kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ আশ্বিন ১৪২৮। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৫ সফর ১৪৪৩

বগুড়ার গাবতলীতে খাদ্যসামগ্রী নিয়ে ৩০০ পরিবারের পাশে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ

লিমন বাসার ও নাজমুল হুদা, বগুড়া থেকে   

৩০ জুলাই, ২০২১ ১২:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বগুড়ার গাবতলীতে খাদ্যসামগ্রী নিয়ে ৩০০ পরিবারের পাশে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ

কোলে ছয় মাসের ছোট্ট শিশু সাদিয়া। মা পারভীন আক্তারের আঁচল ধরে খেলা করছেন। হাসছেন নিজে নিজেই। সে জানে না কত কঠিন হতে পারে তার ভবিষ্যৎ। জন্মের পর বাবার আদর পায়নি। বিদ্যুৎস্পর্শে মারা গেছেন বাবা টুলু হোসেন। এখন পর্যন্ত মায়ের বুকের দুগ্ধ পান করে বেঁচে আছে সে। মানুষের দেওয়া সাহায্যের ওপর দুই বেলা খাবার জোটে পারভীনের। ঘরে দশ বছরের এক ছেলেকে রেখে এসেছেন। পৃথিবীতে তার এই দুজন ছাড়া আর কেউ নেই। সন্তানের অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ নিয়ে উদ্বিগ্ন তিনি। অশ্রুসিক্ত হয়ে বলছেন আর্তনাদের কথা। কালের কণ্ঠ শুভসংঘের সদস্যরা তার হাতে তুলে দেন ১০ কেজি চাল, তিন কেজি ডাল আর তিন কেজি আটা। 

খাদ্যসামগ্রী পেয়ে পারভীন বলেন, হামরা আসহায়। বসুন্ধরা মালিক হামাকেরে খাবার দিচ্চে। তোমাকের জন্যে দোয়া করিচ্চি। আল্লায় তোমকেরে বাঁচি রাকুক। অসহায় জহুরা খাতুনও পেয়েছেন শুভসংঘের খাদ্যসামগ্রী। তিনি বলেন, হামার স্বামী-ছোল নাই। মানুষেরতে চাইয়্যে-চিন্তে (ভিক্ষা করে) খাই। যার দয়া হয় তারা দিয়্যা যায়, যার না হয় সে দেয় না। আজকে তোমকের অনেক খাবার পাচ্চি। আখেরি মোনাজাত করমু। দোয়া করমু। আল্লায় তাকে কামাইতে বরকত দিক। আখেরাতে ভালো করুক।

আজ শুক্রবার বগুড়া জেলার গাবতলী উপজেলায় তাদের মতো ৩০০ অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ। গাবতলী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় এই ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এ সময় উপস্থিত হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোছা. রওনক জাহান বলেন, আমি কালের কণ্ঠ শুভসংঘ ও বসুন্ধরা গ্রুপকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। তারা করোনায় এই মহামারির সময়ে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। শুধু যারাই ত্রাণ পাওয়ার যোগ্য তাদের তালিকা করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে হাতে হাতে খাদ্যসামগ্রী দিয়েছে। আমাদের উপজেলায় তাদের এই মহৎ কাজের অংশ হতে পারায় আমি তাদেরকে আবারও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আপনারা সবাই দোয়া করবেন ভবিষ্যতেও বসুন্ধরা গ্রুপ যেন এমন কার্যক্রম চলমান রাখতে পারে। আপনাদের পাশে দাঁড়াতে পারে। বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনায় আমাদের আশপাশের অনেক মানুষ মারা যাচ্ছে। আমাদের আত্মীয়-স্বজনরা মারা যাচ্ছে। আমাদের নিজেদের জীবন বাঁচাতে সবাইকে সতর্ক হতে হবে। কেউ অযথা চা খাওয়া কিংবা আড্ডা দেওয়ার জন্য বাইরে যাবেন না। সবাই বাসায় থাকবেন। মাস্ক পরে থাকবেন।  স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন। সরকারের দেওয়া বিধি-নিষেধ মেনে চলবেন। আপনাদের কোনো কিছু প্রয়োজন হলে আমাদেরকে জানাবেন। আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করব।

ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে আরো উপস্থিত ছিলেন গাবতলী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম মুক্তা, কালের কণ্ঠ শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, বগুড়া জেলার উপদেষ্টা মোস্তফা মাহমুদ শাওন, শুভসংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শরীফ মাহ্দী আশরাফ জীবন, বগুড়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শিশির মোস্তাফিজ, সদস্য মশিউর রহমান জুয়েল, উত্তরা ইউনিভার্সিটির সাবেক সভাপতি আলমগীর হোসেন রনিসহ শাহজাহান আলী, ইসলাম রফিক, হযরত আলী হিরণ, মনির ইসলাম পিপুল, কৌশিক আহমেদ, রতন পাইকার, সাগর মিয়া।



সাতদিনের সেরা