kalerkantho

বুধবার । ২৮ বৈশাখ ১৪২৮। ১১ মে ২০২১। ২৮ রমজান ১৪৪২

শুভসংঘের উদ্যোগে সাফীর উদ্দীনের পাকা ঘর, স্বপ্নটা আরেকটু বাকি...

অনলাইন ডেস্ক   

৩ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:২০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শুভসংঘের উদ্যোগে সাফীর উদ্দীনের পাকা ঘর, স্বপ্নটা আরেকটু বাকি...

সবার সহযোগিতায় ঘরের কাজ এতটুকু এগিয়েছে

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার মহিষভের গ্রামের এক দরিদ্র আইসক্রিম বিক্রেতা সাফীর উদ্দিন। সন্তানদের নিয়ে একচালা একটা ভাঙা টিনের ঘরে বহু কষ্টে দিন কাটাচ্ছিলেন। ঘরটা ঠিকঠাক করার কিছুটা ঘোলাটে আশা থাকলেও তিনি জানতেন, তা পূরণ হবার নয়। তা ছাড়া করোনার ভয়াল থাবায় জীবন-জীবিকাও অন্যরকম হয়ে গেল। এরপর ঘরটাকে বাসযোগ্য করে তোলা তার কাছে দিবাস্বপ্ন ছাড়া আর কিছুই নয়। আইসক্রিম বিক্রেতার এই দুর্দশা কালের কণ্ঠ শুভসংঘের বন্ধুদের নাড়া দেয়। বড় একটা চ্যালেঞ্জ নিয়ে তারা এগিয়ে যান পরিবারটির দিকে। সবাইকে নিয়ে শুভকাজে সবার পাশে দাঁড়ানোর তাগিদ দেশজুড়ে শুভসংঘের তারুণ্যের জানান দিয়েছে বারবার। এবারও জানান দিতে দোষ কী! 

সদস্যরা ঠিক করেন, সাফীর উদ্দিনকে একটা পাকা ঘর করে দেবেন সবাই মিলে। খরচ নিজেরাই তুলবেন। আপাতত যতটুকু জোগাড় করা সম্ভব হলো, তা নিয়েই গত ২২ মার্চ সোমবার সকালে সবাই হাজির হলেন সাফীর উদ্দিনের ভাঙা ঘরের সামনে। সেখানে পাকা ঘরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন রায়পুরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম। কাজ এগিয়ে চলছে, তবে কিছু অসামর্থ্যতা-অপ্রতুলতা তো থেকেই যায়। এখন সেটুকু পেরিয়ে গেলেই স্বপ্ন পূরণ হয় মানুষটার। 


ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন রায়পুরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম

ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের সময় নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, কালের কণ্ঠ শুভসংঘ দরিদ্র একটি পরিবারকে ঘর করে দিচ্ছে যা সত্যিই একটি মহৎ কাজ। এভাবে সবাই এগিয়ে এলে সমাজ থেকে দরিদ্রতা বিদায় নেবে। এমন মানবিক কাজে অংশগ্রহণ করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। 

সেদিন থেকেই সাফীর উদ্দিনের আশা, শুভসংঘ ঘরটা করে দিলে মাথা গোঁজার ঠাঁই হবে। বাকিটা জীবন সন্তানদের নিয়ে অন্তত শান্তিতে ঘুমাতে পারবেন। কোনোদিনও তিনি ভাবেননি, তার একটা পাকা ঘর হতে পারে। সেই ঘরের কাজের উদ্বোধন করতে এসেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। সেখানে জড়ো হয়েছেন চরসুবুদ্ধি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হাজি নাসির উদ্দিন, কালের কণ্ঠ শুভসংঘ কেন্দ্রীয় কমিটির পরিচালক জাকারিয়া জামান, সাধারণ সম্পাদক শামীম আল মামুন, প্রচার সম্পাদক রানা মিত্র, কালের কণ্ঠ পত্রিকার নরসিংদী জেলা প্রতিনিধি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, নরসিংদী জেলা শুভসংঘের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল মাছুমসহ অনেকে। 

সেদিন তার ঘর তৈরির কাজে হাত লাগিয়েছেন শুভসংঘের সদস্যরা। দুহাতে ইট-সিমেন্ট নিয়ে তারাই ব্যস্ত হয়ে পড়েন। গ্রামের লোকজন এগিয়ে আসেন। শুধু গ্রাম নয়, দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অনেকেই এ উদ্যোগে শামিল হন এবং হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। কিন্তু ঘর তুলতে যথেষ্ট খরচ আছে। সেই খরচ জোগাতে কেউ দিয়েছেন ইট, কেউ সিমেন্ট, কেউবা নগদ অর্থ। অনেকে শ্রম দিয়েছেন, বাকিটা দিতেও প্রস্তুত তারা। শুভসংঘের ফেসবুক পেজে কিংবা সদস্যদের প্রফাইলে গিয়ে কমেন্ট বা ইনবক্সে অনেকে সহায়তার হাত বাড়ানোর ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। সাফীর উদ্দিনের সদ্য দেখা স্বপ্নটা বাস্তবায়নের জন্য তাদের সহযোগিতা একান্ত কাম্য।

পরিবার নিয়ে বাসযোগ্য একটা পাকা ঘর তুলতে খরচ নেহায়েত কম নয়। সামর্থ্যবান ও আগ্রহীরা এগিয়ে এলে এমন অনেক দরিদ্র পিতার স্বপ্ন পূরণ হওয়া সম্ভব। আপনার যেকোনো সহায়তা ও অংশগ্রহণ সাফীর উদ্দিনের মতো এক অসহায় পিতা ও সন্তানদের কাছে আশীর্বাদ হয়ে দেখা দেবে। আপনারা শুভসংঘের পেজে গিয়ে ইনবক্স বা কমেন্টের মাধ্যমে আপনাদের আগ্রহের জানান দিতে পারেন- 
https://www.facebook.com/Shuvosangho/ 

 



সাতদিনের সেরা