kalerkantho

সোমবার । ১১ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৬ জুলাই ২০২১। ১৫ জিলহজ ১৪৪২

পঞ্চগড়ে কালের কণ্ঠ শুভসংঘের ত্রাণ : 'দুই বেলা খাবা পারিম'

লুৎফর রহমান ও নাজমুল হুদা, পঞ্চগড় থেকে   

৬ জুলাই, ২০২১ ১৮:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পঞ্চগড়ে কালের কণ্ঠ শুভসংঘের ত্রাণ : 'দুই বেলা খাবা পারিম'

বাল্যকালেই বিয়ে হয়েছে রোকেয়া আক্তারের। রয়েছে দুই মেয়ে। স্বামী থাকলেও ধরেননি সংসারের হাল। তাই বাধ্য হয়ে হাল ধরেছেন ২০ বছর বয়সী রোকেয়া। মানুষের বাসায় বাসায় কাজ করে প্রতিদিন যে টাকা পান তা দিয়েই চলে মানবেতর জীবন। 

কালের কণ্ঠ শুভসংঘের ত্রাণ পেয়ে অশ্রুঝরা কণ্ঠে রোকেয়া বলেন, 'লোকের বাড়িত কামলা খাটি। সারাদিন বাড়ির কাজ করে ৫০ টাকা করে পাই। সাত দিন ধরে কাজ না পায় বাজার করিবা পারছিনুনে। তুমহার এই সাহায্য পায় দুই মেয়েক নিয়ে দুই বেলা খাবা পারিম। আল্লাহ তুমার ভালো করুক, বসুন্ধরা গ্রুপকে আল্লাহ আরো দোক।'

শুধু রোকেয়া নয় তার মতো সাহেলা, দিপা রানী, আমিরুন, মোমেনানহ পাঁচ শতাধিক অসহায়কে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে শুভসংঘ।

আজ মঙ্গলবার (৬ জুলাই) পঞ্চগড় বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম স্টেডিয়ামে বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় এ ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

ত্রাণ সহায়তা পেয়ে রমিজ উদ্দিন নামের এক অটোরিকশাচালক বলেন, 'এমনিতে করুনা, আরো সরকার দিছে লোকডাউন। বাহিরত যাবা পারুনা। বাহিরত গেলেও লোকজন নাই। ভাড়া পাই না, ভাড়া না পাইলে কামাই হবে কেংগো রে। বউ বাচ্চা নিয়ে খুব কষ্টে আছু বসুন্ধরা গ্রুপ ত্রাণ দিলে হামাক। কয়েকদিন চলা যাবে।'

এসময় উপস্থিত ছিলেন পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার সাদাত সম্রাট, পঞ্চগড় মকবুলার রহমান সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ দেলওয়ার হোসেন প্রধান, পঞ্চগড় সরকারি মহিলা কলেজের অর্থনীতি বিভাগীয় প্রধান হাসুনুর রশিদ বাবু, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আরিফ হোসেন, পঞ্চগড় প্রেস ক্লাবের সভাপতি শফিকুল আলম, বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষা সমিতি পঞ্চগড় জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুল হক মনির, শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, কালের কণ্ঠের সহসম্পাদক আতাউর রহমান কাবুল, বাংলাদেশ প্রতিদিনের জেলা প্রতিনিধি সরকার হায়দার, বাংলানিউজের জেলা প্রতিনিধি সোহাগ হায়দার, পঞ্চগড়ের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম শহিদ, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শামিম আল মামুন, সদস্য শরীফ মাহ্দী আশরাফ জীবনসহ শুভসংঘ পঞ্চগড় জেলার সভাপতি ফিরোজ আলম রাজীব প্রমুখ।

পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আরিফ হোসেন বলেন, করোনা মোকাবেলায় সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন। আজ আপনাদের বসুন্ধরা গ্রুপ ত্রাণ দিল, এটা দিয়ে আপনারা সাতদিনের মতো চলতে পারবেন। তাই এসময় আপনাদের বাজারে যেতে হবে না। অযথা কেউ বাইরে ঘোরাঘুরি করবেন না।

মর্জিনা বেগম বলেন, 'মাইনষের বাড়িত কাজ করে যেইডা পাও তা দিয়ে কোনোমতে সংসার চলিছিল। এই লোকডাউনে ওইডাও বন্ধ, কাহারো বাড়িত যাওয়া যায় না। লোকডাউনে কাজ-কামও নাই। ঘরের বাহিরত যাবা পারুনা স্বামী-সন্তান নিয়ে খুব কষ্ট দিন লা যাছে। এলা বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ পায় খুব উপকার হইল। এইলা দে কিছু দিন খাওয়া যাবে।'



সাতদিনের সেরা