kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৮ জুন ২০১৯। ৪ আষাঢ় ১৪২৬। ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

গুরু-শিষ্য

তাঁদের আলাপ

১৯ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তাঁদের আলাপ

ফারিয়ার প্রথম বিজ্ঞাপনচিত্র ‘প্রাণ চানাচুর’, প্রথম টেলিফিল্ম ‘অ্যাট এইটিন’—দুটিই বানিয়েছেন আদনান। নতুন কাউকে মডেল করার ক্ষেত্রে যেমনটা হয়, আদনান সেভাবেই তাঁর অফিসে অডিশন নিলেন। অডিশনে যাওয়ার আগেই অবশ্য তাঁর সুনাম শুনেছেন ফারিয়া, ‘সিনিয়র মডেল হূদি আপু আমাকে আদনান ভাইয়ের অফিসে পাঠিয়েছেন। মেধাবী পরিচালক সেটা তো বলেছেনই, আপু আরো বললেন, দেখবে আদনানের হাসি অনেক সুন্দর। ভাইয়ার হাসি দেখার অনেক চেষ্টা করলাম অডিশনে। কিন্তু আফসোস, সেদিন একবারও হাসেননি, গম্ভীর হয়ে অডিশন নিলেন।’ ফারিয়ার কথা শুনে আদনান হাসলেন। আদনানের কাছে প্রশ্ন, ফারিয়ার কোন স্পেশালিটিতে মুগ্ধ হয়েছিলেন সেদিন? ‘সেদিনের ঘটনা আমার ঠিক মনে নেই। তবে ওর কিছু স্পেশালিটি বলা যায়—প্রথমত ও খুব মিষ্টি একটি মেয়ে, লম্বা, হাসিটা সুন্দর। দ্বিতীয়ত ও চটপটে, যারা চটপটে তাদের কাছ থেকে অভিনয়টা সহজে বের করে আনা যায়’—বললেন আদনান।

ফারিয়ার চোখে আদনানের স্পেশালিটি কী? ‘মানুষটাই স্পেশাল। পরিচালকের চেয়েও মানুষ আদনান ভাই আমার কাছে বেশি স্পেশাল।’

ফারিয়ার অভিনয়ক্ষমতা আগের তুলনায় এখন কেমন? গুরু হিসেবে কী পরামর্শ দেবেন আদনান? ‘নিজেকে গুরু মনে করি না। তা ছাড়া ওকে সেভাবে কিছু শেখাইওনি। ওর অভিনয়ক্ষমতা ছিল মনে করেছি বলেই কাজ করেছি ওকে নিয়ে। এখন ও অনেক পরিণত। আরো ভালো করার ক্ষমতা ওর মধ্যে আছে।’

কাজের বাইরেও দুজনের সম্পর্ক বেশ ভালো। আদনান বলেন, ‘কাজ ও পার্সোনাল লাইফের অনেক কিছুই শেয়ার করি আমরা। ওর কখনো কোনো কাজে আসতে পেরেছি কি না জানি না, তবে ওর পাশে আমি আছি।’

ফারিয়া যোগ করলেন, ‘প্রথম টেলিফিল্মটা যখন করি, তখন অভিনয় কী জানতামই না। পরে আমরা একসঙ্গে কাজও করিনি খুব একটা। তবে কোনো সমস্যায় পড়লে কাছের দু-তিনজন মানুষ, যাদের কাছে বলার প্রয়োজন বোধ করি, তার মধ্যে আদনান ভাই একজন। আদনান ভাইয়ের কোনো কাজ ভালো হলে বা কেউ তাঁর প্রশংসা করলে খুব ভালো লাগে।’

ব্যক্তি ফারিয়ার জন্য আদনানের কিছু পরামর্শও রয়েছে, ‘জীবনের অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ও স্যোশাল প্ল্যাটফর্মে শেয়ার করে। এসব বাদ দিলে অনাহূত অনেক ঝামেলা এড়াতে পারত। আর কাজের ক্ষেত্রে বলব, ওর আরো স্পেসিফিক হওয়া উচিত। গল্প পছন্দ করার মেধাটা ডেভেলপ করতে হবে। উপদেশ নয়, এগুলো পরামর্শ।’

আদনানের পরামর্শ শুনে ফারিয়া হেসে বলেন, ‘ভাইয়া এ নিয়ে আমাকে অনেক বকেছেন। কিন্তু কী করব, বদ-অভ্যাসটা ত্যাগ করতে পারি না। আদনান ভাই খুবই প্রতিভাবান, একেবারে মাটির মানুষ। মানুষের সঙ্গে খুব সহজে মিশে যাওয়ার অদ্ভুত ক্ষমতা তাঁর।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা