kalerkantho

মঙ্গলবার । ৭ বৈশাখ ১৪২৮। ২০ এপ্রিল ২০২১। ৭ রমজান ১৪৪২

৫০তম জন্মদিনে সংবর্ধনা

কবি শামীম রেজার সুবর্ণ জয়ন্তী আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০২১ ০০:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কবি শামীম রেজার সুবর্ণ জয়ন্তী আজ

কবি শামীম রেজা

‘যখন রাত্তির নাইমা আসে সুবর্ণনগরে’ কাব্যগ্রন্থের জন্য যিনি বেশি আলোচিত, নব্বই দশকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সেই কবি শামীম রেজার ৫০তম জন্মদিন আজ সোমবার। তাঁর সুবর্ণ জয়ন্তীতে আজ বিকেল ৪টায় বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে সংবর্ধনা-সভার আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে কবির চেনা-অচেনা বন্ধু, স্বজন, ভক্ত ও শুভানুধ্যায়ীদের উপস্থিত থাকতে সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন পর্ষদের পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছে।

শামীম রেজা একইসঙ্গে কবি, কথা সাহিত্যিক, প্রাবন্ধিক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। তাঁর জন্ম ২৩ ফাল্গুন ১৩৭৭ (১৯৭১ সালের ৮ মার্চ), বরিশালের ঝালকাঠি জেলার বিষখালি নদীর কোলঘেঁষা থানা কাঁঠালিয়ার জয়খালি গ্রামে, মামাবাড়িতে। তিনি সাউদপুর ও রাজাপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পড়েছেন। বরিশালের বিএম কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শেষে তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘নিম্নবর্গের মানুষ : বাংলাদেশ ও পশ্চিম বাংলার কবিতা-তুলনামূলক আলোচনা’ শীর্ষক অভিসন্দর্ভের জন্য তিনি পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। 
একাদশ শ্রেণিতে পড়ার সময় শামীম রেজা লিটলম্যাগ ‘ধানসিড়ি’ সম্পাদনার দায়িত্ব নেন। 
কর্মজীবনের শুরুতে বেশ কয়েক বছর তাঁর কেটেছে কয়েকটি দৈনিকের দায়িত্বপূর্ণ পদে। ছাত্র অবস্থায় সাহিত্য সম্পাদক হিসেবে তিনি আজকের কাগজের ‘সুবর্ণরেখা’ সম্পাদনা এবং কালের কণ্ঠ’র শুরু থেকে ‘শিলালিপি’ সম্পাদনা করেছেন দীর্ঘদিন। ২০০৩ সালের মে থেকে ২০১১ সালের নভেম্বর মাস পর্যন্ত তিনি ঢাকা কলেজের বাংলা বিভাগে শিক্ষকতা করেন। এরপর ২০১১ সালের ডিসেম্বর মাসে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে যোগদান করেন। পরে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠা করেছেন ‘বঙ্গবন্ধু তুলনামূলক সাহিত্য ও সংস্কৃতি ইনস্টিটিউট’; বর্তমানে এর পরিচালক তিনি।  

শামীম রেজার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের মধ্যে রয়েছে—‘পাথরচিত্রে নদীকথা’, ‘নালন্দা, দূর বিশ্বের মেয়ে’, ‘যখন রাত্তির নাইমা আসে সুবর্ণনগরে’, ‘হূদয়লিপি’, ‘দেশহীন মানুষের দেশ’ ইত্যাদি। এর মধ্যে ‘যখন রাত্তির নাইমা আসে সুবর্ণনগরে’ কাব্যগ্রন্থের জন্য ২০০৭ সালে তিনি সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় প্রবর্তিত ‘কৃত্তিবাস’ পুরস্কার লাভ করেছেন। লেখালেখির প্রয়োজনে তিনি ভারত, কানাডা, জার্মানি, ফ্রান্স, সুইজারল্যান্ড, ইতালি, চেক প্রজাতন্ত্র ও পর্তুগাল সফর করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা