kalerkantho

শনিবার । ২৫ মে ২০১৯। ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৯ রমজান ১৪৪০

বরফরাজ্যের গোয়েন্দা

গোয়েন্দা হ্যারি হোল থ্রিলারপ্রেমী পাঠকদের কাছে পরিচিত নাম। সেই চরিত্রটি রুপালি পর্দায় আনছেন পরিচালক টমাস আলফ্রেডসন। আগামীকাল মুক্তি পেতে যাওয়া ‘দ্য স্নোম্যান’ নিয়ে লিখেছেন হাসনাইন মাহমুদ

১৯ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বরফরাজ্যের গোয়েন্দা

ইয়ো নেসবার পরিচিতি অনেক—সংগীতশিল্পী, গীতিকার, সাংবাদিক। তবে সেসব পরিচয় ছাপিয়ে গেছে তাঁর লেখক পরিচয়টা। তাঁর সৃষ্ট চরিত্র গোয়েন্দা হ্যারি হোল অনেক দিন ধরেই রয়েছেন পাঠকদের পছন্দের তালিকার শীর্ষে। নরওয়ের এই লেখকের উপন্যাসগুলো ৪০টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে। আর সারা বিশ্বে বিক্রি হয়েছে তিন কোটি কপি। বোঝাই যাচ্ছে, বেশ জনপ্রিয় হ্যারি হোল চরিত্রটি। বইয়ের পাতা থেকে হ্যারিকে এবার রুপালি পর্দায় নিয়ে আসছেন পরিচালক টমাস আলফ্রেডসন। আর এই ছবির মধ্য দিয়ে ছয় বছরের বিরতির পর আবার বড় পর্দায় ফিরছেন ‘টিংকার টেইলর সোলজার স্পাই’ খ্যাত এই পরিচালক। ব্রিটেন ও চীনের যৌথ প্রযোজনায় ‘দ্য স্নোম্যান’ চলচ্চিত্রটি তৈরি হয়েছে একই নামের হ্যারি হোল সিরিজের সপ্তম বই অবলম্বনে।

ছবির গল্পটা এমন—শীতের শুরুতেই প্রথম তুষারপাতের পর অভিনবভাবে উধাও হয়ে যায় স্থানীয় এক বাসিন্দা। এই রহস্যের কিনারা করতে আসা ঝানু গোয়েন্দা হ্যারি হোল বুঝতে পারেন, এটা কোনো সাধারণ নিখোঁজের ঘটনা নয়। এর সঙ্গে জড়িত আছে ভয়ংকর এক সিরিয়াল কিলার ‘দ্য স্নোম্যান’। এই রহস্যের জট খুলতে তাঁর সঙ্গী হয় পুলিশে নতুন যোগ দেওয়া ক্যাটরিন ব্র্যাট। ভয়ংকর এই খুনিকে যেকোনোভাবে আটকাতে হবে, তা-ও পরবর্তী তুষারপাত শুরু হওয়ার আগেই। হ্যারি হোল ও ক্যাটরিন চরিত্রে অভিনয় করেছেন জনপ্রিয় দুই তারকা মাইকেল ফাসবেন্ডার ও রেবেকা ফার্গুসন। তাঁদের সঙ্গে আরো দেখা যাবে ভ্যাল কিলমার, জে কে সিমন্সদের মতো অভিনেতাদের।

ইয়ো নেসবার ‘দ্য স্নোম্যান’ উপন্যাস অবলম্বনে চলচ্চিত্র নির্মাণের চিন্তাটা আরো অনেক আগের। প্রথমে প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক মার্টিন স্করসেজি চেয়েছিলেন এটা নিয়ে ছবি বানাতে। পরে আরেক পরিচালক রিডলি স্কটের নাম শোনা গেলেও শেষমেশ চলচ্চিত্রটির পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয় সুইডিশ পরিচালক টমান আলফ্রেডসনকে। চলচ্চিত্রটি নিয়েও বেশ উচ্ছ্বসিত এই পরিচালক। ‘দ্য মিলেনিয়াম ট্রিলজি’র সফলতাই আসলে এই ছবি বানাতে অনুপ্রাণিত করেছে পরিচালককে। ‘দ্য স্নোম্যান’-এর সম্পূর্ণ চিত্রায়ণ হয়েছে নরওয়েতে।

‘এক্স-ম্যান’ সিরিজে ম্যাগনিটো কিংবা স্টিভ জবসের ভূমিকায় অভিনয় করা মাইকেল ফাসবেন্ডারকে বর্তমান সময়ের অন্যতম প্রতিভাবান অভিনেতা হিসেবে আখ্যায়িত করেন অনেক সমালোচকই। বিভিন্ন ঘরানার চলচ্চিত্রে অভিনয় করে নিজের জাত চেনানো এই অভিনেতাও এ ছবি নিয়ে বেশ আশাবাদী। তিনি বলেন, ‘ইয়ো নেসবা আমার পছন্দের লেখকদের তালিকায় সব সময়ই থাকবেন। দর্শকদের জন্য এই থ্রিলারে রয়েছে জটিল এক গল্প।’ একই মত চলচ্চিত্রের আরেক তারকা রেবেকা ফার্গুসনের।

মন্তব্য