kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

নুহাশের দুঃখপ্রকাশ

রংবেরং প্রতিবেদক   

২৫ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নুহাশের দুঃখপ্রকাশ

সম্প্রতি একটি মোবাইল ফোনের বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাণ করে সমালোচনার মুখে পড়েছেন নুহাশ হুমায়ূন। পাহাড়ের একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলের গল্প নিয়ে বিজ্ঞাপনচিত্রটি। সেখানে দেখা যায়, রেডিওতে রমজানের সাহরি ও ইফতারির সময় জেনে এক পাহাড়ি ছেলে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে সবাইকে জানায়। কারণ সেখানে আজান বা সাহরি ও ইফতারি সম্পর্কে জানার কোনো ব্যবস্থা নেই। আরেকটি দৃশ্যে দেখা যায়, ছেলেটি একবার ভুল করে দরজায় টোকা দিলে একজন লোক বেরিয়ে বলে, ‘আমি হিন্দু।’ এদিকে পাহাড়ি ছেলেটির বাঙালি নাম রাফি। নুহাশের ফেসবুক পোস্টে মন্তব্যের ঘরে শ্রাবণী চাকমা নামে একজন লিখেছেন, ‘প্রথমত পাহাড়ে কারো নাম রাফি হয় না। আর বান্দরবানের প্রত্যন্ত অঞ্চলে অ্যান্ড্রয়েড ফোন খেলনার চেয়েও অকেজো। আর বিজ্ঞাপনে যে বাড়িগুলো দেখানো হয়েছে ওগুলো পাহাড়িদের ঐতিহ্যবাহী মাচাংঘর, সেখানে বাঙালিরা থাকে না। সবচেয়ে বড় কথা, পাহাড়ের প্রত্যন্ত অঞ্চলে কোনো মুসলিম বা বাঙালি সম্প্রদায়ের কেউ থাকে না।’ শ্রাবণীর মতো আরো অনেকেই নুহাশের কর্কশ সমালোচনায় মেতে ওঠে। অবশেষে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে সব পরিষ্কার করেছেন নুহাশ। লিখেছেন, ‘বিজ্ঞাপনটি আমি নির্মাণ করেছি, কিন্তু এর মূল ভাবনা আমার ছিল না। তৃতীয় পক্ষ যখন কনসেপ্টটা দেয় আমার ভালো লাগে। একটা পরিবার, একটা প্রত্যন্ত গ্রাম, যেখানে মুসলিমরা সংখ্যালঘু। রমজান মাসের ওপর ফোকাস করা একটা বিজ্ঞাপন। যেহেতু বিজ্ঞাপনের শুরুতে দেখানো হয়, আ নুহাশ হুমায়ূন ফিল্ম, তাই পরিচালক হিসেবে সব দায়িত্ব আমার। বিনীতভাবে জানাতে চাই, কাউকে কষ্ট দেওয়া বা আঘাত করা আমার কখনোই উদ্দেশ্য ছিল না। গভীরভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি তাদের কাছে যারা বিজ্ঞাপনটি দেখে কষ্ট পেয়েছেন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা