kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

চলন্ত বাসে চবি ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা

চালক গ্রেপ্তার হলেও হেলপার অধরা

দ্রুত বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ও সমাবেশ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চালক গ্রেপ্তার হলেও হেলপার অধরা

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে গতকাল ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন। ছবি : কালের কণ্ঠ

চলন্ত বাসে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও দ্রুত বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সামনে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, চলন্ত বাসে ছাত্রী লাঞ্ছনার ঘটনায় আমরা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। ঘটনার চার দিন পেরিয়ে গেলেও মূল হোতা এখনো রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। এসব যৌন হয়রানির ঘটনায় দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়ায় দিনের পর দিন এ ধরনের ঘটনা বাড়ছে। পুলিশ ও প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে।

বক্তারা আরো বলেন, আমরা এ ঘটনা থেকে তিনটি শিক্ষা পেয়েছি। প্রথমত নারীদের সাহসী হতে হয়। দ্বিতীয়ত আমরা দেখিয়েছি কোনো ভায়োলেন্স ছাড়াই সমস্যার সমাধান কিংবা দাবি আদায় সম্ভব। তৃতীয়ত আমাদের প্রত্যেককে নিজেদের দুর্বল বা অসহায় ভাবা উচিত না। চারপাশে অনেকেই আছে আমাদের সঙ্গে। তাই যেকোনো অপরাধ বা নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে।

অর্থনীতি বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আদনান আলীর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন বিভাগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. আলাউদ্দিন মজুমদার, অধ্যাপক ড. আবুল হোসাইন, অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ নুর নবী, সহকারী অধ্যাপক নঈম উদ্দিন হাছান আওরঙ্গজেব চৌধুরী, ঝুলন ধর, আব্দুল্লাহ আল মাসুম প্রমুখ।

মানববন্ধন শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে প্রক্টর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী বলেন, ‘সাহসিকতা ও বুদ্ধিমত্তার কারণে বড় কোনো দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে গেছে সেই ছাত্রী। এ ইস্যুতে সবাই যেভাবে প্রতিবাদে জেগে উঠেছে, সেভাবে সব অপরাধ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। কারও সঙ্গে এই ধরনের কোনো ঘটনা ঘটলে তা না লুকিয়ে প্রশাসনকে অবহিত করতে হবে। তিনি আরও বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সর্বাত্মক চেষ্টা করছে ছাত্রী লাঞ্ছনার ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির ব্যবস্থা করার।’

এদিকে ভুক্তভোগী ছাত্রীর মামলার প্রেক্ষিতে বাসের চালক বিপ্লব দেবনাথকে গ্রেপ্তার করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। বাসটিও জব্দ করা হয়। তবে এ ঘটনার মূল অভিযুক্ত ওই বাসের  হেলপারকে এখনো গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। চালককে গ্রেপ্তারের পর পুলিশ আদালতের কাছে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করলে শুনানি শেষে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ বিষয়ে কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বাসের হেলপারকে এখনো আটক করা যায়নি। তবে পুলিশের একাধিক দল কাজ করছে তাঁকে আটক করতে।’

উল্লেখ্য, গত ১১ এপ্রিল ওই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নগরে ফেরার পথে চলন্ত বাসে নিউমার্কেট এলাকায় তাঁকে একা পেয়ে হেলপার ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় ছাত্রী নিজের হাতের মোবাইল দিয়ে নিপীড়ককে মাথায় ও মুখে আঘাত করতে থাকে। এতে হেলপার চোখে আঘাতপ্রাপ্ত হয় এবং ছাত্রী চলন্ত বাস থেকে লাফ দিয়ে নেমে পড়েন। পরের দিন ওই ছাত্রী কোতোয়ালী থানায় বাসচালক ও হেলপারের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

মন্তব্য