kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

৩০০ অসহায় পরিবারে খুশি এনে দিল কালের কণ্ঠ শুভসংঘ

আহমেদ উল হক রানা ও নাজমুল হুদা, পাবনা থেকে   

১৩ আগস্ট, ২০২১ ১৭:৩২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৩০০ অসহায় পরিবারে খুশি এনে দিল কালের কণ্ঠ শুভসংঘ

পাবনা জেলার বেড়া উপজেলায় ৩০০ ভূমিহীন, প্রতিবন্ধী ও অসহায় পরিবারের মুখে হাসি ফুটিয়েছে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ। বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় তাদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে শুভসংঘের সদস্যরা।

আজ শুক্রবার উপজেলার বেড়া ফাযিল (ডিগ্রি) মাদরাসা মাঠে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এই খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়।

ভিটে বাড়ি নেই শান্তা খাতুনের। অন্যের আশ্রয়ে থাকেন। স্বামী রাজমিস্ত্রীর কাজ করেন। কিন্তু করোনায় কোন কাজ পাচ্ছেন না তিনি। তাই ছেলেমেয়ে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্যসামগ্রী তুলে দেওয়া হয় তার হাতে। 

সহায়তা পেয়ে শান্তা বলেন, ''আল্লা জানি বসুন্ধরাক মালিকের হায়াত দান কর। তাক অনেক ভালোবাসে। তাক বিপদতিন দূরে রাহে। আমাক আরো দিবার তৌফিক দেয়।'

আব্দুল কাদির নামের এক উপকারভোগী বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপ অভাবের দিনে আমাকেরে খাবার দিল। তাকেরে জন্যে দোয়া করিছি। তারা যেন আমাকের আরো সাহায্য করবার পারে। তাকের সাহায্য দিয়াই কয়ডা খাই বাঁচি আছি। তোমরা সুখে থাকো বাবা।

খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রমে উপস্থিত হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সবুর আলী বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপ এই মহামারিতে দেশের মানুষের জন্য খাদ্য সহায়তা দিচ্ছে। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ অক্লান্ত পরিশ্রম করে আজ আমার উপজেলার ৩০০ অসহায় পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে। এজন্য আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। আপনাদের জীবনের কথা চিন্তা করে সরকার লকডাউন তুলে দিয়েছে। কিন্তু দেশ থেকে করোনা যায়নি। তাই আপনার সবাই সব সময় মাস্ক পরে থাকবেন। কেউ অযথা বাইরে বের হবেন না।

খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রমে আরো উপস্থিত ছিলেন প্যানেল মেয়র শামসুল হক, কালের কণ্ঠ শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, বেড়া থানার সাব-ইন্সপেক্টর আব্দুর রহিম, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার ডা. মো. আব্দুল হালিম, শুভসংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শরীফ মাহ্দী আশরাফ জীবন, পাবনা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শেখ রাফসান যানী সজিবসহ নাইম খান, সুচিত্রা পূজা, স্বর্ণা, শাহেরা আক্তার উর্মি, রাশেদ ও বেড়া উপজেলা শাখার অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র বাহিনী কল্যাণ সংস্থার সদস্যরা।



সাতদিনের সেরা