kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১            

শ্রীলঙ্কার স্মরণীয় টেস্ট জয়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৫:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শ্রীলঙ্কার স্মরণীয় টেস্ট জয়

জিতে গেছি! বিশ্ব ফার্নান্দোর সঙ্গে আলিঙ্গনবদ্ধ হতে ছুট ছেন কুশল পেরেরা। ছবি : এএফপি

৩০৪ রানের জয়ের লক্ষ্যে ২২৬ রানেই নবম উইকেট হারিয়ে ডারবান টেস্টে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে হারের দ্বারপ্রান্তে সফরকারী শ্রীলঙ্কা। তবে শেষ ব্যাটসম্যান বিশ্ব ফার্নান্দোকে নিয়ে দশম উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৭৮ রানের জুটি গড়ে ১ উইকেটের ব্যবধানে লঙ্কানদের ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ের স্বাদ দেন বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান কুশল পেরেরা। এক প্রান্ত আগলে ১৫৩ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন তিনি। এই জয়ে দুই ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল শ্রীলঙ্কা।

ডারবানে ৩০৪ রানের জয়ের লক্ষ্যে তৃতীয় দিন শেষে ৩ উইকেটে ৮৩ রান করেছিল শ্রীলঙ্কা। তাই ম্যাচ জয়ের জন্য বাকী ৭ উইকেটে ২২১ রান প্রয়োজন ছিল লঙ্কানদের। ওশাদা ফার্নান্দো ২৮ ও পেরেরা ১২ রানে অপরাজিত ছিলেন।

৩৭ রান করা ওশাদাকে ফিরে দিয়ে চতুর্থ দিন সকালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে প্রথম সাফল্য এনে দেন দক্ষিণ আফ্রিকার পেসার ডেল স্টেইন। ৩৮তম ওভারের দ্বিতীয় বলে ওশাদাকে শিকারের পর ওই ওভারেই উইকেটকিপার নিরোশান ডিকাভিলাকে ফেরত পাঠান স্টেইন। তাই ১১০ রানে পঞ্চম উইকেট হারিয়ে খাদের কিনারায় পড়ে যায় শ্রীলঙ্কা। এখান থেকে দলকে টেনে তুলেন পেরেরা ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। ষষ্ঠ উইকেটে ৯৬ রান যোগ করেন তারা।

পেরেরা-ডি সিলভার জমে যাওয়া জুটিতে ভাঙ্গন ধরিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ম্যাচে ফেরার পথ দেখান বাঁ-হাতি স্পিনার কেশব মহারাজ। ৪৮ রান করেন ডি সিলভা। দলীয় ২০৬ রানে ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন ডি সিলভা। আর ২২৬ রানে নবম উইকেট হারিয়ে আবারও পরাজয়ের শংকায় পড়ে শ্রীলঙ্কা। কিন্তু শেষ ব্যাটসম্যান ফার্নান্দোকে নিয়ে প্রতিপক্ষের বোলারদের সামনে প্রতিরোধের দেয়াল গড়ে তুলেন পেরেরা। রান তোলার কাজটা নিজেই করছিলেন তিনি। তাকে শুধুমাত্র সঙ্গ দিচ্ছিলেন ফার্নান্দো।

ফার্নান্দো রান তোলার চাইকে রানিং বিটুইন দ্য উইকেটে বেশ পারদর্শী ছিলেন। এক পর্যায়ে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন পেরেরা। তিন অংকে পা দিয়েই চড়া মেজাজে ব্যাট করেন তিনি। শেষ পর্যন্ত পেরেরার ব্যাটেই জয় নিশ্চিত হয় শ্রীলঙ্কা। শেষ উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৭৮ রান বিজয় নিশ্চিত করে। এর মধ্যে ৬৮ বলে ৬৭ রান ছিল পেরেরার। ফার্নান্দোর করেন ২৭ বলে ৬। ২০০ বলে ১২ চার ও ৫ ছক্কায় অপরাজিত ১৫৩* রান করেন ম্যাচসেরা পেরেরা। ডারবানের ভেন্যুতে ৩০৪ রান তাড়া করে ম্যাচ জয়ে এটি তৃতীয়স্থানে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা