kalerkantho

শনিবার  । ১৯ অক্টোবর ২০১৯। ৩ কাতির্ক ১৪২৬। ১৯ সফর ১৪৪১         

বিয়ে হয়ে গেল কাটার মাস্টারের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ মার্চ, ২০১৯ ২০:৩৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিয়ে হয়ে গেল কাটার মাস্টারের

বাবা-মাকে নিয়ে কনের বাড়ি বিয়ে করতে গিয়েছেন মুস্তাফিজ। ছবি : সংগৃহীত

অবশেষে বরের বেশে সাজলেন 'কাটার মাস্টার' মুস্তাফিজুর রহমান। মায়ের পছন্দের পাত্রীকেই আজ শুক্রবার জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিয়েছেন তিনি। আজ শুক্রবার বেলা তিনটায় সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামে এই বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। কনে সামিয়া ইয়াসমিন শিমু মুস্তাফিজের আপন মেজ মামা রওনাকুল ইসলাম বাবুর মেয়ে।

বেলা পৌনে তিনটার দিকে একাধিক প্রাইভেট কার এবং মাইক্রোবাসের বহর নিয়ে বাবা-মা-ভাই ও বন্ধু-বান্ধবসহ ৩০/৩২ জন বরযাত্রীসহ কনের বাড়িতে আসেন মুস্তাফিজ। শেরওয়ানী পরা থাকলেও তখনও তিনি পাগড়ি পরেননি। তাকে কোলে করে বিয়ের আসরে নিয়ে যেতে চাইলে তিনি কোলে উঠতে অস্বীকৃতি জানান। এক পর্যায়ে পায়ে হেটেই বিয়ের মঞ্চে বসেন তিনি। এ সময় নওয়াপাড়া ইউনিয়নের নিকাহ্ রেজিস্টার আবুল বাশার ৫ লাখ এক টাকা দেনমোহরে মুস্তাফিজ ও সাদিয়া পরভীন শিমুর বিয়ে পড়ান।

শিমু ২০১৮ সালে দেবহাটার সখিপুর খান বাহাদুর আহসানউল্লাহ কলেজ থেকে এ প্লাস পেয়ে এইচএসসি পাস করেন। এর আগে ২০১৬ সালে নলতা হাইস্কুল থেকে তিনি গোল্ডেন এ প্লাস পেয়ে পাস করেন এসএসসি। পারিবারিক সিদ্ধান্তের কারণে কনের ছবি আপাতত প্রকাশ করা হয়নি। বর ও কনের স্বজনরা জানিয়েছেন, একেবারে ঘরোয়া পরিবেশে স্বজনদের সঙ্গে নিয়ে প্রাথমিকভাবে শেষ করা হয়েছে এই বিয়ে। এরপর ধুমধাম করে অনুষ্ঠান হবে বিশ্বকাপের পর। তখন জানানো হবে সবাইকে।

বিয়ের সাক্ষী হলেন কাটার-মাস্টারের বড় ভাই মাহফুজুর রহমান মিঠু। নিজের দ্বিতীয় ইনিংস নিয়ে মুস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা না বললেও তার বড় ভাই মাহফুজুর রহমান মিঠু মুস্তাফিজ-শিমু দম্পতির জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা