kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

অতঃপর

প্রথম ইপি অ্যালবাম ‘অতঃপর’ দিয়ে আলোচনায় আর্বোভাইরাস। অ্যালবামের চারটি গানের তিনটি পাওয়া যাচ্ছে জিপি মিউজিকে। ঈদের আগেই আসবে শেষ গান। লিখেছেন পার্থ সরকার

১৬ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অতঃপর

‘অতঃপর’ অ্যালবামের প্রথম তিনটি গান—‘আমি আমারই মতো’, ‘সত্যগাথা’ এবং ‘নিঃসঙ্গ গ্রহ’। নাম চূড়ান্ত না হওয়া চার নম্বর গানটি ঈদের আগেই আসবে। গানগুলো কেমন? জানালেন ব্যান্ডের ড্রামার নাফিজ, “আমরা চেষ্টা করেছি আগের অ্যালবামগুলোর চেয়ে এই অ্যালবামের গানগুলো আলাদা করতে। ‘আমি আমরাই মতো’ উৎসাহমূলক গান, অনেক ইতিবাচক দিক আছে গানটির মধ্যে। ‘সত্যগাথা’ ডার্ক জনরার। তবে ‘নিঃসঙ্গ গ্রহ’ মিক্সড মুডের।”

সব গানই রঞ্জনের লেখা। তবে ‘আমি আমারই মতো’ প্রথমে ইংরেজিতে লিখেছিলেন নাফিজ। পরে সেই লেখা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে গানটি বাংলায় লেখেন রঞ্জন। ‘সত্যগাথা’ও প্রথমে লেখেন সুফি ২০০৪ সালে। রঞ্জন সেটা নতুন করে লেখার পর ব্যান্ড গানটি গায়। নাফিজ বলেন, ‘অ্যালবামটি করতে গিয়ে যোগাযোগে খুব সমস্যা হচ্ছিল। কারণ আমরা তিনজন ঢাকায় থাকি। বাকি দুজন—আদনান থাকে অস্ট্রেলিয়ায় আর রঞ্জন ইংল্যান্ডে। অ্যালবামটি করতে গিয়ে পাঁচজন দিনের পর দিন কত যে ভিডিও কল করেছি ইয়ত্তা নেই। মূল সমস্যা শুরু হয় রেকর্ডিং শুরুর পর। আমরা আমাদের অংশটুকু করে ফেলেছি, কিন্তু আদনান সেটা করার সময় পাচ্ছে না। পেলেও ফিল ঠিকঠাক আসছে না। আবার রঞ্জন রেকর্ড করার সময় হয়তো একটা টেকনিক্যাল সমস্যা দেখা দিল। সব মিলিয়ে একটা কঠিন অবস্থার মধ্য দিয়ে গেছে পুরো ব্যান্ড।’ দুই মহাদেশে দুজন, আরেক মহাদেশে তিনজন—ব্যান্ড টিকে আছে কিভাবে? সূহার্ত বলেন, ‘আসলে আমাদের সবার ধৈর্য অনেক বেশি। একদম তাড়াহুড়া নেই কারো। একের প্রতি অন্যের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা আছে। তাই ব্যান্ডটা এখনো টিকে আছে এবং থাকবে।’

প্রথম অ্যালবাম ‘৬৪ মিনিট ৫৩ সেকেন্ড’ (২০০৬), এরপর ‘মন্তব্য নিষ্প্রয়োজন’ (২০১৩) এবং ‘বিশেষ দ্রষ্টব্য’ (২০১৭) অ্যালবাম দুটি   শ্রোতাদের বিনা মূল্যে দিয়েছে আর্বোভাইরাস। কেন? ‘এর অন্যতম কারন মানুষের গান শোনার অভ্যাস বদলেছে। এখন সবাই গান ডাউনলোড করে নেয়। তা ছাড়া রেকর্ডিং কম্পানিগুলো দুই-তিন শ কপির বেশি অ্যালবাম বের করতে চায় না। কিন্তু ৬০ বছরের জন্য কপিরাইট দিয়ে দিতে হবে। আমরা তো শিল্পী, এরকম পরাধীনতার ভেতর দিয়ে আমরা যেতে চাইনি। সে কারণেই ফ্রিতে দিয়ে দেওয়া’—বলছিলেন সূহার্ত।

সুফি জানালেন, ‘আর্বোভাইরাস টিভি’ নামে ইউটিউবে তাঁদের একটি অফিশিয়াল চ্যানেল খোলা হয়েছে। সেখানে গেলে ‘অতঃপর’সহ তাঁদের প্রায় সব গান পাওয়া যাবে।’

‘আর্বোভাইরাস’-এর শুরু ২০০২ সালে। গত দেড় যুগে তাদের সাফল্যও কম নয়। জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে—‘হারিয়ে যাও’, ‘স্কুল’, ‘শহর’, ‘অমানুষ’, ‘রোদের কিনারায়’ ইত্যাদি।

বর্তমান লাইনআপ : সূহার্ত (গিটার), নাফিজ (ড্রামস), রঞ্জন (গিটার), আদনান (বেজ) ও সুফি (ভোকাল)।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা