kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

মেলার প্রথম সপ্তাহের নির্বাচিত ৫ বই
নাইলন গোলাপ টেবিলে

পূর্ণিমার অক্ষরে লেখা কবিতা

এমরান কবির

৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পূর্ণিমার অক্ষরে লেখা কবিতা

নাইলন গোলাপ টেবিলে : সৈয়দ শামসুল হক। প্রকাশক : অনন্যা। প্রচ্ছদ : ধ্রুব এষ। মূল্য : ১৩০ টাকা।

বলা হয়ে থাকে, কবিরা এক জীবনে বহু জীবনযাপন করে যান। কথাটি একেবারে মিথ্যা নয়। মৃত্যুর পর যখন তাঁদের অপ্রকাশিত রচনারাশি বের হতে থাকে, তখন উপর্যুক্ত কথার সঙ্গে আরো অনেক কথা যোগ করা যায়। যা হোক, সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক গত হয়েছেন পার্থিব উপস্থিতি থেকে। এরই মধ্যে বের হয়ে গেছে তাঁর পাঁচ খণ্ডের কবিতাসমগ্র। তার পরও তাঁর ব্যবহূত কম্পিউটার থেকে পাওয়া গেল একগুচ্ছ কবিতা। পাওয়া গেল ১৯৫৪ সালে কৃত্তিবাসে প্রকাশিত কবিতা, যা অগ্রন্থিত। পাওয়া গেল গীতিধর্মী রচনা, কৈশোরক সাধের পদাবলি। এগুলো একত্র করে সূচিবদ্ধ হলো তাঁর মরণোত্তর কবিতার বই ‘নাইলন গোলাপ টেবিলে’। বের হলো চলতি বইমেলায়।

কবি সৈয়দ শামসুল হক যে শিল্প-পাখির আরাধনা করে গেছেন সারা জীবন, তাঁর স্বাক্ষর রয়ে গেছে এই গ্রন্থেও। নানাবিধ শাখায় বিচরণ করলেও কবিতাই যে তাঁর আরাধ্য পাখির আবাস, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এই গ্রন্থের সূচিবদ্ধ লেখা সেই সিদ্ধি আর শুদ্ধতারই প্রতিনিধিত্ব করে। ১৯৫৪ সালে। কবির পরিণত হওয়ার মোক্ষম সময়ে রচিত এই কবিতায় রয়েছে তার উজ্জ্বল স্বাক্ষর। নাম কবিতা ‘নাইলন গোলাপ টেবিলে’ দেখা যায় স্বগতোক্তিমুখর এক কবিকে। যিনি দেখছেন বসন্ত এসে গেছে। কিন্তু ফুল ফুটছে না। কিন্তু কেন? কবি দেখছেন মালিরা নিত্য এসে সার-পানি দিচ্ছে, কিন্তু ফুল ফুটছে না। এ কেমন ধারা আজ আমাদের মাটির। কবি বিচলিত হচ্ছেন। বসন্তের না-ফোটা ফুল তাঁকে আরো নানা বিষয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। কবি সেগুলো ভেবেও বিচলিত হচ্ছেন। শেষ লাইনে এক অসমাপ্ত লাইনে বলছেন, ‘একজন কবি...।’ আমরা কবিতায় যে অপেন এন্ডিং আর ক্লোজ এন্ডিংয়ের কথা বলি, কবিতার শেষ লাইন সে কথাই মনে করিয়ে দেয়। অসমাপ্ত বাক্যের মাধ্যমে অপেন এন্ডিংয়ের সুযোগ করে দিন, যেন পাঠক এর বহুকৌণিক ব্যাখ্যা করতে পারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা