kalerkantho

বুধবার। ১৯ জুন ২০১৯। ৫ আষাঢ় ১৪২৬। ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

ভুল ইঞ্জেকশন পুশ

গোপালগঞ্জে বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রী কোমায়

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৩ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মরিয়ম সুলতানা মুন্নির অবস্থার উন্নতি হয়নি। তিনি এখন খুলনা আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গতকাল বুধবার বিকেলে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তিনি সংজ্ঞাহীন ছিলেন।

গত মঙ্গলবার গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভুল ইঞ্জেকশনের শিকার মরিয়ম সুলতানা মুন্নি গোপালগঞ্জ সদরের চন্দ্রদিঘলিয়া গ্রামের মো. মোশারফ হোসেন বিশ্বাসের মেয়ে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে ওই ছাত্রীর চাচা জাকির হোসেন বিশ্বাস বাদী হয়ে ডা. তপন কুমার মণ্ডল, ওই ওয়ার্ডে দায়িত্বরত নার্স শাহানাজ ও কুহেলিকাকে অভিযুক্ত করে সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

পরিবার ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মরিয়ম সুলতানা মুন্নির পিত্তথলিতে পাথর হয়েছে। গত মঙ্গলবার সকালে তাঁর অপারেশনের কথা ছিল। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে হাসপাতালের নার্স তাঁকে গ্যাসের পরিবর্তে অজ্ঞান করার ইঞ্জেকশন পুশ করেন। সঙ্গে সঙ্গে ওই শিক্ষার্থী জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

ঘটনার পর থেকে দুই নার্স পলাতক। মোবাইল ফোনও বন্ধ থাকায় তাঁদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে গোপালগঞ্জ হাসপাতালের পরিচালক ডা. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, এ ব্যাপারে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী শনিবার কমিটি প্রতিবেদন দাখিল করবে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর সুপারিশসহ তা বাংলাদেশ নার্সিং ইনস্টিটিউটে পাঠানো হবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা