kalerkantho

শুক্রবার । ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৫ জুন ২০২০। ১২ শাওয়াল ১৪৪১

নারী বিদ্বেষী মন্তব্য করায় বিপাকে লোকেশ-হার্দিক!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৯:৫৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নারী বিদ্বেষী মন্তব্য করায় বিপাকে লোকেশ-হার্দিক!

মিডিয়ায় নারী বিদ্বেষী মন্তব্য করে বিপাকে পড়েছেন ভারতের দুই তারকা ক্রিকেটার লোকেশ রাহুল এবং হার্দিক পাণ্ডিয়া। সম্প্রতি 'কফি উইথ করণ'-এর সাম্প্রতিক পর্বে অতিথি হিসেবে এসেছিলেন এই দুজন। অনুষ্ঠানের সঞ্চালক করণ জোহরের সঙ্গে আড্ডায় তাদের বক্তব্য জন্ম দিয়েই চলেছে একের পর এক বিতর্কের। নেট দুনিয়ায় ক্ষোভ দেখানো বেড়েই চলেছে লোকেশ ও হার্দিকের বিরুদ্ধে। কিন্তু কী এমন বলেছিলেন তারা?

এই অনুষ্ঠানে এসে করণের একটি প্রশ্নের উত্তরে রাহুল ও হার্দিক দুজনেই জানান, বিরাট কোহালিকে তারা শচীন টেন্ডুলকারের থেকে ভালো ব্যাটসম্যান বলে মনে করেন। ভারতীয় দলের তারকাদের এই বক্তব্য মোটেই ভালোভাবে নেননি লক্ষ লক্ষ শচীন ভক্ত। সোশ্যাল মিডিয়ায়  রাহুল ও হার্দিকের বিরুদ্ধে রীতিমতো ক্ষোভ উগরে দেন তারা।

এক জন লিখেন যে, স্বয়ং স্যার ডন ব্র্যাডম্যান থেকে শুরু করে ভিভ রিচার্ডস, সুনীল গাওস্করের মতো কিংবদন্তিরা শচীনকে সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্যানের বলেছেন। কিন্তু রাহুল আর হার্দিক পাণ্ডিয়ার মতে কোহলি কিনা শচীনের থেকে ভালো! অনেকেই লেখেন যে, কোহালি নিঃসন্দেহে শচীন পরবর্তী যুগের সব থেকে বড় তারকা; কিন্তু 'শচীন' হয়ে ওঠা অতটাও সহজ নয়।

এছাড়াও এই অনুষ্ঠানে নারীদের প্রতি হার্দিক ও রাহুলের বক্তব্যও ভালোভাবে মেনে নেননি দর্শকেরা। তাদের মতে, নিজেদের অত্যধিক 'কুল' দেখাতে গিয়েই একের পর এক বিতর্কিত মন্তব্য করে ফেলেন ক্রিকেটারদ্বয়। করণের প্রশ্নের উত্তরে রাহুল বলেন, ১৮ বছর বয়সে তার ঘরে কনডম পেয়ে তার মা ভয়ানক রেগে গিয়েছিলেন। তবে তার বাবা এটা ব্যবহার করতে দেখে তার পিঠ চাপড়ে দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

তবে সব মাত্রা অতিক্রম করে গিয়েছেন হার্দিক। কোনো পার্টিতে গিয়ে তিনি মেয়েদের 'নড়াচড়া' লক্ষ করেন, হার্দিকের এই ধরনের মন্তব্য 'অশালীন' লেগেছে অনেকেরই। এ ছাড়াও বাবা-মায়ের সঙ্গে তার খোলাখুলি সম্পর্ক বোঝাতে হার্দিক জানান যে, প্রথম 'ভার্জিনিটি' হারানোর দিনে তিনি বাড়িতে এসে বাবা-মাকে জানান যে, 'আজ করকে আয়া'! আরও একটি পার্টিতে হার্দিককে তার বাবা-মা জিজ্ঞেস করেন যে কে তার বিশেষ বান্ধবী? হার্দিক নাকি তখন সেই পার্টিতে উপস্থিত নারীদের মধ্যে থেকে গুনে শেষ করতে পারছিলেন না যে কে কার সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিলনা!

রাহুলের এই জাতীয় মন্তব্যকে 'সি' গ্রেড বলতেও দ্বিধা করেনি অনেকে। হার্দিককে 'নারীবিদ্বেষী' বলেও অভিহিত করা হচ্ছে। বেচারা বড় বিপদেই পড়ে গেছেন!

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা