kalerkantho

শনিবার । ২৫ মে ২০১৯। ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৯ রমজান ১৪৪০

আসছেন বয়ফ্রেন্ড নিয়ে

কাল মুক্তি পাবে বৈশাখের ছবি ‘বয়ফ্রেন্ড’। উত্তম আকাশের এই ছবির নায়িকা সেমন্তি সৌমিকে নিয়ে লিখেছেন মাহতাব হোসেন

১১ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আসছেন বয়ফ্রেন্ড নিয়ে

‘বয়ফ্রেন্ড’-এর আগে করেছিলেন অনন্য মামুনের ‘অস্তিত্ব’। ছবির নায়ক-নায়িকা আরিফিন শুভ-নুসরাত ইমরোজ তিশা। পর্দায় সৌমির নায়ক হয়েছিলেন জোভান। তবু ‘বয়ফ্রেন্ড’কেই নিজের অভিষেক ছবি বলতে চান সৌমি। কারণ? ‘কারণ এখানে আমিই প্রধান নায়িকা। আগের ছবিটা মুক্তির সময় কেউ আমাকে চিত্রনায়িকা উপাধি দেয়নি, এখন সবাই আমাকে চিত্রনায়িকা বলছে’—বললেন সৌমি।

‘বয়ফ্রেন্ড’ পেতে সৌমিকে সাহায্য করেছেন নায়ক আমান রেজা। নতুন মুখ খুঁজছিল প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়া। আমান বলল, ‘চেষ্টা করে দেখবা নাকি?’ ‘আমিও চলে গেলাম অডিশন দিতে। কিছুদিন পর ওরা জানাল আমি নির্বাচিত হয়েছি’—বললেন সৌমি।

শোবিজে এসেছিলেন অনেকটা হুট করে। স্কুল শেষ করে সবে কলেজে ভর্তি হয়েছেন। তখন লাক্স সুপারস্টার প্রতিযোগিতার অডিশন চলছিল। ‘মা-ই আমাকে জানালেন বিষয়টা। কোনো কিছু না ভেবে নিবন্ধন করে ফেললাম। জানতাম এসব প্রতিযোগিতায় যেতে হলে অনেক গুণ থাকতে হয়। আমার যে কী গুণ ছিল, নিজেই জানতাম না। প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার পরই সব জানতে ও বুঝতে শিখলাম। দেখতে দেখতে সেরা দশেও চলে এলাম। এরপর বাদ পড়লাম।’

লাক্স প্রতিযোগিতা থেকে বাদ পড়ার পর সৌমি ভাবলেন, তাঁর দৌড় বোধ হয় এ পর্যন্তই। শোবিজে আর কিছুই হবে না। পড়াশোনাতেই ব্যস্ত হয়ে গেলেন। ছাত্রীও ভালো। ভিকারুননিসা নূন স্কুল থেকে মাধ্যমিকে জিপিএ ৫ পেয়েছিলেন। কয়েক দিন পরই ডাক পেলেন গ্রামীণফোনের একটি বিজ্ঞাপনে মডেল হওয়ার। অবাক সৌমি লুফে নিলেন। বিজ্ঞাপনচিত্রটির সংলাপ ‘কথা তো বলতেই হবে,  নো ওয়ে’ বেশ জনপ্রিয় হলো। এরপর উচ্চ মাধ্যমিক দিলেন। এখানেও পেলেন জিপিএ ৫। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। সে সময় প্রস্তাব পেলেন মাসুদ মহিউদ্দিনের ধারাবাহিক ‘আগুনপোকা’য় অভিনয়ের। এই ধারাবাহিকে অভিনয়ের পরই শোবিজে পরিচিত হয়ে উঠলেন। বেশ কিছু নাটক, টেলিফিল্ম, বিজ্ঞাপনচিত্র ও মিউজিক ভিডিওতেও মডেল হয়েছেন। মাহতিম সাকিব ও আরমান আলিফের গানের ভিডিওতেও মডেল হয়ে রীতিমতো ভাইরাল হয়েছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার ইচ্ছাটা অপূর্ণই থেকে গেল। বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন নিয়ে এখন পড়ছেন ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে। অভিনয়ের ব্যস্ততার কারণে কয়েকটা সেমিস্টার ব্রেক না দিলে এত দিনে গ্র্যাজুয়েট হয়ে যেতেন।

‘বয়ফ্রেন্ড’ নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত সৌমি। তাঁর ধারণা, এই ছবি দর্শক দেখবে, ‘তাসকিন ভাই ভালো অভিনয় করেছেন। উত্তম আকাশও দারুণ একটা গল্প বলার চেষ্টা করেছেন।’

ক্যারিয়ার নিয়ে খুব বেশি ভাবেন না। যা ভালো মনে করেন তাই করেন। দুটি ওয়েব সিরিজে অভিনয় করেছেন—শাফিউদ্দিন শাফির ‘সিনেমা’ ও সঞ্জয় সমাদ্দারের ‘বিজনেসম্যান’। উপস্থাপনা করছেন এটিএন বাংলার অনুষ্ঠান ‘ছবির গান’।

আরো কয়েকটা ছবির প্রস্তাব আছে। সৌমি বলেন, ‘অনেক দূর যাওয়ার ইচ্ছা নিয়েই চলচ্চিত্রে এসেছি। দর্শক যদি আমাকে গ্রহণ করে তাহলেই ইচ্ছারা ডানা মেলবে।’

বাবা পশ্চিমবঙ্গের মানুষ, সেখানেই ব্যবসা করেন। মা রাজবাড়ীর মেয়ে, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে কর্মরত। দুজনই মেয়েকে উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছেন।

মন্তব্য