kalerkantho

রবিবার । ১০ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৫ জুলাই ২০২১। ১৪ জিলহজ ১৪৪২

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে গাইবান্ধা শুভসংঘের ফল উৎসব

গাইবান্ধা প্রতিনিধি   

৯ জুন, ২০২১ ২০:২১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে গাইবান্ধা শুভসংঘের ফল উৎসব

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে ফল উৎসবের আয়োজন করেছে গাইবান্ধা শুভসংঘ। ফল উৎসবে এসে আনন্দে অভিভূত শিশু সামাদ (১০) বলে, 'এত ফল শুধু আমাদের জন্য রাখা হয়েছে, ভাবতেই পারছি না। এ বছর অনেক ফলই খাওয়া হয়নি।'

অনুষ্ঠানের অতিথি কবি ও লিটল ম্যাগ সম্পাদক সরোজদের বললেন, মধুমাসে এই আয়োজন শুভসংঘের তরুণ বন্ধুদের মানবিকতার পরিচয়। 

অতিথি শিল্পী রিপণ চৌধুরী বলেন, অনেকেই লোক দেখানো নানা কাজ করে। কিন্তু এই প্রথম শুভসংঘের আয়োজনে এসে দেখলাম আর্থিক সামর্থ্যহীন শিশুদের জন্য শুভসংঘের সত্যিকারের ভালোবাসা।

আজ বুধবার বিকেলে গাইবান্ধা পিকে বিশ্বাস রোড সংলগ্ন চত্বরে অনুষ্ঠিত হয় এই ফল উৎসব। জেলা শহরের সুবিধা বঞ্চিত ৩৫ জন শিশু এবং শুভসংঘের জেলা উপজেলার কর্মী ও অতিথিরা এতে অংশ নেন। শুভসংঘের জেলা সম্পাদক লতা সরকারের সভাপতিত্বে এতে অতিথি ছিলেন দেশ বরেণ্য কবি ও সম্পাদক সরোজদেব এবং শুভসংঘের থিম সং-এর সুরকার রিপণ চৌধুরী।

শুরুতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপদেষ্টা আলোকচিত্রী কুদ্দুস আলম, জেলাসহ সাধারণ সম্পাদক সামিউল ইসলাম সাকিব, সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুল হাসান রাকিব, শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক উম্মে কুলসুম তালুকদার তুলনা, সাংস্কৃতিক সম্পাদক দেবী সাহা, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা শুভসংঘের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন আহমেদ বিপ্লব, সরকারি কলেজ শাখার সহসাধারণ সম্পাদক রওজাতুন্নাহার লাবন্য, ফুলছড়ি শুভসংঘের সহসভাপতি শিমুল হাওলিদার, জেলা নারী বিষয়ক সম্পাদক রেহেনা আক্তার ও কালের কণ্ঠের জেলা প্রতিনিধি অমিতাভ দাশ হিমুনসহ অন্যরা।

লতা সরকার বলেন, মধুমাসে দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করা সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের অধিকাংশই হয়তো এই সময়ের ফল খাওয়ার সুযোগ পায় না। তাদের নিয়ে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ প্রায় সব ধরনের ফল নিয়ে এই আয়োজন করেছে। আমরা তৃপ্ত শিশুদের উল্লাস দেখে।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা শুভসংঘের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন আহমেদ বিপ্লব বলেন, বিভিন্ন জায়গায় এমন অনেক শিশু আছে যারা দূর থেকে শুধু দেখে যায়। আমরা যার যার অবস্থান থেকে অন্তত একদিন তাদের জন্য এ ধরণের আয়োজন করতে পারি।

কবি সরোজদেব আরো বলেন, কালের কণ্ঠ সম্পাদক বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন সারাদেশে তরুণদের শুভ কাজে প্রাণিত করতে পেরেছেন। তার অনুপ্রেরণায় আগামীতে বঞ্চিত শিশুদের জন্য আরো কাজ দেখতে চাই।

উৎসবে আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু, পেয়ারা, খেঁজুর, কচি তাল, মাল্টা, আনারসসহ বিভিন্ন মৌসুমি ফল রাখা হয়। পরে শিশুদের তা একসাথে পরিবেশন করা হয়। দুই ঘণ্টার এই অনুষ্ঠান শেষ হয় শিশুদের আনন্দিত হইহুল্লোড়ে।



সাতদিনের সেরা