত্রেই এটা প্রযোজ্য। তাই কোন দল ফেভারিট, সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। ওই দিনটায় আপনি কতটা ভালো খেললেন, তার ওপর ম্যাচের ভাগ্য নির্ভর করবে। বিশ্বকাপের প্রথম দুই ম্যাচের ওয়েস্ট ইন্ডিজকে গত ছয় মাসের তুলনায় অন্য রকম দল বলেই মনে হয়েছে। এই কন্ডিশনে আমরাও প্রথম দুই ম্যাচে ভালো খেলেছি। একটার ফল আমাদের পক্ষে গেছে, আরেকটার যায়নি। আমার মনে হয় ম্যাচটা ভালো হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা