kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৪ অক্টোবর ২০১৯। ৮ কাতির্ক ১৪২৬। ২৪ সফর ১৪৪১       

জিতেই চলেছে চিটাগং ভাইকিংস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ জানুয়ারি, ২০১৯ ২২:১৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জিতেই চলেছে চিটাগং ভাইকিংস

তারকাবহুল দলগুলোর বিপরীতে দাঁড়িয়ে নিজেদের কাজটা ঠিকই করে যাচ্ছে চিটাং ভাইকিংস। ৫ ম্যাচের মধ্যে তাদের হার মাত্র ১টি। আজ খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে দুইশ পেরোনো স্কোর গড়েছিল মুশফিকুর রহিমের দল। প্রত্যাশিতভাবেই জিতেছে চিটাগং। তবে ২১৪ রান তাড়া করে ১৮৮ রান পর্যন্ত তুলে ফেলেছিল টুর্নামেন্টের সবচেয়ে তলানির দল খুলনা। হেরেছে ২৬ রানে।

বিশাল টার্গেটের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে পুরোপুরি ব্যর্থ হয় খুলনার টপ অর্ডার। দলীয় ১৮ রানের মাঝেই ফিরে যান পল স্টারলিং (০), জুনায়েদ সিদ্দিকী (১২) এবং আল-আমিন (৫)। এমন বিপদের মাঝে হাল ধরার চেষ্টা করেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং ব্রেন্ডন টেইলর। ১৬ বলে ২৮ করা জিম্বাবুয়ের তারকা টেইলরকে বোল্ড করে দেন নাঈম হাসান। প্রচণ্ড চাপের মাঝে ২৫ বলে ৩ চার এবং ৪ ছক্কায় হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ম্যাজিক ফিগার স্পর্শ করেই ডেলপোর্টের বলে বোল্ড হয়ে যান তিনি।

১০২ রানে ৫ উইকেট হারানো খুলনা টাইটান্সের বিপদ আর খুব বেশি কিছু করার ছিল না। ডেলপোর্টের দ্বিতীয় শিকার আরিফুল হক করেন ১৩ বলে ১১ রান। খুলনার ৭ম উইকেটের পতন ঘটে ২৩ বলে ৪০ করা ডেভিড ওয়াইজের বিদায়ে। শেষ ওভারে দরকার ছিল ৪০ রানের। খুলনার লোয়ার অর্ডারের জন্য সেই হিসাব মেলানো অসম্ভব ছিল। নির্ধারিত ২০ ওভারে তারা তুলতে পেরেছে ৮ উইকেটে ১৮৮ রান।

এর আগে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দিনের দ্বিতীয় খেলায় টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ২১৪ রানের পাহাড় গড়ে চিটাগং ভাইকিংস। দলীয় ১৭ রানে ডেলপোর্টকে (১৩) ওয়াইজের তালুবন্দি করেন শরিফুল।  ১৭ বলে ৩ চার ৩ ছক্কায় ৩৩ করা অপর ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদকে প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠান তাইজুল। এরপর ইয়াসির আলীকে নিয়ে দারুণ জুটি গড়ে তোলেন অধিনায়ক মুশফিক। ওয়াইজের বলে ৩৬ বলে ৫৪ করা ইয়াসির আলী উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিলে ভাঙে ৮২ রানের জুটি।

১৭তম ওভারে লঙ্কান গতিদানব মালিঙ্গাকে পরপর তিন বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ২৯ বলে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন মুশফিক। মি. ডিপেন্ডেবলের ৩৩ বলে ৮ চার ১ ছক্কায় গড়া ৫২ রানের ইনিংসটি থামে ওয়াইজের বলে শরিফুলের তালুবন্দি হয়ে। শেষদিকে ধামাকা দেখান লঙ্কান ব্যাটসম্যান দাসুন শানাকা। তাকে দারুণ সঙ্গ দেন নজিবুল্লাহ জারদান। শুভাশীষের শেষ ওভারে দুজন তুলে নেন ২৩ রান। ১৭ বলে ৩ চার ৪ ছক্কায় ৪২* রানে অপরাজিত থাকেন শানাকা। আর জারদান অপরাজিত রইলেন ৫ বলে ২ চার ১ ছক্কায় ১৬* রানে। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ২১৪ রানের পাহাড় গড়ে চিটাগং ভাইকিংস। যা চলতি বিপিএলে সর্বোচ্চ স্কোর।

উল্লেখ্য, আজ দিনের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক সিলেট সিক্সার্সকে ৪ উইকেটে হারিয়ে আবারও জয়ের ধারায় ফিরেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। এই ম্যাচেই বিপিএল অভিষেক হয়ে গেল প্রোটিয়া হার্ডহিটার এবিডি ভিলিয়ার্সের।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা