kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

বাংলাদেশ থেকে বছরে ৫০ হাজার পর্যটক চায় নেপাল

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশ থেকে বছরে ৫০ হাজার পর্যটক চায় নেপাল

চট্টগ্রাম নগরে গতকাল সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন নেপাল দূতাবাসের সেকেন্ড সেক্রেটারি দিলীপ প্রাসাদ আচার্য। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে প্রায় ২৩ হাজার পর্যটক নেপালে ভ্রমণ করতে যান। নেপালে ভ্রমণকারীর দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান ৮ম। ২০২০ সালের মধ্যে এই সংখ্যা ৫০ হাজারে উন্নীত করতে চায় নেপাল সরকার। কালের কণ্ঠের সঙ্গে আলাপে এই তথ্য জানান বাংলাদেশে নিযুক্ত নেপাল দূতাবাসের সেকেন্ড সেক্রেটারি দিলীপ প্রাসাদ আচার্য।

নেপালের ট্যুরিজম বোর্ড ও ট্যুর অপারেটরদের একটি দল মঙ্গলবার চট্টগ্রাম আসে। ‘ভিজিট নেপাল ২০২০’ স্লোগানে বাংলাদেশি পর্যটকদের আকৃষ্ট করাই সেমিনারের মূল উদ্দেশ্য।

দিলীপ প্রাসাদ আচার্য বলেন, ‘২০২০ সালে বিশ্বের ২০ লাখ পর্যটক আমরা নেপালে চাই। বাংলাদেশ থেকে আমরা আশা করছি ৫০ হাজার পর্যটক; কারণ বাংলাদেশ ভ্রমণে খুবই ইমার্জিং মার্কেট।’

দিলীপ প্রাসাদ বলেন, ‘ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের বিমান দুর্ঘটনার পর বাংলাদেশ থেকে পর্যটক কমে গিয়েছিল। কিন্তু এই বছর থেকে তা আবারও বাড়তে শুরু করেছে। রাষ্ট্রীয় হিমালয়ান এয়ারলাইনসের ঢাকা-কাঠমাণ্ডু সরাসরি ফ্লাইট চালু করা হবে খুব শিগগিরই। এ ছাড়া সৈয়দপুর থেকে নেপালেও বিমান চালুর প্রক্রিয়া চলছে; যাতে সময় লাগবে মাত্র ৪০ মিনিট।’

আলাপকালে নেপাল ট্যুরিজম বোর্ডের কর্মকর্তা রাজিব ঝা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘২০১৮ সালে বিশ্বের ১১ লাখ ৭৩ হাজার পর্যটক নেপাল ভ্রমণ করেছেন। এর মধ্যে শীর্ষে আছে ভারত, দ্বিতীয় চীন এবং তৃতীয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আর বাংলাদেশের অবস্থান ৮ম।’

নেপাল ট্যুরিজম বোর্ড ম্যানেজার গোবিন্দ অলি বলেন, ‘নেপালের রাজনৈতিক দলগুলো একমত পর্যটক আকর্ষণের এই লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে। এ জন্য ঢাকাসহ বাংলাদেশের সব বিভাগীয় শহরে নেপাল ভ্রমণের এই ক্যাম্পেইন করছি।’

অনুষ্ঠানে ট্রাভেল এজেন্টদের সংগঠন আটাব চট্টগ্রামের সভাপতি আবু জাফর বলেন, ‘ঢাকা থেকে বাংলাদেশ বিমানই কাঠমাণ্ডু রুটে ফ্লাইট চালাচ্ছে। নেপালের রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা থাকলে প্রতিযোগিতা বাড়ত; কম খরচে ভ্রমণের সুযোগ পেত বাংলাদেশি পর্যটকরা। তিনি চট্টগ্রাম থেকেও কাঠমাণ্ডু ফ্লাইট চালুর দাবি করেন।’

অনুষ্ঠানে মিডিয়া পরামর্শক এজাজ মাহমুদ, নেপালের দশটি ট্রাভেল এজেন্ট এবং চট্টগ্রামের ট্রাভেল এজেন্ট মালিক ও প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য